পেকুয়া উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে জমি দখল করে স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগ - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১ ২রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০১-১১ ২০:৪১:০২

পেকুয়া উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে জমি দখল করে স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগ

পেকুয়া উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে জমি দখল করে স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগ

বার্তা পরিবেশক: পেকুয়া উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম ও তার ভাই আজমগীরের বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে। বিরোধীয় ৪০ শতক জমিতে বর্তমানে স্থাপনা নির্মান করা হচ্ছে। উক্ত জমি উদ্ধারে পেকুয়া সদর ইউনিয়নের মৃত বশরত আলীর পুত্র হাফেজ নজরুল ইসলাম প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

এ বিষয়ে পেকুয়া থানা ও কক্সবাজার যুগ্ন জেলা জজ ২য় আদালতে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন হাফেজ নজরুল ইসলাম। উক্ত জমির বিষয়ে কক্সবাজার সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতে ক্রিমিনাল ল এম্যান্ডমেন্ট এর ৪ ধারা অনুযায়ী নালিশী দরখাস্ত, কক্সবাজার যুগ্ন জেলা জজ ২য় আদালতে মামলা ও অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আবেদন করে হাফেজ নজরুল ইসলাম।

আদালতে দায়ের করা এজাহার ও প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে দেয়া অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, পেকুয়া সদর ইউনিয়নের শেখেরকিল্লা ঘোনার মৃত বশরত আলীর পুত্র হাফেজ নজরুল ইসলামকে ২০১৮ সালের ১৫ জুলাই অপহরণ করে। পেকুয়া সদর ইউনিয়নের আন্নর আলী মাতাব্বর পাড়ার রমিজ আহাম্মদের পুত্র বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম ও আজমগীরের নেতৃত্বে অপহরণকারীরা হাফেজ নজরুল ইসলামের উপর অমানুষিক নির্যাতন চালায়। তাকে জিম্মি করে ৪০ শতক জমি রেজিস্ট্রি করে নেন। যোগসাজসে সাবরেজিস্ট্রারকে আজমগীরের বাসায় এনে উক্ত জমি রেজিস্ট্রি করেন। এসময় মুক্তিপণ হিসাবে নগদ ও চেকের মাধ্যমে সাড়ে ৬ লাখ টাকা আদায় করেন। অপহরণকারীদের হাত থেকে তিনদিন পর ছাড়া পেয়ে চিকিৎসা শেষে কক্সবাজার সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতে ও এডিএম কোর্টে মামলা দায়ের করেন। দলিল বাতিল ও জমির উপর নিষেধাজ্ঞা চেয়ে আবেদন করেন নির্যাতিত হাফেজ নজরুল ইসলাম। এসবের পরেও গত বৃহস্পতিবার উক্ত ৪০ শতক জমি দখল করে স্থাপনা নির্মান করছে উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম ও তার ভাই আজমগীর।

হাফেজ নজরুল ইসলাম জানান, উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম ও তার ভাই আজমগীরের নেতৃত্বে তাকে অপহরণপুর্বক জিম্মি করে জমি রেজিস্ট্রি নেয়া ও সাড়ে ৬ লাখ টাকা মুক্তিপন নেয়ার পরেও নানাভাবে নির্যাতন অব্যাহত রেখেছে। প্রতিনিয়ত হত্যা সহ নানাভাবে হুমকি ধমকি দিয়ে যাচ্ছে জবরদখলকারীরা। অস্ত্রধারী বাহিনীর পাশাপাশি উপজেলা চেয়ারম্যানের ক্ষমতা ব্যবহার করে জবরদখল সহ নানা অপকর্ম অব্যাহত রেখেছে। জাহাঙ্গীর আলম ও তার ভাই আজমগীর অস্ত্র সহ গ্রেফতারও হয়েছিল। এমতাবস্থায় তার জমি উদ্ধার ও পরিবার সহ জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এ কোরআনে হাফেজ। সূত্র দেশবিদেশ

আরো সংবাদ