বাংলাদেশের অর্থনীতিতে ভয়াবহ সংকটের আশংকা! - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ১৫ জুলাই ২০২০ ৩১ আষাঢ়, ১৪২৭

মঙ্গলবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৪-১০ ০৯:২৫:২৫

বাংলাদেশের অর্থনীতিতে ভয়াবহ সংকটের আশংকা!

নিউজ ডেস্ক:  করোনা সংক্রমণের কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে ভয়াবহ সংকটের আশংকা করেছেন বিশেষজ্ঞরা। চলতি অর্থ বছরে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি কমে যাবে বলেও তারা মন্তব্য করেছেন। সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, করোনা সংক্রমণের কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে স্বল্প মেয়াদী ও দীর্ঘ মেয়াদী সংকট তৈরী হবে বলে আশংকা করছি। এ ধরনের ভয়াবহ সংকট এর আগে কখনো এদেশে তৈরী হয়েছে বলে মনে হয় না। এ সংকট অনিশ্চয়তায় ভরা। কত দীর্ঘ হবে তা কেউ জানে না। যতী দীর্ঘ হবে, সংকট তত ভয়াবহ হবে।

অর্থনীতির এই বিশ্লেষক বলেন, করোনার কারণে স্বল্প মেয়াদী প্রভাবে কাঁচামালের সংকট দেখা দিবে, আমদানি-রপ্তানি বন্ধ হবে, উৎপাদন বন্ধ করে দিতে বাধ্য হবে। দীর্ঘ মেয়াী সংকটে কর্মী ছাটাই করতে বাধ্য হবে। বেকারত্ব বাড়বে। বন্ধ কারখানা খুলবে না। নতুন বিনিয়োগ হবে না। উৎপাদন না হলে বাজারে দ্রব্য সংকট খো দিবে। দ্রব্য মূল্য বাড়বে। এক কথায় দেশের অর্থনীতিতে ভয়াবহ মন্দা দেখা দিবে। বিশেষজ্ঞ বলেন, তৈরী পোশাকখাতের হাত ধরে বাংলাদেশের অর্থনীতি এগিয়েছে। প্রবাসীদের আয় এদেশের অর্থনীতির অর্থ যোগানের অন্যতম উৎস। করোনা সংক্রমণের কারণে এই দুই খাতেই ভয়াবহ বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। আমাদের দেশের তৈরী পোশাক খাতের অধিকাংশ ক্রেতা দেশগুলি করোনার কারণে মৃত্যু পুরিতে পরিণত হয়েছে। এসব দেশ আমাদের অনেক অর্ডার বাতিল করতে বাধ্য হয়েছে। বিশ্বের অনেক দেশেই এরই মধ্যে তাদের কর্মীদের বেতন বন্ধ করে দিয়েছে বা কমিয়েছে। প্রবাসীরা আয় করতে না পারলে তাদের পরিবারের কাছে কোথা থেকে অর্থ পাঠাবে? এছাড়া অভ্যন্তরীণ সম্পদ থেকেও আয়ে রয়েছে বড় ধরনের ঘাটতি। করোনার কারণে ব্যবসা বাণিজ্য স্থবির হওয়ায় এ ঘাটতি কাটিয়ে উঠা সম্ভব হবে না বলে মনে করছি। তিনি বলেন, করোনার কারণে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি কমে ৪ শতাংশ হতে পারে। তবে এ সংক্রমণ বাড়তে থাকলে বাংলাদেশের অর্থনীতির ক্ষতিও বাড়বে বলে মন্তব্য করেন মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম। বাংলাদেশের জাতীয় বাজেটের প্রায় ৬০ভাগ অর্থায়নের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) ওপর। শুরু থেকেই প্রতিষ্ঠানটি ঘাটতিতে পড়ে। গত নয় মাসে এনবিআরের রাজস্ব আদায়ের ঘাটতি বেড়ে ৪৫ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। এনবিআরের নয় মাসের রাজস্ব আদায়ে বাংলাদেশের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় ঘাটতি।

বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, সরকারের রাজস্ব আদায়ে ঘাটতি থাকায় বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়নেও আশংকা দেখা দিয়েছে। এতে অনেক উন্নয়ন প্রকল্প যথা সময়ে শুরু করা সম্ভব হবে না, বা এরই মধ্যে শুরু করা হয়েছে এমন প্রকল্প মাঝ পে থামিয়ে দিতে সরকার বাধ্য হবে। এতে সমগ্র অর্থনৈতিক উন্নয়নে প্রতিবন্ধকতা তৈরী হবে।

এনবিআর সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল মজিদ বলেন, এনবিআর চলতি অর্থ বছরের শুরু থেকেই ঘাটতিতে পড়ে। রাজস্ব আদায়ের সূত্র অনুসারে অর্থ বছরের শেষ ভাগে এনবিআরের আদায় বাড়ে। এবারে করোনা সংক্রমণের কারণে রাজস্ব আদায় বাড়া তো দূরের কথা, স্বাভাবিক আায়ই বন্ধ। তাই জাতীয় বাজেট বাস্তবায়নে বড় ধরনের অনিশ্চিয়তা দেখা দিয়েছে। যা বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য সুখবর নয়। করোনা সংক্রমণের কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বড় ধরনের নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে এবং ভবিষ্যতে বাড়বে বলে মনে করি।

এনবিআর সাবেক চেয়ারম্যান বলেন, অনেক দেশ এরই মধ্যে তাদের বিনিয়োগ, অনুদান স্থগিত করেছে। জাপান বিভিন্ন দেশে তাদের বিনিযোগ অনুদান স্থগিতের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বাংলাদেশেও জাপানসহ অনেক দেশের বিনিযোগ, অনুদান, সহযেগিতা রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে এসব অনুদান পাওয়ার ক্ষেত্রে সংকট দেখা দিবে।

দেশের সবচেয়ে অন্যতম সমুদ্র বন্দর চট্টগ্রাম বন্দর থেকে এনবিআরের রাজস্ব আদায়ে বড় অংশ আসে। চট্টগ্রাম বন্দর চালু থাকলেও আমদানি রপ্তানির স্বভাবিক কার্যক্রম চলছে না জানিয়ে চট্টগ্রাম কাস্টমস্ হাউসের কমিশনার মোঃ ফখরুল আলম  বলেন, আমাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে বন্দরের সকল কার্যক্রম চালু রাখতে। আমরা চালু রাখলেও আমদানি রপ্তানি নেই বলেই চলে। প্রায় সারা বিশ্ব লক ডাউন। কোথা থেকে আমদানি হবে আর কোথায় রপ্তানি হবে?

দেশের ব্যবসাযীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই সহ সভাপতি মুনতাকিম আশরাফ বলেন, সারা বিশ্বের সঙ্গে বাংলাদেশের অর্থনীতিতেও করোনা ব্যাধির কারণে নেতিবাচক পড়ার আশংকা আছে। এ ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে আমরা চেষ্টা করবো।

শুধু বাংলাদেশ নয় করোনার কারণে ভারতের প্রবৃদ্ধি কমার আশংকা করেছে দেশটির রিজার্ভ ব্যাংক। গত বৃহস্পতিবার ভারতের শীর্ষ এ ব্যাংকের প্রকাশিত ঋণ নীতি সংক্রান্ত এক রিপার্টে বলা হয়েছে, করোনা সংক্রমণের কারণে এরই মধ্যে ভারতের অর্থনৈতিক কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে। নেতিবাচক প্রভাব পড়তে শুরু করেছে দেশটির বিভিন্ন উন্নয়ন কার্মকান্ডে। প্রাথমিক তথ্যের ভিত্তিতে বলা যায়, কোভিকের কারণে চলতি অর্থ বছরে ভারতের প্রবৃদ্ধির হার ৪.৮ শতাংশে নেমে যেতে পারে। সংক্রমণ এ ব্যাধি আরো দীর্ঘ হলে ভারতের অর্থনীতির ক্ষতি আরো বাড়বে।

রির্পোটে সর্তক করে বলা হয়েছে, সংক্রমণ এ ব্যাধির  কারণে বিপর্যস্ত বিশ্ব অর্থনীতির কারণে সব চেয়ে বেশি দুর্ভোগে পড়বে এশীয় প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের শেগুলি। ভারতের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলি বেশি ভুগবে। ভারতের লক ডাইন বাড়লে দেশটির অর্থনৈতিক ক্ষতিও বাড়বে। তবে কতটা ক্ষতি হবে তার কোন হিসাব দেয়া হয়নি ঋণ নীতিতে। করোনার কারণে জন-জীবন, ব্যবসা-বাণিজ্য, উৎপাদন স্থবির হওয়ায় বিশ্ব অর্থনীতিতে উৎপাদন আরো কমে যাবে। এতে বিশ্বব্যাপি মন্দা দেখা দিতে পারে। ভারতেও এ পরিস্থিতি দেখা দিতে পারে। একই দিনে বিশ্ব অর্থনীতির বিপর্যয়ের আশঙ্কা করেছে আইএমএফও। প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার ক্রিস্টালিনা জর্জিয়েভা বলেন, ‘কোভিড যে বিদ্যুতের গতিতে বিশ্বের সামাজিক ও অর্থনৈতিক চেহারাকে চুরমার করেছে, তা স্মরণকালে হয়েছে বলে মনে করতে পারছি না।’ সূত্র-কালের কন্ঠ।

আরো সংবাদ