বদরের প্রেক্ষাপট : হক্ব ও বাতিলের ফয়সালা-২ - কক্সবাজার কন্ঠ । কক্সবাজারের মুখপত্র

শনিবার, ৬ জুন ২০২০ ২৩শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শনিবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৫-০৯ ২২:১৯:৪৪

বদরের প্রেক্ষাপট : হক্ব ও বাতিলের ফয়সালা-২

জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল কক্সবাজার কন্ঠের সৌজন্যে মাহে রমজানের ধারাবাহিক “রমজান কন্ঠ” কলাম থেকে-

ধারাবাহিক পর্ব-১৬

মক্কার বিখ্যাত গোত্রপতি ও কাফির সর্দার উতবা, শায়বা, ওয়ালিদ, খাকনা, উবাইদা, মুনাব্বা, নওফিল প্রমুখ এ বাহিনীর অন্তর্ভূক্ত ছিল। মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কুরাইশ বাহিনীর যাত্রার সংবাদ যথাসময় পেয়ে গেলেন; বিশাল এ বাহিনীর কীভাবে মোকাবেলা করবেন, সে ব্যাপারে একটু চিন্তিত হলেন। মক্কাজীবনে ১৩ বছর কালব্যাপী যুদ্ধের বিধান অবতীর্ণ হয়নি বরং কুরইশদের মদিনা আক্রমণে রওয়ানার পরই এ বিধান অবতীর্ণ হয়।
অধিকাংশ নও মুসলিম আবার এঁদের অনেকে এমনও আছেন, যাঁরা পারিবারিক সূত্রে সম্ভ্রান্ত হওয়ায় যুদ্ধ বিগ্রহে উপনীতি হওয়ার অভিজ্ঞতার পাশাপাশি সাহসীকতার দীক্ষার্জন করার সুযোগ পাননি। এমনকি মুসলমানরাও ইতিপূর্বে কাফেদের সাথে সম্মুখ যুদ্ধে মুখোমুখি হননি। সর্বোপরি ইসলামি রাষ্ট্র হিসেবে মদিনা এখনো শৈশব পার করছে। জনবলের একটি ব্যাপক ঘাটতি রীতিমতই।
তবে, মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এসব পিছুটান পেছনে রেখে ঐশীবাণীতে উদ্বুদ্ধ হয়ে মদিনার শিশু ইসলাম রাষ্ট্রকে রক্ষার জন্য তৎপর হয়ে উঠলেন। মহান আল্লাহ তা‘আলা বলেন-“আর লড়াই কর আল্লাহর ওয়াস্তে তাদের সাথে যারা লড়াই করে তোমাদের সাথে। অবশ্য কারো সাথে বাড়াবাড়ি করো না। নিশ্চয় আল্লাহ সীমালঙ্ঘনকারীদেরকে পছন্দ করেন না।” (সূরা আল্ বাক্বারা- ১৯০)
মহান আল্লাহর ওহী নির্দেশে মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মক্কায় সহায় সম্বল রেখে আসা ৬০ জন মুহাজির এবং তাঁদেরকে মদিনায় সাহায্যকারী ২৫৩ জন আনসারসহ মোট ৩১৩ (তিনশত তেরো) জনের একটি ছোট্ট কাফেলা নিয়ে হিজরতের ঊনিশতম মাস ৮/১২ রমযানের ফরয রোযা রাখা অবস্থায় বদর উপত্যকায় রওয়ানা হন। ইসলামের ইতিহাসে এটিই “বদর যুদ্ধ” নামে পরিচিত। পৃথিবীর ইতিহাসে আনসার-মুহাজিরের যৌথ অংশগ্রহণে মুসলমান এবং কাফেরের সাথে সংঘটিত প্রথম সম্মুখযুদ্ধ এটি।
মক্কার বৃহত্তর কুরাইশ বাহিনীর তুলনায় মুসলমানদের সংখ্যা ছিল এক-তৃতীয়াংশ; কিন্তু যুদ্ধ সরঞ্জামের দিক থেকে মুসলমানরা তাদের একশতাংশও ছিলেন না। কুরাইশ কাফেরদের সবাই ছিলো বর্ম পরিহিত এবং প্রত্যেকে বয়সে ছিলো যুবক। পক্ষান্তরে মুসলমানদের সাধারণ অবস্থা ছিলো তাঁরা রোযাদার, ক্ষুধায় কাতর, দুর্বল, অসুস্থ ও ক্ষীনকায়। সকলের কাছে মামুলী হাতিয়ারও পুরোপুরি ছিলো না।
কারো কাছে হয়ত তলোয়ার আছে, কিন্তু বল্লম বা ধনুক নেই, কারো কাছে বল্লম আছে, কিন্তু তলোয়ার নেই। অপরদিকে কুরাইশ বাহিনীতে ছিলো ৭০০ উষ্ট্রারোহী, ১০০ অশ্বারোহী এবং ২০০ পদাতিক সৈন্য। আর মুসলমানদের ছিলো মাত্র ৭০টি উট এবং ৩টি ঘোড়া। প্রতিটি উট-ঘোড়ায় ছিলেন তিন-তিন জন চার-চার জন আরোহী। মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যে উটটিতে আরোহণ করেছিলেন, তার পিঠে আরো দু’জন সাহাবি আরোহী হন। (আসাহহুস সিয়র-৮৪ পৃ.)
যুদ্ধ সরঞ্জাম জনবল কাফেরদের তুলনায় অপ্রতুলতাকে উপেক্ষা করেই মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মহান প্রতিপালকের দরবারে ফরিয়াদ করে তাঁর সঙ্গী-সাথীদের শুনিয়েছেন আশার বাণী, জুগিয়েছেন তাঁদের অন্তরে একরাশ সাহস-উদ্দীপনা। দিয়েছেন অভয় ও সান্ত্বনার অমোঘ ঘোষণা। শিখিয়ে দিলেন যুদ্ধনীতি।
বিঃদ্রঃ বদরের প্রেক্ষাপট পরের পর্বে আরো আছে দেখতে কক্সবাজার কন্ঠের সাথে থাকুন, ধন্যবাদ।

লিখক:
মাওলানা হেলাল আহমদ রিজভী
কামিল (এম,এ) ফার্স্ট ক্লাস
মাওলানা ভিলা, সোনারপাড়া, উখিয়া, কক্সবাজার।
তাং- ১০ মে ২০২০ইং।
মোবাইল- ০১৮২৪৮৭৮৭২১
ইমেইল-helalrezvi87@gmail.com

আরো সংবাদ