Coxsbazarkontho.com » কক্সবাজারে মাদক বিরোধী সমাবেশে জেলা প্রশাসক

বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৩রা আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বুধবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০৬-২৬ ১৭:৪১:০০

কক্সবাজারে মাদক বিরোধী সমাবেশে জেলা প্রশাসক


………..ইয়াবা ব্যবসায় জড়িত থাকলে জনপ্রতিনিধিও বাঁচতে পারবে না……..
নিজস্ব প্রতিবেদক: সু-স্বাস্থ্যই সুবিচার, মাদক মুক্তির অঙ্গিকার এই প্রতিপাদ্যে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচার বিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস পালন করেছে উখিয়া উপজেলা প্রশাসন। ২৬ জুন সকালে উপজেলা সদরে র‌্যালী, মানববন্ধন এবং দুপুরে উখিয়া উচ্চ বিদ্যালরের মাঠে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.নিকারুজ্জামান চৌধুরীর সভাপতিত্বে, শিক্ষক মেধু বড়ুয়ার সঞ্চালনায় পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত, ত্রিপিটক পাঠ ও গীতা পাঠের মাধ্যমে শুরু হওয়া সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন। তিনি বলেছেন, প্রশাসনকে সমাজের যে যার অবস্থান থেকে মাদক কারবারি, পাচারকারী, ব্যবহারকারী সকলের তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করতে হবে। নিরপেক্ষতা বজায় রেখে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, নেতৃত্বশীল সচেতন ব্যক্তিদের তালিকা প্রনয়ন করতে হবে। মসজিদ-মাদ্রাসা,স্কুল কলেজ, গীর্জা, মন্দিরে মাদক বিরোধী সভা সমাবেশ করতে হবে। ক্লাসের সময় অন্তত আধঘন্টা মাদকের কুফল সম্পর্কে বক্তব্য দিতে হবে শিক্ষকদের। বাড়িতে মায়েদের খোঁজ খবর নিতে হবে ছেলেদের। মাদক বা ইয়াবা কারবারিরা যতই শক্তিশালী হউক অবশ্যই আইনের আওতায় আসবে। কোন জনপ্রতিনিধি, নেতারা মাদক কারবারিদের আশ্রয়-প্রশয় দিলে বা জনপ্রতিনিধিরা মাদক কারবারে জড়িত থাকলে জনপ্রতিনিধিতো থাকবেনা, আইনের হাত থেকে বাঁচতেও পারবেনা। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. শাহজাহান আলী বলেছেন মাদকের কুফল থেকে উখিয়া-টেকনাফের আগামীর প্রজন্মকে বাঁচাতে সকল শ্রেনী পেশার মানুষের ঐক্যবদ্ধ্য প্রচেষ্টা চালাতে হবে। প্রশাসনকে সহযোগিতা করতে হবে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কক্সবাজারস্থ ৩৪ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্ণেল আলী হায়দার আজাদ আহমেদ বলছেন, দেশের ৫ শতাধিক উপজেলার মধ্যে উখিয়া-টেকনাফ আলোচিত-সমালোচিত ইয়াবার কারণে। ইয়াবা নির্মুলে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত জিরো টলারেন্স নিয়ে সীমান্ত এলাকায় জীবনবাজি রেখে কাজ করছে বিজিবি। ইয়াবা মাদকের কলংক মুছতে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। প্রতিটি পরিবার থেকে বাবা-মায়েদের সন্তানের বিষয়ে সজাগ থাকতে হবে। প্রতিটি ওয়ার্ড মহল্লায় মাদক বিরোধী কমিটি গঠন করে সামাজিক ভাবে মাদক কারবারিদের বয়কট করতে হবে। বিশেষ অতিথি কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আদিবুল ইসলাম বলেছেন, উখিয়া-টেকনাফ এখন মাদক বিস্তারের ঘাটি। ইয়াবা ব্যবসা এবং রোহিঙ্গা নিয়ন্ত্রণে পুলিশ প্রশাসন আগের চেয়ে আরো বেশী সতর্ক রয়েছে। জেলায় কোন না কোন দিন ইয়াবা কারবারিদের শায়েস্তা করতে অভিযান পরিচালিত হচ্ছে। সারাদেশের ন্যায় উখিয়ায় পুলিশ প্রশাসনের অভিযান আরো বেশী পরিচালিত হবে। ইয়াবা বিস্তার প্রতিরোধ, মাদকে জড়িতদের বিষয়ে সু-খবর পাবেন অচিরেই। এটি আমাদের সকলের প্রত্যয় এবং প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উখিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী, জেলা পরিষদ সদস্য আশরাফ জাহান কাজল, উখিয়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কামরুন নেছা বেবী, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও রাজাপালং ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী, হলদিয়া পালং ইউপির চেয়ারম্যান শাহ আলম, পালংখালী ইউপির চেয়ারম্যান এম. গফুর উদ্দিন চৌধুরী, জালিয়া পালং ইউপির চেয়ারম্যান নুরুল আমিন চৌধুরী, রত্নাপালং ইউপির চেয়ারম্যান খাইরুল আলম চৌধুরী, মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কক্সবাজারের সহকারী পরিচালক সৌমেন মন্ডল, উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আবুল খায়ের, উখিয়া সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল হোসাইন সিরাজী প্রমুখ। এসময় উখিয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার ( ভুমি) ফখরুল ইসলাম, উখিয়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার রাইহানুল ইসলাম মিয়া, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান, উখিয়া প্রেসক্লাব সভাপতি সরওয়ার আলম শাহীনসহ সাংবাদিক, বিভিন্ন শ্রেনী পেশার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, ছাত্র-ছাত্রীরা উপস্থিত ছিলেন। প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক কামাল হোসেন বক্তব্য শেষে উপস্থিত সকলকে মাদক বিরোধী শপথ বাক্য পাঠ করান। এদিকে আমাদের টেকনাফ প্রতিনিধি জানিয়েছে, ২৬ জুন সকাল ১০টায় শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে উপজেলা প্রশাসন ও কক্সবাজার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের যৌথ আয়োজনে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন। এসময় তিনি বলেন টেকনাফের একসময় সুনাম ছিল অথচ আজ ইয়াবার দুর্নাম ছাড়া আর কিছু নেই। এই অবস্থা থেকে উত্তরনের জন্য তিনি আইন শৃংখলা বাহিনী ও প্রশাসনকে তথ্য উপাত্ত দিয়ে সহযোগীতার জন্য টেকনাফবাসীর প্রতি আহবান জানান। পাশাপাশি মাদক ব্যবসায়ীদের সামাজিকভাবে বয়কট করার আহবান জানান। পরিকল্পনা করে তাদের বয়কট করুন। মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে কোন সামাজিক সম্পর্ক করবেন না। এই অপকর্মের সাথে যারা জড়িত তাদের রেহাই নেই। অনেক জনপ্রতিনিধি মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত বলে তথ্য আছে, যারা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন তাদেরকে বরখাস্ত করার লক্ষ্যে কাজ চলছে। শিক্ষকদের প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন, সপ্তাহে একদিন স্কুলে গুলোতে মাদকের বিরুদ্ধে কথা বলুন। এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও শিক্ষা অফিসারসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের আহবান জানান। এমনকি মাদক ব্যবসায়ীদের কোন অনুদান কোন ধর্মীয়, কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গ্রহন না করার আহবান জানান। ইয়াবা কারবারীদের কাছ থেকে মসজিদগুলো অনুদান নেয় বলে উল্লেখ করে বলেন মসজিদে মাদক ব্যবসায়ীসহ কোন অপকর্মের সাথে জড়িত তাদের দয়া-দাক্ষিন্য, অনুদান নিবেন না। আইন শৃংখলা বাহিনী গুলোর প্রতি তিনি বলেন, জিলো টলারেন্স থাকবে। যারা মাদকের পক্ষে কাজ করবে তাদের বিরুদ্ধে সে রকম ব্যবস্থা হবে। কোন ছাড় নেই তাদের জন্য। পাশাপাশি তিনি অভিযানে একজন নিরীহ লোকও যাতে ক্ষতির শিকার না হন সে ব্যাপারে সতর্কতা অবলম্বনের জন্য আইনশৃংখলা বাহিনীর প্রতি আহবান জানান। একটু যাচাই বাছাই করে কাজ করবেন। একজন নিরীহ মানুষেরও যদি আর্তনাদ থাকে তাহলে সেটা হবে অনেক কষ্টের বিষয়। সেই জায়গায় আপনাদের আরেকটু আন্তরিক হওয়ার আহবান জানাই। তিনি ইয়াবার জন্য অন্যান্য দাপ্তরিক কাজের ব্যাঘাত হচ্ছে বলেও উল্লেখ করেন। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন একদিন ইয়াবার দুর্নাম বেশী দিন থাকবে না একদিন শেষ হবে। আমরা চাই টেকনাফের দুর্নাম মুছে যাক। অনেক উন্নতি হয়েছে। রাজনৈতিক নেতারা এখন ইয়াবা ব্যবসায়ীদের জন্য তদবির করছেন না। তদবির করলে রেহাই পাবেন না। পৃষ্টপোষক হিসাবে নাম উঠে যাবে। তবে এখন কেউ তদবির করছেন না বলে জানান। পরে তিনি উপস্থিত সকলকে মাদকের বিরুদ্ধে শপথ বাক্য পাঠ করান। সভার আগে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী টেকনাফের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে সভাস্থলে মিলিত হয়। শেষে দেশাত্মবোধক গান পরিবেশন করে সভার সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রবিউল হাসানের সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, টেকনাফস্থ বিজিবি ২ ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লে.কর্ণেল ফয়সাল হাসান খান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. আদিবুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী, টেকনাফ উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল আলম, পৌর মেয়র মো. ইসলাম, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার দাশ, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক সৌমেন মন্ডল প্রমুখ। অধ্যাপক সন্তোষ কুমার শীলের সঞ্চালনায় সভার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মো. শাহজাহান আলী। এতে বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ অংশগ্রহন করেন।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
সেপ্টেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০