ফারাক্কার গেট খুলে দেয়ায় দেশে বন‌্যার আশঙ্কা - Coxsbazarkontho.com | Newspaper

বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯ ১লা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বুধবার

প্রকাশ :  ২০১৯-১০-০২ ২৩:৪৬:৪৬

ফারাক্কার গেট খুলে দেয়ায় দেশে বন‌্যার আশঙ্কা

টানা বৃষ্টির ফলে ভারতের উত্তর প্রদেশ ও বিহারে ভয়াবহ বন্যা দেখা দিয়েছে। শুধু বিহারে বন‌্যায় এখন পর্যন্ত ২৯ জনের মৃত‌্যুর খবর পাওয়া গেছে।  নিজেদের বন‌্যা পরিস্থিতি সামাল দিতে সোমবার (৩০ সেপ্টেম্বর) ফারাক্কার ১০৯টি লকগেট খুলে দিয়েছে ব্যারেজ কর্তৃপক্ষ। এতে বাংলাদেশের নদ-নদীতে পানি বেড়ে গিয়ে অসময়ে বন‌্যার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

ভারতের গণমাধ‌্যম জি নিউজে সংবাদ প্রকাশ হয়েছে- গত কয়েক দিনের টানা বৃষ্টিপাতে বিহারের রাজধানী পাটনাসহ বিস্তীর্ণ এলাকায় বন্যার সৃষ্টি হয়েছে। বন‌্যায় ইতোমধ‌্যে বিহার উত্তরপ্রদেশ, উত্তরাখণ্ড, মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান ও গুজরাট মিলিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা ১৩৪ ছুঁয়েছে।

ভারতের উত্তর প্রদেশ ও বিহার রাজ্যে প্রবল বর্ষণের ফলে গঙ্গা নদীতে পানি প্রবাহ বেড়ে গেছে। এমন পরিস্থিতিতে ফারাক্কা বাঁধের সবক’টি লকগেট একসঙ্গে খুলে দেয়া হয়েছে। এর ফলে বাংলাদেশ ও লাগোয়া পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মুর্শিদাবাদ জেলায় বন্যার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

এর আগে ২০০১ সালে ভারতের ২৪ পরগনার বন‌্যা পরিস্থিতি সামাল দিতে সীমান্ত সংলগ্ন সমস্ত স্লুইস গেইট খুলে দেয়া হয়। তাতে বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিমের জেলাগুলোতে অসসময়ে বন‌্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। সে সময় ঝিনাইদহ, যশোর ও সাতক্ষীরার ব‌্যাপক অঞ্চল প্লাবিত হয়। মানুষের প্রাণহানিসহ গবাদিপশু ও ব‌্যাপকহারে ফসলের ক্ষয়ক্ষতি হয় তাতে। এবারও তেমনই আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

গত কয়েক দিনের টানা তীব্র বর্ষণে ভারতে গঙ্গা ছাড়াও মালদহ জেলার ফুলহর, মহানন্দা ও কালিন্দী নদীতে পানি বেড়েছে। গঙ্গা ও ফুলহর নদী চরম বিপৎসীমার ওপর দিয়ে বইছে। একাধিক জায়গার বাঁধ ভেঙে দেশটির বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

রোববার (২৯ সেপ্টেম্বর) বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার সংবাদ সম্মেলন করে বলেন, ‘মনে হচ্ছে আবহাওয়া বিভাগও খেই হারিয়ে ফেলেছে। একেক সময় একেক পূর্বাভাস দিচ্ছে।’

বন‌্যার আশঙ্কায় উদ্বেগ প্রকাশ করছ্নে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘বাংলা অনেকটা নৌকার মতো। নেপালে বেশি বৃষ্টি, ভুটানে বেশি বৃষ্টি, ঝাড়খণ্ডে বেশি বৃষ্টি হলে, সব জল এখানে চলে আসে। আমাদের এখানে বন‌্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়।’

তবে ফারাক্কা খুলে দেয়ায় যে বাংলাদেশে বন‌্যা হতে পারে তা নিয়ে ভারতের নেতৃস্থানীয় কেউ কোনো কথা বলেননি।

ভারতীয় গণমাধ‌্যম ‘বর্তমান’তাদের এক রিপোর্টে জানিয়েছে, দিল্লির আবহাওয়া অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ১৯৯৪ সালের পর দেশে এবার সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে। সোমবারই (৩০ সেপ্টেম্বর) সরকারিভাবে দেশ থেকে বর্ষা বিদায় নিলেও, বিভিন্ন প্রান্তে এখনও বর্ষা সক্রিয় রয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, জুন মাসে বর্ষার ৩৩ শতাংশ ঘাটতি থাকলেও, জুলাই থেকেই গতি পায় বর্ষা। জুলাইয়ে ৩৩ শতাংশ ও আগস্টে ১৫ শতাংশ বেশি বৃষ্টি হয়। সেপ্টেম্বরে এবার যা বৃষ্টি হয়েছে, গত ১০০ বছরে তেমন দেখা যায়নি। তাহলে এতো পানি কোথায় যাবে?

এদিকে ভারতীয় পানি ঢুকে পড়ায় পদ্মা নদীতে পানি বিপৎসীমার উপর দিয়ে বইতে শুরু করেছে। রাজশাহীতে পদ্মায় প্রচণ্ড স্রোত দেখা দিয়েছে। মঙ্গলবার (১ অক্টোবর) দুপুরে বিপৎসীমা থেকে মাত্র ৪৩ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে পদ্মার পানি প্রবাহিত হচ্ছিল। বন‌্যার আশঙ্কায় রাজশাহীর চরাঞ্চলের বাসিন্দাদের সরিয়ে নেয়ার কাজ শুরু হয়েছে।

রাজশাহী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ সাহিদুল আলম জানান, ইতোমধ্যে গোদাগাড়ীর ৭৬টি ও চারঘাটের ২৬টি পরিবারকে পদ্মার চর থেকে শহরে আনা হয়েছে। আরো যেসব পরিবার ঝুঁকিতে রয়েছে তাদেরও আনা হবে।

তিনি বলেন, ‘পদ্মার পানি বাড়লে রাজশাহীর চরাঞ্চলেই বেশি বন্যাকবলিত হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে।’

রাজশাহী পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) জানিয়েছে, মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় পদ্মার পানির উচ্চতা ছিল ১৮ দশমিক ০৭ মিটার। এর আগে ভোর ৬টায় ছিল ১৮ দশমিক ৪ মিটার। রাজশাহীতে পদ্মার পানির বিপৎসীমা ১৮ দশমিক ৫০ মিটার। আর সোমবার ভোর ৬টায় পানির উচ্চতা ছিল ১৭ দশমিক ৯০ মিটার। ২৭ ঘণ্টায় বেড়েছে ১৫ সেন্টিমিটার। প্রতিনিয়ত আরো বাড়ছে।

মঙ্গলবার সকাল দশটায় পাকশী হার্ডিঞ্জ ব্রিজ এলাকায় পানি বিপৎসীমা ১৪ দশমিক ২৫ সেন্টিমিটার অতিক্রম করে। এই মাত্রা বিপৎসীমার ৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

পানি বাড়ার কারণে পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের বেশকিছু গ্রামের মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। শীতকালীন সবজিসহ বিভিন্ন ফসল ডুবে গেছে। গবাদি পশু নিয়েও বিপাকে পড়েছেন স্থানীয়রা। অনেকে বাড়ি ছেড়ে উঁচু এলাকায় স্বজনের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন।

পদ্মার শাখা গড়াই নদীতেও পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে এখনো গড়াই নদীর পানি বিপৎসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গড়াই নদীর পানি প্রবাহের বিপৎসীমা ১২ দশমিক ৭৫ সেন্টিমিটার। মঙ্গলবার বেলা ১২টায় পানি প্রবাহের মাত্রা ছিলো ১২ দশমিক ৩৭ সেন্টিমিটার।

তবে পানি বৃদ্ধির ফলে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার রামকৃষ্ণপুর, চিলমারির পর ফিলিপনগর ও মরিচা ইউনিয়নের কিছু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। পাশাপাশি কুমারখালী উপজেলার শিলাইদহ ইউনিয়নের কোমরকান্দি গ্রামে ভাঙন দেখা দিয়েছে।

গড়াই নদীতে পানি বৃদ্ধির কারণে জিকে ঘাট ছাড়াও বড় বাজার এলাকার বেড়িবাঁধের পাশে বেশ কিছু ঘরবাড়িতে পানি ঢুকে পড়েছে। অনেকে বাড়িঘর ছেড়ে উঁচু স্থানে আশ্রয় নিয়েছেন।

কুষ্টিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী পীযুষ কৃষ্ণ কুণ্ডু জানান, পানি এই মুহূর্তে বিপৎসীমার দুই সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। প্রতি ঘণ্টায় কখনো ১ সেন্টিমিটার আবার কখনো ২/৩ সেন্টিমিটার করে পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। আমরা প্রতিনিয়ত মনিটরিং করছি। তবে এ অবস্থা চলতে থাকলে বন‌্যার আশঙ্কা রয়েছে।

এদিকে মঙ্গলবার রাতে নাটোরের লালপুর থানার বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে পদ্মার পানি ঢুকে পড়েছে। প্লাবিত হওয়া ইউনিয়নগুলো হলো- লালপুরের ঈশ্বরদী, বিলমাড়ীয়া ও লালপুর সদর ইউনিয়নের একাংশ। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে শিগগিরই পদ্মাতীর সংলগ্ন আরো কয়েকটি ইউনিয়ন প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

পদ্মায় পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকার পাশাপাশি গত তিন দিনের টানা বৃষ্টিতে লালপুরের নওশেরা, সুলতানপুর, দিয়ার, শঙ্করপুর, চাকলা বিনোদপুর, আরাজি বাকন রসুলপুর, বাকনাই, বন্দোবস্ত গোবিন্দপুর ও লালপুর চরের শীতকালীন আগাম সবজির ২২.২৫ হেক্টর খেত তলিয়ে গেছে।



এসব জমিতে আগাম মূলা, পুঁইশাক, লালশাক, বেগুন, লাউসহ বিভিন্ন সবজি চাষ করা হয়েছিল। বৃষ্টির পানির পাশাপাশি আকস্মিকভাবে পদ্মার পানি বৃদ্ধির কারণে এসব ফসলের ব‌্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এ ছাড়া নর্থ বেঙ্গল চিনিকলের অন্তত ৪০ একর জমির আখ পানিতে তলিয়ে গেছে। পানি বৃদ্ধির কারণে নাটোরের অন্তত ২২.২৫ হেক্টর জমির ফসলহানি হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

নাটোর পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহকারী প্রকৌশলী মোহাম্মদ আল আসাদ জানান, পদ্মার নিকটবর্তী তিনটি পয়েন্টের (রাজশাহী পয়েন্ট, চারঘাট টয়েন্ট ও হার্ডিঞ্জ ব্রিজ) মধ্যে রাজশাহী পয়েন্টকে ভিত্তি ধরে পানির যে বিপৎসীমা পরিমাপ করা হয়, সে অনুযায়ী আগামী ৩ অক্টোবর বিপৎসীমা অতিক্রম করে লালপুর প্লাবিত হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ক‌্যালেন্ডারের পাতায় বর্ষার মৌসুম শেষ হলেও এখনো দেশের বিভিন্ন স্থানে ভারি বর্ষণ অব‌্যাহত রয়েছে। বৃষ্টির পানিতে সৃষ্ট জলাবদ্ধতার পাশাপাশি পদ্মার অসময়ে বৃদ্ধি পাওয়া পানির কারণে স্বাভাবিকভাবেই বন‌্যাতঙ্কে ভুগছেন নিম্নাঞ্চলের মানুষ।তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশের অন‌্যতম দু’টি বড় নদী পদ্মা ও যমুনায় একত্রে পানি বাড়লে তবেই বড় ধরনের বন‌্যা হতে পারে। ফারাক্কার সব গেট খুলে দেয়ায় পানি শুধুমাত্র পদ্মা দিয়েই প্রবাহিত হচ্ছে। যমুনায় পানি প্রবাহের মাত্রা এখন স্বাভাবিক। যমুনায় অতিরিক্ত পানির প্রবাহ না থাকায় বন‌্যার আশঙ্কা নেই। পদ্মার পানি কয়েকদিনের মধ্যেই নেমে যাবে।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
অক্টোবর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১