দালালের ফুলেল শুভেচ্ছায় ভাসছে নতুন ওসি! - কক্সবাজার কন্ঠ । কক্সবাজারের মুখপত্র

বুধবার, ৩ জুন ২০২০ ২০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০১৯-১০-১৭ ১৪:২৪:৪০

দালালের ফুলেল শুভেচ্ছায় ভাসছে নতুন ওসি!

কক্সবাজার:কক্সবাজার সদর মডেল থানায় নতুন অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হিসাবে সৈয়দ আবু মোহাম্মদ শাহাজাহান কবির যোগদান করেছেন। ১৫ অক্টোবর সদর মডেল থানার ওসি হিসাবে আনুষ্ঠানিকভাবে তিনি দায়িত্বভার গ্রহণ করেছেন। কিন্তু, দায়িত্বভার গ্রহন না করার আগেই থানার কিছু চিহ্নিত দালাল উৎফুল্ল হয়ে উঠেছে।

Advertisements
গত দুইদিন ধরে রাতদিন ওসি’র কক্ষে, থানা ও থানার কম্পাউন্ডের বাইরে এসব দালাল গিজগিজ করছে। কে কার আগে ফুল দিয়ে বরণ করে নিবে এই প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। তাদের উদ্দ্যেশ্য শুধু নতুন ওসির সাথে পরিচয় হওয়া। আর পরিচিত হতে পারলেই দীর্ঘ মেয়াদী দালালীর সুযোগ পাওয়া। চিহ্নিত এসব দালাল ছাড়াও কিছু নাম সর্বস্ব রাজনৈতিক নেতা, মানবাধিকার কর্মী নামধারী টাউট ও সাংবাদিক পরিচয়ে তদবিরকারীদের সংখ্যা বেশী। প্রতিদিন সকাল বিকাল ও রাত অবধি ফুল নিয়ে থানার বারান্দায় ঘুরে বেড়ানো এবং ওসির সঙ্গে ছবি তুলে ফেসবুক ও নাম সর্বস্ব নিউজ পোর্টালে প্রকাশ করে বাহবা নেয়া তাদের প্রধান কাজে পরিণত হয়েছে। এ কারণে এসব দালালদের অভিনন্দনের জোয়ারে ভাসছে নয়া ওসি সৈয়দ আবু মোহাম্মদ শাহাজাহান কবির।
Advertisements

অভিযোগ উঠেছে, কক্সবাজার সদর মডেল থানায় দালালদের উৎপাত দীর্ঘদিনের। দালাল ছাড়া এমন কোন মামলা ও বিচারকার্য শেষ হয় না এ থানায়। এনিয়ে জেলার সুশীল সমাজ থেকে শুরু করে ভুক্তভোগিদের অভিযোগের শেষ নেই। স্থানীয় ও জাতীয় পত্রিকায় ফলাও করে সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে। এরই প্রেক্ষিতে বিদায়ী অফিসার ইনচার্জ ওসি ফরিদ উদ্দিন খন্দকার শেষের দিকে দালালদের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থানে ছিল। ফলে অনেকটা দালাল মুক্ত ছিল কক্সবাজার সদর মডেল থানা। কিন্তু, নতুন ওসি হিসাবে সৈয়দ আবু মোহাম্মদ শাহাজাহান কবির যোগদান করার পর থানায় ভিড় ভিড় করছে দালালরা। তাদের উদ্দেশ্য, নতুন ওসিকে ফুলের মালা ও অভিনন্দন বার্তা দিয়ে প্রথমে পরিচয় এবং পরে ফেসবুক ও মিডিয়ায় প্রকাশ করে ওসির সাথে ভাব জমানো। অবশ্য, দালালদের এসব বিষয়ে খুব সতর্কবস্থায় থাকবেন বলে জানিয়েছেন নবাগত ওসি সৈয়দ আবু মোহাম্মদ শাহাজাহান কবির। তিনি বলেছেন, ‘আমার পুলিশ সুপারের নির্দেশনায় যতদিন আমি থাকব, ততদিন দায়িত্বশীলতার সাথে কাজ করে যাব। দালালদের বিষয়ে আমি খুবই সতর্ক রয়েছি এবং আমার থানার প্রত্যেকটি অফিসারকে ইতিমধ্যে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে কোন কাজ যাতে অফিসার ইনচার্জকে না জানিয়ে না করেন। তাই, আমি শহরবাসিকে আশস্ত করতে চাই, কক্সবাজার সদর মডেল থানা হবে সম্পূর্ণ দালাল ও ঘুষ মুক্ত’।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, কক্সবাজার সদর মডেল থানায় ওসি আসে ওসি যায়, কিন্তু নানা প্রতিশ্রুতি দেয়ার পরও কোন ধরণের দালাল মুক্ত করা যাচ্ছে না এ থানা। বিদায় ওসি ফরিদ উদ্দিন খন্দকারও নানা প্রচেষ্টা করে থানাকে দালালমুক্ত করতে পারেনি। অবশ্য, মাঝেমধ্যে কিছু সময়ের জন্য দালালমুক্ত থানা হলেও সেই চিহ্নিত দালালরা নতুন ওসিকে অভিনন্দন ও ফুলের তোড়া দিয়ে থানায় ভিড় জমাতে শুরু করেছে। বুধবার সন্ধ্যায়ও থানায় অসংখ্য দালালকে ফুলের তোড়া নিয়ে থানা প্রাঙ্গনে গিজগিজ করতে দেখা গেছে।

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় দালালদের উৎপাত ছিল। সকাল-বিকাল, সন্ধ্যা এবং রাতে এসব দালালরা থানায় গিজগিজ করে। থানার কম্পাউন্ড, বারান্দা, ওসি, এসআইদের কক্ষে এদের বিচরণ। রাত যত গভীর হয়, ততই এদের চলাফেরা বেড়ে যায়। এদের ইশারায় অনেকে কর্মকর্তা উঠে-বসে। ভোক্তভুগীদের দেয়া তথ্যমতে এসব দালালদের সংখ্যা শতাধিক।

আরো সংবাদ