দালালের নিয়ন্ত্রণে চলছে কক্সবাজার সদর থানা - Coxsbazarkontho.com | Newspaper

বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯ ২৯শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০৬-১৮ ১৬:৩৭:৪৬

দালালের নিয়ন্ত্রণে চলছে কক্সবাজার সদর থানা


বিশেষ প্রতিবেদক: কক্সবাজার সদর মডেল থানার কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে সংঘবদ্ধ দালাল চক্র। প্রতিনিয়ত দালালের খপ্পরে পড়ে আর্থিক ও শারীরিকভাবে চরম ক্ষতির সম্মুখিন হচ্ছে বিচারপ্রার্থী লোকজন। পাশাপাশি বিভিন্ন এলাকায় পুলিশের অসাধু কর্মকর্তাদের ছত্রছায়ায় হরদম চলছে নানা অপকর্মসহ চাঁদাবাজি, ধান্ধাবাজি ও আটক বাণিজ্য। অভিযোগ উঠেছে ওয়ারেন্টভুক্ত আসামী, নানা বিরোধপূর্ণ জমি সংক্রান্ত বিষয়ে আটক ও মাদক কিংবা ইয়াবা ব্যবসায়ির অপবাদ দিয়ে গ্রেফতার করে তা মোটা অংকে ছাড়ানোসহ নানা অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে এই দালাল চক্র। সূত্রমতে, কক্সবাজার সদর মডেল থানার কার্যক্রম বর্তমানে দালাল নির্ভর হয়ে পড়েছে। দালাল কিংবা সোর্স পরিচয়ে অসাধু পুলিশ কর্মকর্তাদের হয়ে কাজ করছে তারা। পুলিশও তাদের কথামত ধরছে আর মোটা অংক নিয়ে মামলা কিংবা ৩৪ ধারায় অথবা ছাড়ছে। অতীতের কোন অপরাধ কিংবা নিরাপরাধ মানুষকে যেমন গালি বা অপকর্মকারি হিসেবে জামাত-শিবির বানানো হত ঠিক তেমনি বর্তমানে ব্যবহার হচ্ছে ইয়াবা ব্যবসায়ি হিসেবে অজুহাত। মূলত দালালরা যেভাবে পরিচালনা করছে ঠিক সেই ভাবেই পরিচালিত হচ্ছে সদর মডেল থানার গুটি কয়েক পুলিশ অফিসার নামধারি নরপশু। যাদের মধ্যে মানবতা কিংবা মানবিকতা বলতেই কিছুই নেই। সূত্র আরো জানায়, চট্রগ্রাম জেলার সাতকানিয়া থানার মো. জাহাঙ্গীর নামে সদর মডেল থানায় এমন দালালও রয়েছে যার মাসিক বেতন ২৫ হাজার টাকা। শুধুমাত্র সে এক অফিসারের হয়ে কাজ করে। এছাড়াও ওই দালাল উক্ত অফিসার দিয়ে যেসমস্ত লোকজন ধরায় ওই লোকের বিরুদ্ধে মামলা দেয়া কিংবা ছেড়ে দেয়ার সময় যে টাকা আদায় করা হয় উক্ত টাকা থেকেও ভাগ পায় বেতনভুক্ত এই দালাল। এছাড়া বর্তমানে প্রভাবশালী ও জনপ্রতিনিধি পরিচয়ে রয়েছে প্রথম শ্রেনীর দুই দালাল। তারা হল শহরের কুতুবদিয়া পাড়ার আকতার কামাল ও পিএমখালীর জৈনক মাদুল করিম। এই দুই দালাল গুটি কয়েক অসাধু পুলিশ কর্মকর্তাদের ব্যবহার করে সমান তালে ধান্ধাবাজি চালিয়ে যাচ্ছে। এর মধ্যে করিমের বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ নেই। তার ক্ষমতা এতই বেশি তার নিজ এলাকা পিএমখালী ইউনিয়ন থেকে কোন আসামী কিংবা সন্ত্রাসিকে ধরতে হলে তার অনুমতি নিতে হয়। আবার কোন আসামী ধরে থানা হাজতে নিয়ে আসা হলে ভাল খারাপের সার্টিফিকেট দেয়ার জন্য পুলিশ কর্তা তাকে থানায় ডেকে নিয়ে যান। যে কারনে তার দালালির অবস্থানও অন্যদের চেয়ে অনেক শক্ত। অভিযোগ ওঠেছে করিমের বড় ভাই আব্বাসও এক সময় সমাজের এক সুনামধন্য ব্যক্তির পরিচয় ব্যবহার করে থানায় দালালি করত। পরে ওই ব্যক্তি বিষয়টি জানার পর আব্বাসকে উত্তম-মধ্যম দিলে সে থানার দালালি ছাড়তে বাধ্য হয়। বড় ভাই থানা ছাড়ার সুবাধে এই পদে বর্তমানে দেদারছে অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে ছোট ভাই করিম। অভিযোগ ওঠেছে হরেক রকম ওজুহাতে সমাজের বিত্তভান ও নানা অপকর্মকারিদের থানায় ধরে এনে লাখ লাখ টাকার বাণিজ্য করে যাচ্ছে দালাল মাদুল করিম। বলতে গেলে তার ক্ষমতার কাছে অসহায় হয়ে পড়েছে সদর থানাধীন অহরহ বিচারপ্রার্থী ও নানা পেশার মানুষ। এদিকে করিমের ন্যায় কুতুবদিয়া পাড়ার আকতার কালামের ক্ষমতা বেশি না হলেও সে কাক ডাকা ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত অন্তত প্রতিদিন ১০টির অধিক নানা মামলার তদবির চালিয়ে পকেট ভারি করে বাড়ী ফিরে। খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায়, উল্লেখিত দালাল ছাড়াও আরো যারা রয়েছে তাদের মধ্যে হল সাইদুল প্রকাশ ছৈয়দ, বাবু, বাইট্টা রমজান, সোহাগ, রাশেদ, সরওয়ার, উপজেলার হুমায়ন, জামাল, বাহারছড়ার রাসেল ও বাবু। এছাড়াও রয়েছে বিভিন্ন রাজনৈতিক পরিচয় বহনকারি ও নানা পেশার দালাল।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক পুলিশ কর্মকর্তা জানান, বর্তমানে থানার পরিবেশ খুবই ভয়াবহ। অফিসাররা যে কোন বিষয়ে সিন্ধান্ত দেয়ার পূর্বেই দালালরা সিন্ধান্ত দিয়ে বসে এবং দালালের সিন্ধান্তই শেষ পর্যন্ত বাস্তবায়ন হয়। মূলত অপকর্মের মাত্রা দিন দিন বেড়ে যাওয়ার কারনে থানার পরিবেশ চরমভাবে প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে বলে দাবী পুলিশ কর্মকর্তাদের।
এদিকে থানায় দালালের বেপরোয়া উৎপাত ও তাদের নানা অপকর্মের ব্যাপারে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ফরিদ উদ্দিন খন্দকার পিপিএম জানান, আগে অনেক দালাল ছিল। বর্তমানে অনেকটা কমেছে। মাদুল করিমকেও বারন করা হয়েছে যেন থানার চার পাশে না আসে। তার পরেও কিছু দালাল থানার আশ পাশে ঘুরাঘুরি করে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
নভেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০