প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত মা মেয়ের দাফন সম্পন্ন - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০২১-০১-২০ ১৩:৫১:৫৬

প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত মা মেয়ের দাফন সম্পন্ন

প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত মা মেয়ের দাফন সম্পন্ন

জসিম সিদ্দিকী : কক্সবাজার সদর উপজেলার ঈদগাঁও থানার ইসলামাদে জমির বিরোধ নিয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত মা মেয়ের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। বুধবার (২০ জানুয়ারি) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ইসলামাবাদের চরপাড়ায় স্থানীয় কবরস্থানে তাদের জানাজা ও দাফন সম্পন্ন হয়। তবে এখনও খুনিদের বিরুদ্ধে এজাহার দায়ের করেনি ভুক্তভোগি পরিবার। যার কারনে থানায় মামলা দায়ের করা সম্ভব হয়নি। পাশাপাশি এ পর্যন্ত সংঘঠিত ঘটনায় কাউকে আটক করা হয়নি। বিষয়টি কক্সবাজার কন্ঠকে নিশ্চিত করেছেন ঈদগাঁও থানার ওসি আব্দুল হালিম। তিনি জানান, ভূক্তভোগিদের সাথে কথা হয়েছে তারা আজ রাতে যে কোনো সময় এজাহার দায়ের করবে বলে জানিয়েছে। এদিকে এ ঘটনায় এলাকায় ক্ষোভ ও শোক বিরাজ করছে।

থানা সূত্রে জানাগেছে, মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) সকালে চলাচলের রাস্তা ঘেরা দিয়ে বন্ধ করা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে বিরোধ হয়। এ ঘটনার জের ধরে রাত ৮ টার দিকে আবারও ইসলামাবাদের চরপাড়ায় ২ পক্ষের মাঝে ঘটনা ঘটে। এতে ঘটনাস্থলে নিহত হয় কক্সবাজার সদরের ইসলামাবাদের চরপাড়ার আজিজুল হক বাবুচির স্ত্রী রাশেদা বেগম (৩১) এবং তার মেয়ে ঈদগাঁও জাহানারা বেগম উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস (১৩) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু বরণ করে।

ওসি আব্দুল হালিম জানান, জমির বিরোধ নিয়ে কক্সবাজার সদরের ইসলামাবাদ চরপাড়ার জাফর আলমের ছেলে আবুল কালামের সঙ্গে স্থানীয় আজিজুল হকের পরিবারের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে মঙ্গলবার সকালে দু’পরিবারের লোকজনের মধ্যে তর্কাতর্কির ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনার জের ধরে রাতে আবুল কালামের পরিবারের লোকজন আজিজুল হকের পরিবারের লোকজনের উপর হামলা চালায়। এতে ঘটনাস্থলে প্রতিপক্ষের লোকজনের হামলায় রাশেদা বেগম নিহত হয়। পরে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয়রা জান্নাতুল ফেরদৌসকে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। এতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়েছে। ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, জমির বিরোধ নিয়ে একই এলাকার জাফর আলমের ছেলে আবুল কালাম (৩৫) এর সাথে তাদের ঝগড়া হয়। এতে প্রতিপক্ষের কুপাঘাতে ঘটনাস্থলে রাশেদা বেগমের মৃত্যু হয়। মেয়ে জন্নাতুল ফেরদৌসকে উদ্ধার করে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নেয়ার পর ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ কিরিচ উদ্ধার করেছে। তবে এখনও পর্যন্ত কোনো অভিযুক্ত আসামী আটক হয়নি।

আরো সংবাদ