বাঁকখালী নদী খননের নামে চলছে পাড় খনন! - কক্সবাজার কন্ঠ । জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল

বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বুধবার

প্রকাশ :  ২০২০-০১-২৪ ১৫:০৯:৪৮

বাঁকখালী নদী খননের নামে চলছে পাড় খনন!

মুহাম্মদ আবু বকর ছিদ্দিক: কক্সবাজারের ঐতিহ্যবাহী বাঁকখালী নদী খননের নামে পাড় খনন করে বিপুল অংক হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। অন্যদিকে সরকার হারাচ্ছে মোটা অংকের রাজস্ব।
জানাগেছে, রামু-কক্সবাজারবাসিকে বন‍্যা থেকে রক্ষা করতে সরকার এ মহৎ উদ্যোগ নিলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকের কোন মাথা ব্যথা নেই। বাঁকখালী নদীতে বড় ড্রেজিং মেশিন দিয়ে নদী খনন করার নামে বালি উত্তোলন করছে ওয়েস্টার্ন নামের এক কোম্পানী। গেল বছরে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে ম‍্যানেজ করে ১ কোটি ১৫ লাখ টাকা রাজস্ব দিয়ে শতকোটি টাকা হরিলুট করেছে বলে মনে করছেন স্থানীয় সচেতন মহল।

Advertisements

বন‍্যা থেকে রক্ষা পেতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নদী খনন ও বেড়িবাঁধ প্রকল্পটি দেয়া হলে পরবর্তীতে বেড়িবাঁধ স্থগিত করে নদী খননের প্রজেক্টটি চলমান রাখে। কিন্তু
ওয়েস্টার্ন কোম্পানী প্রধানমন্ত্রীর মহৎ প্রকল্পটি কলুষিত করে রামু কক্সবাজারে চলমান রেললাইনের
সাথে আতাঁত করে এক ঢিলে তিন পাখি শিকার করছে।
সূত্র জানিয়েছে, বাঁকখালী নদী খননের জন্য শতকোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। শুধু তাই নয়, তারা সরকারকে নামমাত্র রাজস্ব দেখিয়ে শতকোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে আসছে। সূত্র আরও জানিয়েছে, রেল লাইন নির্মাণের ম‍্যাক্স কোম্পানীর সাথে আতাঁত করে শতকোটি টাকার বালি বিক্রি করে আসছে। সরকার বাঁকখালী নদীর বন‍্যার হাত থেকে রক্ষা করতে নদী গভীর ভাবে খননের উদ্যোগ নিলেও সেটা যথাযথ বাস্তবায়ন না হওয়ায় আগামী বর্ষা মৌসুমে জনসাধারণের বসবাস,চাষবাস এবং বন‍্যা হওয়ার আশঙ্কা করা যাচ্ছে। বাঁকখালী নদী খননের নির্দিষ্ট ম‍্যাপ থাকার সত্ত্বেও যেখানে বালি সেখানেই খনন। নদী খনন নামে বাঁকখালী নদীর পাড় খনন করা হচ্ছে।


এভাবেই যদি নদীর পাড় খনন করতে থাকে আগামী বর্ষা মৌসুমে ভয়াবহ বন‍‍্যাসহ পুরো রামু কক্সবাজার
বাসী হুমকির মুখে পড়বে। সরেজমিনে দেখা যায়
যেখানে নদীর পাড় আছে সেখান থেকেই বালি উত্তোলন করার কারণে যেকোন ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা করা যাচ্ছে এবং বালি উত্তোলনের কারণে পানি নিষ্কাশনের ব‍্যবস্থা না থাকায় লম্বরীপাড়া ঘাটঘরস্থ রাজারকুল এলাকায় আরও একটি নতুন নদী সৃষ্টি হয়েছে। পাশাপাশি নদীর পাড়গুলো পুকুরে পরিণত হচ্ছে।
স্থানীয়রা জানিয়েছে, বাঁকখালী নদীর মাঝখানে খনন না করে নদীর পাড় থেকে বড় ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালি উত্তোলন করা হলে ভালোর এর চেয়ে খারাপের দিক বেশি হবে। কক্সবাজার থেকে রামু পর্যন্ত বাঁকখালী নদী খননের কাজ শুরু হলেও বেপরোয়া ভাবে বালি উত্তোলন করা হচ্ছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যথাযথ ব‍্যবস্থা না নিলে সরকার হারাবে শত শত কোটি টাকার রাজস্ব এবং জনগণ সম্মুখীন হবে চরম বিপর্যয়ের মুখে।
কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রাধিকার প্রকল্প বাঁকখালী নদীর ড্রেজিং এবং রক্ষা বাঁধের জন্য ২০৩ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। গেল ২০১৭-১০১৮ অর্থ বছরের বাজেট থেকে উক্ত প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রাধিকার প্রকল্প বাঁকখালী নদী ড্রেজিং এবং রক্ষা বাঁধ প্রকল্পে’র নামে চলছে অনিয়ম। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ওয়েস্টার্ণ ইঞ্জিনিয়ারিং নানা অনিয়ম ও কোটি কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকির বিষয়টি তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন জরুরি।
এই বিষয়ে রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমার কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, আমি সরেজমিনে যাব তদন্ত করে অনিয়ম হলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করব।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারি প্রকৌশলী খন্দকার আলী রেজাকে অনিয়ময়ের বিষয় এই নম্বরে 01848252264 একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

আরো সংবাদ