পেকুয়ায় কাঁটাতার দিয়ে আটকিয়ে দিল সেতু - কক্সবাজার কন্ঠ

মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই ২০২০ ৩০ আষাঢ়, ১৪২৭

সোমবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৪-২১ ১৫:০২:০৩

পেকুয়ায় কাঁটাতার দিয়ে আটকিয়ে দিল সেতু

পেকুয়া প্রতিনিধি :  কক্সবাজারের পেকুয়ায় কাঁটাতার দিয়ে আটকিয়ে দিয়েছে নদীর উপর নির্মিত সেতু। নোভেল করোনা ভাইরাস এড়াতে স্থানীয় প্রশাসন পারাপার সেতুতে কাঁটাতারের বেড়া দেয়। এতে করে প্রায় ৫০ হাজার মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়েছে। দু’উপজেলার সীমান্তবর্তী স্থানে এ সেতুর অবস্থান। সেতুর দু’পয়েন্টে দুটি পৃথক জেলার ভৌগলিক অবস্থান। কিন্তু যোগাযোগ ও পারস্পরিক লেনদেন উভয় জেলার মধ্যে একীভূত। সীমান্তবর্তী স্থানে প্রধান বাণিজ্যিক কেন্দ্র হওয়ায় পৃথক জেলার বাসিন্দারা এক জায়গায় কেনাকাটায় ব্যস্ত।
এ দিকে যোগাযোগের প্রধান মাধ্যম সীমান্তবর্তী স্থানে নদীর উপর নির্মিত সেতু কাঁটাতারের বেড়া দিয়ে আটকিয়ে দেয়া হয়েছে। এতে করে সীমান্তবর্তী উপজেলার প্রায় ৩ টি ইউনিয়নসহ কক্সবাজার জেলার ১ টি ইউনিয়নসহ ৪ টি ইউনিয়নের প্রায় অর্ধলক্ষাধিক জনগন অবরুদ্ধ হয়েছে। উপজেলার রাজাখালী ইউনিয়নের আরবশাহ বাজারে ব্রীজ আটকিয়ে দেয়ার এ কান্ড হয়েছে। গত ১ সপ্তাহ ধরে ব্রীজটি আটকিয়ে দেয়ায় সীমান্তবর্তী আরবশাহ বাজার ও পার্শ্ববর্তী উপজেলা বাঁশখালী উপজেলার দক্ষিন পূর্ব ও পশ্চিম অংশের তিনটি ইউনিয়নের যোগাযোগ ব্যবস্থা থেমে গেছে।
এতে করে এ সব অঞ্চলের ৫০ হাজার মানুষ দৈনন্দিন ভোগ্যপণ্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আরবশাহ বাজার দুটি উপজেলার সীমান্তবর্তী স্থানে স্থিত। সুত্র জানায়, গত ১৬ এপ্রিল আরবশাহ বাজারের ব্রীজে কাঁটাতারের বেড়া স্থাপন করা হয়। পেকুয়া উপজেলা প্রশাসন ওই দিন সেখানে উপস্থিত থেকে ব্রীজের উপর কাঁটাতারের ঘেরা দেয়। স্থানীয়রা জানান, অনেক বছর আগে বাজারটি প্রবর্তন হয়। সে সময় থেকে আরবশাহ বাজারে হাট বসে। বাজারটির অবস্থান কক্সবাজার জেলার সীমারেখায় হলেও মূলত ক্রেতা ও বিক্রেতারা চট্রগ্রাম জেলার বাঁশাখালী উপজেলা থেকে আগত। নদীর ওপারে বাঁশখালী আর এপারে কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলা। রাজাখালীর আংশিক মানুষ এ বাজারের সাথে জড়িত। তবে কেনাকাটার ৯০ ভাগ মানুষের যোগান হচ্ছে বাঁশখালী থেকে।
সম্প্রতি ব্রীজটি আটকিয়ে দেয়ায় সীমান্তবর্তী বাঁশখালী উপজেলার পুঁইছড়ি, শেখেরখিল ও ছনুয়া ইউনিয়নের লোকজন বাজার থেকে কেনাকাটা করা বন্ধ হয়ে গেছে। এ ছাড়া কক্সবাজার জেলার টইটং ইউনিয়নের উত্তর ও পশ্চিম টইটংয়ের বিপুল মানুষসহ ৫০ হাজার জনগন চরম দুর্ভোগে পড়েছে। পুইছড়ি হায়দারঘোনার নেছার উদ্দিন জানান, ছিটমহলের মত অবস্থায় পড়েছি। করোনার কারনে সামাজিক দূরত্ব আমরা বজায় রাখছি। কিন্তু যোগাযোগ ব্যবস্থা থেমে যাবে কেন। ৫ দিন ধরে বাজার নেই বাড়িতে। এটি চরম অবিচার ও হয়রানি। টইটংয়ের আবদু রাজ্জাক জানান, আরবশাহ বাজার থেকে কেনাকাটা করে আমরা বেঁচে থাকি। সারা দেশে নির্দিষ্ট একটা সময়ের জন্য কেনাকাটা করার সুযোগ রয়েছে। কিন্তু ব্রীজ আটকিয়ে দেয়া খুবই অন্যায় কাজ। সরকারের বিরুদ্ধে জনগনকে ফুঁসে তোলতে একটি মহল চক্রান্ত করছে। আমি মনে করছি এরই প্রতিফলন হচ্ছে ব্রীজ আটকিয়ে দেয়া।
পুঁইছড়ির ইউপি সদস্য কামাল হোসেন ও আ’লীগ নেতা কুতুব উদ্দিনসহ শত শত লোকজন জানান, আমরা চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। বাজার থেকে খাদ্য না আনলে বাড়িতে বউ বাচ্চাদের কি খাওয়াবো। ব্রীজে আটকিয়ে থাকা আনার কলি, আমেনা বেগম, ব্যবসায়ী রিয়াজ উদ্দিন, ডাক্তার মোহাম্মদ আলী, ডাক্তার ইদ্রিস, ডাক্তার আনোয়ার, মুদির ব্যবসায়ী নবী হোছাইন, কবির আহমদ, মোজাম্মেল, মোতালেব, চাল ব্যবসায়ী এনাম, মান্নান, বজল আহমদ, আবদুল কাদের, মীর আহমদ, ভূট্টো, রমিজ উদ্দিন জানান, রাজাখালীতে আরবশাহ বাজার হলেও এখানকার ৯০ ভাগ ক্রেতা ও ব্যবসায়ী বাঁশখালীর। ব্রীজ ও নদী পারাপার কাঁটাতার ও কাঁটা দিয়ে বাঁশের সাঁকু আটকিয়ে দিয়েছে। প্রায় ৩ মাইল দূরবর্তী স্থান দিয়ে বাজারে আসতে হচ্ছে। রাজাখালী কিছু মানুষের সাথে বাজারটি নিয়ে অনেক আগে থেকে দ্বন্ধ রয়েছে। মূলত পূর্বের দ্বন্ধকে পুঁজি করতে এক শ্রেনীর কিছু লোকজন প্রশাসনকে ভূল তথ্য দিয়ে এ কাজটি করিয়ে নিয়েছে। মালামাল ও বাজার পার করিয়ে দিচ্ছে কয়েকজন যুবক। তারা প্রতি জন থেকে বাজার পারাপার করিয়ে দিতে হাতিয়ে নিচ্ছে অতিরিক্ত টাকা।
রাজাখালী পুলিশ ফাঁডির আইসি শিহাবুল্লাহ জানান, পেকুয়া থানার ওসি স্যারের নির্দেশে ব্রীজে এপারে আমরা পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা টহল ও অবস্থান জোরদার করছি। রাত ১০ টা পর্যন্ত আমরা থাকি। এরপর থানা পুলিশ এখানে অবস্থান নেন। পুঁইছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সোলতানুল গণি চৌধুরী জানান, আসলে যোগাযোগ বন্ধ করা খুবই অন্যায় কাজ। প্রয়োজনে চেক করা যাবে। যেহেতু মহামারী বিরাজ করছে। জনগনকে সতর্ক ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য তাগিত থাকবে। কিন্তু ব্রীজ ও সড়ক আটকিয়ে দেয়া যুক্তিসঙ্গত নয়। আমি জনগনের দুর্ভোগ লাঘব করতে দ্রুত ওই সমস্যার সমাধান চাই।
পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাঈকা শাহাদাত এর মুঠোফোনে অনেকবার যোগাযোগ করা হয়। ফোন রিসিভ করেননি। বক্তব্য নেয়া যায়নি।
পেকুয়া থানার ওসি কামরুল আজম জানান, করোনা ছড়াবে না এ নিশ্চয়তা কে দেবে। এটি আমার একক বিষয় নয়। উচ্চ পর্যায়ে কথা বলতে বলেন। ডিসি, এসপি, ইউএনও স্যারের সাথে যোগাযোগ করুন।

আরো সংবাদ