দৈনিক ১৫ ঘন্টা কক্সবাজার থানায় থাকেন দালাল খালেদা - Coxsbazarkontho.com | Newspaper

বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯ ১লা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০১৯-১০-১০ ২০:৩১:৪২

দৈনিক ১৫ ঘন্টা কক্সবাজার থানায় থাকেন দালাল খালেদা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

Advertisements



তিন মাসে দুই বার আটক হওয়ার পরও কোনভাবেই দমানো যাচ্ছেনা পিএমখালীর খালেদা দালালকে। তার বেপরোয়া দালালির কাছে অসহায় হয়ে পড়েছে বিচার প্রার্থী লোকজনসহ বিপদগ্রস্থ হয়ে থানায় আসা অসহায় মহিলারা। মূলত কাক ডাকা ভোর থেকে শুরু করে রাত ১২টা পর্যন্ত এই মহিলা দালাল থানা কম্পাউন্ড এর তেভরে ও বাইরে অবস্থান নিয়ে থাকে। কখনো কখনো দারোগাদের নোটিশ জারির দায়িত্ব নিয়ে নানা ঞুমুক ও দমকি দিয়ে বিবাদীদের কাছ থেকে নগদ টাকা আদায়ে হরদম লিপ্ত থাকে। সূত্রমতে, দালালির কারনে গত তিন মাসের মধ্যে তাকে দুইবার থানা এলাকা থেকে ধরে ২ ঘন্টা আটকও করে রাখেন খোদ সদর মডেল থানার ওসি ফরিদ উদ্দিন খন্দকার ও এসআই আনছারুল হক। শুধু তাই নয় তিন মাস আগে এই মহিলা দালাল খালেদার ছবিসহ দালাল খালেদাকে ধরিয়ে দিন উল্লেখ করে থানার দেয়ালে লাগানো হয়েছিল লিপলেট। সদর থানায় প্রতিনিয়ত এই মহলিা দালালের খপ্পরে পড়ে আর্থিক ও মানসিকভাবে চরম ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে বিচারপ্রার্থীরা। পাশাপাশি বিভিন্ন এলাকায় পুলিশের অসাধু কর্মকর্তাদের ছত্রছায়ায় চালিয়ে যাচ্ছে নানা অপকর্মসহ চাঁদাবাজি ও আটক বাণিজ্য। অভিযোগ ওঠেছে ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি, নানা বিরোধপূর্ণ জমিসংক্রান্ত বিষয়ে আটক ও মাদক কিংবা ইয়াবা ব্যবসায়ীর অপবাদ দিয়ে গ্রেপ্তার করে তা মোটা অংকে ছাড়ানোসহ নানা অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে এই দালাল খালেদা সিন্ডিকেট। এই খালেদা মহিলা হলেও তার আচার আচরণ ও কথা বলার স্টাইল দেখলে মনে হবে ওসি ও দারোগারা তার নির্দেশের অপেক্ষায় থাকেন। এমন দমকি মারবে যেন তার ক্ষমতা আকাশ ছোঁয়া। সূত্রে জানা যায়, দালাল খালেদা পিএমখালী ইউনিয়নের মাচুয়াখালী ৯নং ওয়ার্ড সিকদারপাড়া এলাকার বাসিন্দা। খালেদার রয়েছে নামে-বেনামে তিনজন স্বামী ও দুইটি ছেলে। তার দুই ছেলে তাকে শহরের পাহাড়তলী এলাকায়।



খালেদা পিএমখালীতে অস্ত্র, ডাকাতি, মানবপাচারসহ বিভিন্ন মামলার আসামীদের কাছ থেকে মাসিক মোটা অংকের টাকায় পুলিশের অবস্থান ও অভিযানসহ নানা তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করেন বলে অভিযোগ স্থানীদের। দালাল খালেদাকে ইতিমধ্যে দুইবার আটক করে কোন ব্যবস্থা না নেয়ার কারনে সে নিয়মিত দালালী কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে বলে জানান বিচারপ্রার্থীরা। শুধু তাই নয় খালেদার নেতৃত্ত্বে দালাল কিংবা সোর্স পরিচয়ে অসাধু পুলিশ কর্মকর্তাদের হয়ে কাজ করছে আরো অনেকে। পুলিশও তাদের কথামতো ধরছে আর মোটা অংক নিয়ে মামলা কিংবা ৩৪ ধারায় চালান দিচ্ছে। অতীতের কোন অপরাধ কিংবা নিরাপরাধ মানুষকে যেমন গালি বা অপকর্মকারি হিসেবে জামায়াত-শিবির বানানা হতো ঠিক তেমনি বর্তমানে ব্যবহার হচ্ছে ইয়াবা ব্যবসায়ী হিসেবে ওজুহাত। মূলত দালালরা যেভাবে পরিচালনা করছে ঠিক সেভাবেই পরিচালিত হচ্ছে সদর মডেল থানার গুটি কয়েক পুলিশ অফিসার। যাদের মধ্যে মানবতা কিংবা মানবিকতা বলতেই কিছুই নেই। এদিকে থানায় দালাল খালেদার বেপরোয়া উৎপাত ও দুইবার আটকের বিষয়ে ব্যাপারে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ খায়রুজ্জামান বলেন-খালেদাকে এর আগে একবার আটক করার পর ছেড়ে দেয়া হয়। তবে এবার যদি তাকে পাওয়া যায় তাহলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
অক্টোবর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১