পাতি সেলিব্রিটির একদিন - Coxsbazarkontho.com

শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০৯-১০ ২০:০২:৩৪

পাতি সেলিব্রিটির একদিন

চোখ বড় বড় করে অবিশ্বাসভরা দৃষ্টিতে রাশেদ তার মোবাইলের স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে আছে। এক ঘণ্টা আগে সে চার লাইনের স্ট্যাটাসটা দিয়েছিল, এরই মধ্যে সেটি পঁয়তাল্লিশবার শেয়ার হয়েছে। রাশেদের হার্টবিট ক্রমেই বেড়ে চলেছে। নোটিফিকেশন চেক করতে গিয়ে সে ধাক্কার মতো খেল। বেশ কিছু নতুন ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট এসেছে। এদের মধ্যে কয়েকজন সুন্দরী মেয়েও আছে। নতুন ফলোয়ারদের অনেকে আবার এরই মধ্যে রাশেদের টাইমলাইনে লাইক-কমেন্টের বন্যায় ভাসিয়ে দিয়েছে। রাশেদ একটা দীর্ঘশ্বাস ছাড়ল। দীর্ঘশ্বাসটা হতাশার নয়; আত্মতৃপ্তির। সেলিব্রিটি হওয়ার শখটা রাশেদের অনেক দিনের।

মুচকি মুচকি হেসে রাশেদ তার ভাইরাল হওয়া স্ট্যাটাসের রিঅ্যাক্টগুলো বারবার চেক করছে। নিউজফিড স্ক্রল করতে গিয়েই তার মনটা চূড়ান্ত রকমের ভালো হয়ে গেল। তার সদ্য ভাইরাল হওয়া স্ট্যাটাসটা অনেকে তাদের টাইমলাইনে কপি করে দিচ্ছে। কেউ কেউ কপিরাইট চিহ্ন দিয়ে রাশেদের নাম লিখলেও কেউ কেউ সেটি লিখছে না। নিজের স্ট্যাটাস বলে চালিয়ে দিচ্ছে। রাশেদ ভাবল, সে এখন অনেক বড় সেলিব্রিটি হয়ে গেছে। তার লেখার কোয়ালিটি এতটাই ভালো হয়েছে যে মানুষ ভালোবেসে সেটা তাদের নিজেদের নামে চালিয়ে দিচ্ছে। অন্য দিন হলে কার্টিসি ছাড়া লেখা চুরি করার জন্য পোস্টকারীকে ধুয়ে দিলেও, আজকে তার কিছু বলতে ইচ্ছা হলো না। সে এখন অনেক বড় সেলিব্রিটি। তার এখন এত তুচ্ছ বিষয় নিয়ে মাথা ঘামালে চলবে না। তা ছাড়া সেলিব্রিটিদের লেখা মানুষ এক-আধটু নিজের নামে চালিয়ে দেবে—এটাই স্বাভাবিক।

রাশেদ এতক্ষণ তার পড়ার টেবিলেই বসে ছিল। কালকে সকালে একটা পরীক্ষা আছে। সারা বছর পড়াশোনা না করলেও পরীক্ষার আগের রাতে রাশেদ ঠিকই বই উল্টেপাল্টে দেখে। মোবাইল রেখে সে আবার বইয়ের পাতা উল্টাতে শুরু করল। হঠাৎ ভাবল, নাহ! আজকের রাতটা বই পড়ে নষ্ট করার কোনো মানে হয় না। আজকের রাত উদ্যাপনের।

ক্রিং ক্রিং… রাশেদের ফোন বেজে চলেছে। মিনু মানে রাশেদের গার্লফ্রেন্ড ফোন করেছে। সেলিব্রিটিদের প্রথমবারেই কল রিসিভ করা উচিত না, এটা ভেবে রাশেদ মিনুর তৃতীয়বারের মতো দেওয়া কলটা রিসিভ করল। কল রিসিভ করতেই দেরি হলো যা, সঙ্গে সঙ্গেই মিনু আচ্ছা করে গালাগাল শুরু করল।

রাশেদ বলল, ‘এখন থেকে আমি আর আগের ওই বলদ রাশেদটা নই, আমি সেলিব্রিটি রাশেদ। আমার সঙ্গে বিনয়ের স্বরে কথা বলো। সেলিব্রিটিদের সম্মান দিয়ে কথা বলতে হয়।’

মিনু আগের তুলনায় আরো বেশি করে গালাগাল শুরু করল, ‘সেলিব্রিটির খেতায় আগুন। শালা, এতবার মেসেজ দিলাম, সিন করলি না কেন?’

রাশেদ ভাবল, এই-ই সুযোগ। সেলিব্রিটিদের কোনো গার্লফ্রেন্ড থাকা উচিত নয়। এতে করে তাদের ওপর ক্রাশ খাওয়া মানুষের সংখ্যা কমে যেতে পারে। রাশেদও মিনমিন করে পাল্টা গালাগাল শুরু করল। কিছুক্ষণের মধ্যেই রাগ করে মিনু ফোনটা কেটে দিল। রাশেদ মিনুকে ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, ফোন—সব জায়গায়ই ব্লক করে দিল।

ডিনার করার জন্য মা জোরে জোরে ডাকতে লাগলেন। ডাক শুনেও রাশেদ কোনো জবাব দিল না। সেলিব্রিটিদের সঙ্গে সঙ্গেই জবাব দিতে নেই।

খাবার টেবিলে বসে রাশেদ তার বাবাকে বলল, ‘বাবা, আমায় নিয়ে আর কোনো টেনশন কোরো না। আমার একটা ব্যবস্থা হয়ে গেছে।’

রাশেদের বাবা আকরাম আলী অত্যন্ত আগ্রহের সঙ্গে জিজ্ঞেস করলেন, ‘কী ব্যবস্থা হয়েছে?’

রাশেদ জবাব দিল, ‘বাবা, আমাকে আশীর্বাদ করে দাও। আমি সেলিব্রিটি হয়ে গেছি।’

আকরাম সাহেব আবারও আগ্রহী হয়ে প্রশ্ন করলেন, ‘বেতন কত পাবি?’

রাশেদ রাগ করে জবাব দিল, ‘কিসের মধ্যে কী নিয়ে আসো। বেতন কিসের আবার! পৃথিবীর সব কিছুই কি টাকা দিয়ে কেনা যায়? শোনো বাবা, সেলিব্রিটি জিনিসটা টাকার অনেক ঊর্ধ্বে।’

সকালে কলেজে যাওয়ার সময় রাশেদ মোড়ের দোকান থেকে একটা নীল কালির কলম কিনল। কলম কিনে কিছুদূর সামনে যেতেই মনে পড়ল, ‘নাহ! একটা কলম দিয়ে এত এত অটোগ্রাফ দেওয়া সম্ভব হবে না। কালি শেষ হয়ে যেতে পারে।’ রাশেদ আবার দোকানে গিয়ে আরেকটা ঝকঝকে কলম কিনে সঙ্গে নিল।

কলেজে গিয়ে রাশেদ সবাইকে এক প্রকার জোর করেই অটোগ্রাফ দিল। খাতার একটা পেজ নষ্ট করার জন্য একটা মেয়েকে বিড়বিড় করে গালাগাল করতে শোনা গেল। অটোগ্রাফ দেওয়ার সময় রাশেদের দিকে সবাই কী রকম অদ্ভুত দৃষ্টিতে তাকাচ্ছিল। কিন্তু সেসবে রাশেদের কিছু যায়-আসে না। রাশেদ এখন বড় সেলিব্রিটি। তার এত ছোট ছোট বিষয়ে মাথা ঘামালে চলবে না।

পরীক্ষার হলে রাশেদ ইচ্ছা করেই দশ মিনিট দেরি করে গেল। সেলিব্রিটিরা সব কিছুতে সাধারণ মানুষদের মতো হলে হবে কী করে। তাদের আলাদা হতে হবে। সবার সঙ্গে না ঢুকে আলাদাভাবে ১০ মিনিট পরে ঢুকলে সবাই রাশেদের দিকে তাকাবে। রাশেদ তখন খানিকটা ভাব নিতে পারবে—দেরি করে পরীক্ষার হলে যাওয়ার এটাও একটা কারণ অবশ্য।

রাশেদ যখন পরীক্ষার হলে ঢুকল, কেউ তার দিকে তাকাল না। সবাই পরীক্ষার খাতায় লেখা নিয়েই ব্যস্ত। স্যার রাশেদকে ধমকের সুরে বললেন, ‘সারা বছর দেরিতে ক্লাসে আসো, তাই বলে পরীক্ষার হলেও দেরি করে আসতে হবে?’

রাশেদ মনে মনে বলল, ‘ব্যাটা তুমি ফেসবুক চালাও না। চালালে বুঝতা আমি কী জিনিস। তখন বেয়াদবের মতো কথা বলতা না।’

পরীক্ষা শেষ করে রাশেদ কলেজের ক্যাম্পাসে অনেক হাঁটাহাঁটি করল। কেউ রাশেদের সঙ্গে কোনো সেলফি তুলতে বা অটোগ্রাফ নিতে এলো না। রাশেদের একটু মন খারাপ হলো। ফেসবুকে তার একটা স্ট্যাটাস ভাইরাল হলো। সবাই সেটি শেয়ার দিয়ে লাইক-কমেন্ট পেল। সহমত ভাই, এইটা সেরা, কুল ইত্যাদি কমেন্ট করে রাশেদের প্রশংসা করল। অথচ এখন তারা কেউ তাকে চিনছে না। এইটা কিছু হলো!

বাসায় ফেরার সময় রাশেদ ব্রিজের ওপর দাঁড়িয়ে রইল। ব্যস্ত ব্রিজের ওপর দিয়ে মানুষ চলাচল করছে। এক ঘণ্টা সময় পার হয়ে গেল; কিন্তু একজন মানুষও রাশেদেকে চিনতে পারল না। চোখে সানগ্লাস থাকার কারণে হয়তো মানুষ চিনতে পারছে না ভেবে রাশেদ চোখ থেকে সানগ্লাস নামিয়ে আরো এক ঘণ্টা ব্রিজের ওপর দাঁড়িয়ে রইল। ফলাফল একই।

চূড়ান্ত পর্যায়ে হতাশ হয়ে রাশেদ যখন বাসায় যাওয়ার জন্য হাঁটতে শুরু করবে, ঠিক তখনই একটা সুন্দরী মেয়ে এসে রাশেদকে বলল, ‘ভাইয়া, আমি কি আপনার সঙ্গে সেলফি তুলতে পারি?’

রাশেদ ‘শিওর’ বলে ঝাপটা মেরে সেই মেয়েটির ফোন নিজের হাতে তুলে নিল। তারপর বিভিন্ন অ্যাঙ্গেলে ২০-২৫টি সেলফি তুলে মেয়েটাকে খাতা বের করতে বলল। মেয়েটা খাতা বাড়িয়ে দিতেই রাশেদ একটা রোমান্টিক কবিতা লিখে নিচে তার নাম লিখে দিল।

মেয়েটা কবিতার নিচে ‘রাশেদ’ লেখা নাম পড়ে জিহ্বায় কামড় দিয়ে বলল, ‘ভাইয়া কিছু মনে করবেন না। আই অ্যাম এক্সট্রিমলি স্যরি। আমি ভাবছিলাম আপনি হাবিবুল বাশার। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক ক্রিকেটার। ওনার চেহারার সঙ্গে আপনার চেহারার দারুণ মিল আছে।’

মেয়েটার দিকে তাকিয়ে রাশেদ একটা দীর্ঘশ্বাস ছাড়ল। এই দীর্ঘশ্বাসটা কিন্তু আত্মতৃষ্টির নয়, হতাশার!

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
সেপ্টেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০