নতুন রুপে রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতাল - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ১৩ জুলাই ২০২০ ২৯ আষাঢ়, ১৪২৭

সোমবার

প্রকাশ :  ২০২০-০১-১৪ ১৯:২২:৪৯

নতুন রুপে রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতাল

স্টাফ রিপোর্টার: ১৯৫৪ সালে রাজারবাগে পাঁচ একর জায়গার উপর নির্মিত হয় কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল।একসময়ের অনুন্নত ও স্বাস্থ্যসেবায় নানা সমস্যায় জর্জরিত হওয়া হাসপাতালে  বর্তমানে দৃষ্টিনন্দন ভবন,চিকিৎসা সেবায় আধুনিকায়ন ও অবকাঠামোগত উন্নয়নে মনোরম পরিবেশ বিরাজ করছে।
হাসপাতাল ঘুরে রোগীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ডিআইজি হাসান উল হায়দার(পরিচালক) এ হাসপাতালে যোগদানের পর হতেই পাল্টে যায় হাসপাতালের পরিবেশ। আগে আউটডোরে চিকিৎসাসেবা পেতে যেখানে রোগীরা অনেক হয়রানি হতেন সেখানে ওষুধ নেয়ার জন্য ২০টি কাউন্টার করায় নির্বিঘ্নে সবাই সেবা নিচ্ছেন।আউটডোরে দৈনিক ১৪০০-১৫০০ রোগী চিকিৎসা সেবা নিচ্ছেন। ইনডোরে ২৫০ শয্যার বেডে ৩০০-৩৫০ রোগীকে চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়।রোগীদের খাবারের মান পরিবর্তন করা হয়েছে। হাসপাতালে  আগত সেবাপ্রার্থী রোগীরা হাসপাতালের সকল সুযোগ সুবিধায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।
Advertisements
তার প্রচেষ্টায় চিকিৎসা সেবায় সরকারের গৃহিত পদক্ষেপের সম্পূর্ণ  সুফল পাচ্ছে রোগীরা।নতুন আঙ্গিকে সজ্জিত হাসপাতালটি এখন যে কারও দৃষ্টি আকর্ষণ করে। হাসপাতালের সকল কার্যক্রম আধুনিকায়নের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পুলিশ বাহিনীর কর্মকর্তা, কর্মচারীদের জন্য সম্পূর্ণ ফ্রি ও আধুনিক  চিকিৎসা
সেবার প্রত্যয়ে, হাসপাতালের পরিবেশ ও কাঠামোর যুগোপযোগী পরিবর্তন সাধন করে সরকারের উন্নয়ন সহযোগীতায় নতুন রুপে আধুনিক চিকিৎসাসেবা দিয়ে যাচ্ছে রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল।
হাসপাতালে নতুন রূপে আউটডোর, সার্বক্ষণিক বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দ্বারা  চিকিৎসা সেবা,আধুনিক পেশেন্ট বেড, কেবিন, নতুন চিকিৎসা সরঞ্জাম, আধুনিক ও স্বাস্থ্যকর পরিবেশে সেবা, অপারেশন থিয়েটারসহ,পুরো হাসপাতালের দৃষ্টিনন্দন ভবনকে সাজানো হয়েছে নতুনভাবে। একইসাথে যুক্ত হয়েছে দক্ষ ডাক্তার, নার্স ও জনবল। রোগীর সাথে আসা স্বজন ও দর্শনার্থীদের জন্য হাসপাতালের অভ্যন্তরে খাবারের জন্য রয়েছে ক্যান্টিন সুবিধা ও নামাজ পড়ার জন্য রয়েছে আধুনিক ডিজাইনে নির্মিত মসজিদ।
Advertisements
হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম নিয়ে কথা বলতে চাইলে হাসপাতালটির পরিচালক প্রশাসন ও অর্থ ডা.এমদাদুল ইসলাম বলেন আমাদের পরিচালক মহোদয়ের আন্তরিক প্রচেষ্টা ও নির্দেশনার আলোকে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার ও আধুনিক চিকিৎসা সরঞ্জামাদির মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবার পরিধি ও মান বৃদ্ধি করতে আমরা বিভিন্ন  পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি।
বর্তমানে হাসপাতালে আইসিইউ, ডায়ালাইসিস,
আই,ডেন্টাল,মেডিসিন,অর্থোপেডিক্স, গাইনী, সার্জারি,ফিজিওথেরাপি, কার্ডিওলজি,স্কিন এন্ড এ্যালার্জি বিভাগ চালু রয়েছে। এখানে ক্যান্সার, নেফ্রোলজি,
এনথ্রোপলজি,গ্যাস্ট্রোলজি,হেপাটোলজি, এ বিভাগগুলো চালু হলে এখান হতে কোনও রোগী বাইরের কোন হাসপাতালে ট্রান্সফার করার প্রয়োজন হবে না। হাসপাতালে জনবল সংকট রয়েছে, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জনবল নিয়োগের অনুমোদন প্রদান করে নিয়োগ বিধিমালা করলে  কার্যক্রমে আরও গতিশীলতা আসবে।,পুলিশ সুপার(এইচ আর) শহিদুল ইসলাম বলেন হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা ছাড়াও আমরা এখানে চাইনিজ এক্সপার্ট দ্বারা ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পের মাধ্যমে ব্যথা,প্যারালাইসিস,স্টোকের রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিচ্ছি। এ হাসপাতালে আরও আধুনিক চিকিৎসা সেবা দেওয়ার উদ্যোগ আমরা নিয়েছি।
হাসপাতালে কর্মরত প্রকৌশলী আমজাদ হোসেন শাকিল বলেন, ডিআইজি হাসান উল হায়দার স্যার একজন সৎ ও নিষ্ঠাবান কর্মকর্তা। বর্তমানে চলমান উন্নয়ন কাজগুলো বাস্তবায়নে তিনি দিন-রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।কাজের গুনগত মান রক্ষায় তিনি আমাদের নির্দেশনা দিয়ে যাচ্ছেন। তার নির্দেশনার আলোকে আমরাও কাজ করে যাছি। চলমান উন্নয়ন কাজগুলো শেষ হলে এ হাসপাতালটি আরও আধুনিক হাসপাতালে পরিনত হবে।

আরো সংবাদ