পাপিয়া ১৫ দিনের রিমান্ডে, বিস্তারিত - কক্সবাজার কন্ঠ । জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল

শুক্রবার, ৩ এপ্রিল ২০২০ ২০শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০২০-০২-২৪ ১৮:৩৩:১৯

পাপিয়া ১৫ দিনের রিমান্ডে, বিস্তারিত

দৈনিক সংবাদ : যুব মহিলা লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী শামীমা নুর পাপিয়ার অর্থ ও ক্ষমতার উৎস বিষয়ে তদন্ত শুরু করেছে র‌্যাব। আলাদিনের চেরাগ পাওয়ার মতো কিভাবে তিনি রাতারাতি এত সম্পদের মালিক হলেন তা উদ্ঘাটনে কাজ করছে র‌্যাব। র‌্যাবের সন্দেহ আসামাজিক কর্মকাণ্ড ছাড়াও বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তি এবং প্রভাবশালী মহলের ছত্রছায়ায় ব্লাক মেইলিংয়ের মাধ্যমে তিনি শত শত কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। অবৈধ সম্পদের বড় অংশ দেশের বাইরে পাচার করেছেন। এছাড়া তার মাধ্যমে অন্য কোন ব্যক্তি বিদেশে অর্থপাচার করেছেন কিনা এবং এ অবৈধ ব্যবসায় অন্য কারও যোগসূত্র আছে কিনা তা বের করতে পাপিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে র‌্যাব।

২৩ ফেব্রুয়ারি শনিবার আটক হন পাপিয়া। এর পর র‌্যাবের অনুসন্ধানে কিছু তথ্য বেরিয়ে এলেও তার ক্ষমতার উৎস, রাজনৈতিক আশ্রয়, দলীয় পদ পাওয়ার নেপথ্য তথ্য অজানা রয়ে গেছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী এই বাহিনীর ধারণা, গুলশানকেন্দ্রিক অনলাইন ক্যাসিনোকাণ্ডে জড়িত থাকতে পারে পাপিয়া দম্পত্তি। সেখান থেকে অধিকাংশ টাকা অবৈধ উপায়ে আয় করে থাকতে পারে।

র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক (সিও) লেফটেন্যান্ট কর্নেল শাফী উল্লাহ বুলবুল বলেন, ‘পাপিয়ার অপরাধ সম্পর্কে জানতে সব জায়গায় খোঁজ নেয়া হচ্ছে। ক্যাসিনোকাণ্ডে তার সম্পৃক্ততা থাকতে পারে। সে বিষয়েও আমরা খোঁজখবর নিতে শুরু করেছি। যেহেতু সে টাকার উৎস সম্পর্কে কোন কিছু বলছে না, সেজন্য আমরা এর মূল রহস্য বের করতে কাজ করে যাচ্ছি। শুধু ক্যাসিনো নয় আরও কোথা থেকে সম্পদ অর্জন করেছে সেদিকেও আমরা নজর দেব।’ তিনি আরও বলেন, ‘দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এরকম একজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলার আগে অন্তত তিন মাস সময় নিয়ে থাকে। আর পাপিয়ার ক্ষেত্রে আমরা মাত্র সময় পেয়েছি ১২ ঘণ্টার মতো। আমরা মাঠে নেমেছি। রিমান্ডে আসলে এর রহস্য বের করতে পারব।’

র‌্যাবের একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘পাপিয়া ও তার স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরী অনলাইন ক্যাসিনোর গডফাদার সেলিম প্রধানের গুলশানের বাসায় ক্যাসিনো খেলতেন। সেলিম প্রধান ধরা পড়ে কারাগারে গেলেও অনেকেই কৌশলে ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে যায়। এদের মধ্যে পাপিয়া ও সুমন চৌধুরী অন্যতম।’ সুমনের পিএস সাব্বির আহমেদ ও পাপিয়ার পিএস শেখ তায়্যিবা র‌্যাবকে জানিয়েছে, ক্যাসিনোর টাকা দিয়েই ফার্মগেটের ইন্দিরা রোডের একটি বাসায় ২০১৮ সালে একটি ও ২০১৯ সালে আরেকটি ফ্ল্যাট কেনেন পাপিয়া দম্পতি। ফার্মগেট, ২৮ ইন্দিরা রোডের একেকটি ফ্ল্যাটের দাম প্রায় দেড় কোটি টাকা। আর একেকটি ফ্ল্যাটে ডেকোরেশন করেছেন অন্তত দুই থেকে আড়াই কোটি টাকা দিয়ে। ফ্ল্যাটে রয়েছে দামি খাট-পালঙ্ক, ইলেক্ট্রনিক্স যন্ত্রপাতি ও আসবাবপত্র। র‌্যাবের আরেক কর্মকর্তা বলেন, ‘বড় ধরনের অভিযান চলার কারণে ক্যাসিনো থেকে পাওয়া টাকা পাপিয়া সরাতে পারেনি। ব্যাংকের টাকাগুলোও বিভিন্ন সময়ে উঠিয়ে নিয়েছেন। অনেক টাকা দেশের বাইরে পাঠিয়েছেন। বাকি টাকা দেশে রেখে হুন্ডি চালিয়ে আসছিলেন এমন তথ্যও পেয়েছে র‌্যাব। তবে তাদের সব অ্যাকাউন্ট তল্লাশি ও দেশের বাইরে পাঠানো টাকার সন্ধান করতে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে সহায়তা চাইব আমরা।’

র‌্যাব জানিয়েছে, পাপিয়া দম্পতি চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা করে টাকা আদায় করত বেকারদের কাছ থেকে। এছাড়া সিএনজি পাম্প স্টেশনের অনুমতি পাইয়ে দেয়া, কারখানায় গ্যাস লাইনের সংযোগ দেয়ার নামে টাকা হাতিয়ে নেয়াসহ বিভিন্ন উপায়ে অবৈধভাবে টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন তারা। র‌্যাব আরও জানায়, স্কুল-কলেজের সুন্দরী মেয়েদের ধরে এনে তাদের অশ্লীল ভিডিও করে তা বিভিন্ন ক্লায়েন্টের কাছে পাঠিয়ে দিত পাপিয়া। পছন্দ হলে তাদের ঠিকানায় পৌঁছে দেয়ার কাজটি করত সুমন চৌধুরী ও সাব্বির আহমেদ। আবার কেউ পাঁচ তারকা হোটেলে আসতে চাইলেও কোন বাধা থাকত না। এমন অনেক ক্লায়েন্ট আছে, হোটেলে যাদের অন্তরঙ্গ ভিডিও ধারণ করে ব্লাকমেইল করে মোটা অঙ্কের টাকা আদায় করত। এছাড়া চাঁদাবাজি, মাসোহারা আদায়, অস্ত্র ও মাদক ব্যবসার মাধ্যমেও টাকা উপার্জন করেছে পাপিয়া দম্পত্তি।

র‌্যাবের একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘বিমানবন্দরে যখন পাপিয়া, তার স্বামী সুমন চৌধুরী, সহকারী সাব্বির আহমেদ ও শেখ তায়্যিবাকে আটক করা হচ্ছিল তখন তারা যেভাবে ভয়ভীতি দেখানো শুরু করেছিল, তাতে র‌্যাব সদস্যরা হতভম্ব হয়ে যায়। তাদের প্রথমে বহির্গমন পথ আটকানো হয়। এ সময় পাপিয়া বেশকয়েকজন মন্ত্রীকে ফোন করার জন্য মোবাইল বের করেন। তবে তার সেই চেষ্টা ব্যর্থ হয়। কারণ কেউ তার ফোন ধরেননি। এমনকি কয়েকজন প্রভাবশালী সংসদ সদস্যকেও ফোন করেন পাপিয়া। তাতেও কাজ হয়নি।’ আদৌ ওইসব ব্যক্তি তার ফোন ধরেন কি-না তা নিয়ে সন্দেহ ছিল। ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘আটকের পর প্রথম দিন পাপিয়াসহ অন্যরা কোন তথ্যই দিচ্ছিল না। আবার নারী হওয়ায় কোন উপায়ও পাওয়া যাচ্ছিল না। তবে সময় নিয়ে কৌশল অবলম্বন করে তাদের আলাদা করে পাপিয়ার কাছ থেকে কিছু তথ্য বের করা হয়। পাপিয়া সব সময়ই আমাদের ভয়ভীতি দেখিয়েছেন। র‌্যাব সদস্যরা কোনভাবেই তার কথায় বিচলিত হয়নি। তার এত ক্ষমতার উৎস কোথায় র‌্যাবকে সেটাও বলেননি পাপিয়া।’

র‌্যাব সূত্র জানায়, পাপিয়া-সুমন দম্পত্তির অপকর্মের সঙ্গে আর কারা জড়িত সে বিষয়েও খোঁজ নেয়া হচ্ছে। যতবড় ক্ষমতাশালীই হোক না কেন, কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। তবে পাপিয়ার অপকর্মের সঙ্গে এখন পর্যন্ত কোন সংসদ সদস্য বা মন্ত্রীর সংশ্লিষ্টতা পায়নি র‌্যাব। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়া বিভিন্ন ছবির বিষয়ে জানতে চাইলে র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘ছবি যে কেউ তুলতে পারে। সেই ছবি যদি কেউ ব্যবহার করে টাকা উপার্জন করে তবে তা হবে প্রতারণা। আর সেই প্রতারণার দায় তাকেই নিতে হয়। পাপিয়ার বেলাতেও তাই হবে। অপরাধের সঙ্গে ছবির ব্যক্তি কখনও জড়িত হয় না। র‌্যাব এমন কোন তথ্য খুঁজে পায়নি। আর যারা না বুঝে ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়াচ্ছেন, তাদের বিরুদ্ধে সংক্ষুব্ধ যে কেউ আইনের আশ্রয় নিতে পারেন।

৩ মামলা : ১৫ দিনের রিমান্ড:

নরসিংদি যুব মহিলা লীগের সাবেক নেত্রী মাফিয়া রানী শামিমা নুর পাপিয়ার বিরুদ্ধে ২ থানায় ৩টি মামলা করেছে র‌্যাব। শেরেবাংলা নগর থানা ও বিমানবন্দর থানায় অস্ত্র ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে করা মামলায় বিমানবন্দর থানা পুলিশ পাপিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১৫ দিনের রিমান্ড হেফাজতে পেয়েছে। এর আগে রোববার সন্ধ্যায় র‌্যাব শামিমা নূর পাপিয়াকে বিমানবন্দর থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে। ওই থানায় র‌্যাবের পক্ষ থেকে পাপিয়ার বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করা হয়। এছাড়া অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় শেরেবাংলা থানায় অস্ত্র আইনেসহ আরও দুটি মামলা হয় পাপিয়ার বিরুদ্ধে।

র‌্যাবের মিডিয়া শাখার সহকারী পুলিশ সুপার সুজয় সরকার জানান, বিভিন্ন অভিযোগে র‌্যাবের হাতে আটক হওয়া পাপিয়ার বিরুদ্ধে রোববার রাতে ৩টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। র‌্যাবের পক্ষ থেকে শেরেবাংলা নগর থানায় অস্ত্র আইন ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে ২টি এবং বিমানবন্দর থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে আরও ১টি মামলাসহ মোট ৩টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ওইসব মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে পাপিয়াকে রোববার সন্ধ্যায় বিমানবন্দর থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। পাপিয়ার বিরুদ্ধে যেসব মামলা হয়েছে মামলাগুলো পুলিশ তদন্ত করবে।

র‌্যাবের মিডিয়া ইউংয়ের পরিচালক লে. কর্নেল সারওয়ার বিন কাশেম জানান, পাপিয়ার বিরুদ্ধে মামলাগুলো তদন্ত করবে র‌্যাব। তার উত্থান, কাদের সেল্টারে পাপিয়া অসামাজিক কর্মকা- চালাতেন, কাদের সঙ্গে তার সখ্যতা ছিল এসব বিষয় তদন্ত করা হবে। পাপিয়া ছাড়াও আরও অনেক রাঘব-বোয়াল রয়েছে যাদের বিষয়ে র‌্যাবের তদন্ত চলমান রয়েছেন। র‌্যাব অপরাধীদের বিরুদ্ধে যে অভিযান শুরু করেছে তারই অংশ পাপিয়াকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আরও যারা বিভিন্ন পরিচয়ে অপরাধ করে বেড়াচ্ছে তাদেরও গ্রেফতারের বিষয়ে কাজ করছে র‌্যাব।

উল্লেখ্য, গত ২২ ফেব্রুয়ারি পাপিয়া ও তা স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরী, সাব্বির আহমেদ ও শেখ তায়্যিবাকে অর্থপাচার ও জাল মুদ্রা রাখার অভিযোগে আটক করে র‌্যাব। পরে তাদের দেয়া তথ্য অনুযায়ী বাসায় ও হোটেলে অভিযান চালিয়ে বিদেশি মদ, পিস্তল, গুলি ও প্রায় ৬০ লাখ টাকা উদ্ধার করে। এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে বিমানবন্দর ও শেরেবাংলা নগর থানায় আলাদা তিনটি মামলা হয়। বিমানবন্দর থানার মামলায় পাপিয়াসহ চারজনকে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠালে ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে। ২০০৬ সালে নরসিংদী কলেজে ইন্টারমেডিয়েট প্রথম বর্ষে পড়ার সময় মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরীর সঙ্গে পাপিয়ার পরিচয় হয়। এরপর সেই সম্পর্ক প্রেমে রূপ নেয়। এর তিন বছর পর ২০০৯ সালে তারা বিয়ে করেন। ২০১০ সালে বিবাহিত অবস্থায় নরসিংদী পৌর ছাত্রলীগের পদ পান। এরপর শুধুই এগিয়ে যাওয়া তাদের। গড়ে তোলেন নিজস্ব ক্যাডারবাহিনী ‘কিউ অ্যান্ড সি’। এই ক্যাডারবাহিনীর প্রত্যেক সদস্যের হাতে ও পিঠে ট্যাটু আঁকা আছে। বিয়ের সময় তেমন কিছু না থাকলেও গত ১০ বছরের ব্যবধানে গড়েছেন অঢেল সম্পদ। যার বেশিরভাগই ২০১৮ ও ২০১৯ সালে অবৈধভাবে অর্জন করেছেন।

আরো সংবাদ