বায়েজিদ থাকা অবস্থায় বরখাস্ত হয়েছিলেন ওসি প্রদীপ - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১১ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৮-০৬ ০৯:০৪:৫৬

বায়েজিদ থাকা অবস্থায় বরখাস্ত হয়েছিলেন ওসি প্রদীপ

নিউজ ডেস্ক :  ওসি প্রদীপ শুধু এখনই না। বহু আগে থেকেই অনিয়ম ও ক্ষমতা অপব্যবহারের সাথে যুক্ত ২০১৫ সালে বেসরকারি শোধনাগারের তেলবাহী ট্রাক জব্দ করে ব্যবসায়ীকে হয়রানি করার অভিযোগে নগরের বায়েজিদ বোস্তামী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) থাকা অবস্থায় সে বরখাস্ত হয়েছিল। জানা গেছে ২০১৫ সালে ১৭ নভেম্বর পুলিশ সদর দপ্তরের আদেশে প্রদীপকে বরখাস্ত করা হয়। নগরের বায়েজিদ বোস্তামী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) থাক অবস্থায় প্রদীপ কুমার
তেল জব্দের নামে এক ব্যবসায়ীকে হয়রানির অভিযোগ উঠার পর তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় তাকে বরখাস্ত করা হয়।
জানা যায় ২০১৫ সালের ৪ আগস্ট নগরের টেক্সটাইল মোড় এলাকায় এসআই একরামুল হকের নেতৃত্বে পুলিশ তেল শোধনাগার প্রতিষ্ঠান সুপার রিফাইনারি প্রাইভেট লিমিটেডের একটি তেলবাহী ট্রাক জব্দ করে। এ ঘটনায় বায়েজিদ বোস্তামী থানার এসআই সুজন বিশ্বাস বাদী হয়ে ১০ জনের বিরুদ্ধে চোরাচালানের অভিযোগে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করেন। তবে মামলার পর ১৫ আগস্ট পুলিশ সদর দপ্তরে পুলিশের বিরুদ্ধে হয়রানির লিখিত অভিযোগ করেন প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক সেলিম আহমেদ।
মামলায় সুপার রিফাইনারি প্রাইভেট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সেলিম আহমেদ, প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান লুৎফুন্নেছা আহমেদ, পরিচালক সাজির আহমেদ ও আসলাম হায়দার, মহাব্যবস্থাপক সুব্রত দেব, প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা মহিন উদ্দিন চৌধুরী, সুপার গ্রুপ অব কোম্পানির ব্যবস্থাপক দিদারুল আলম চৌধুরী ও উপব্যবস্থাপনা পরিচালক হারুন উল ইসলাম এবং মিরসরাইয়ের মেসার্স বিদোয়ান ট্রেডার্সের মালিক রাশেদা আক্তার ও ট্রাকচালক জাকের হোসেনকে আসামি করা হয়। এদিকে ব্যবসায়ীর অভিযোগ পাওয়ার পর পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত ডিআইজি মোহাম্মদ আলমগীরকে প্রধান করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। এরপর সেপ্টেম্বর মাসে ওসি প্রদীপকে বরখাস্ত ও বিভাগীয় মামলা করার সুপারিশ করে তদন্ত কমিটি।সূত্র সাঙ্গুঁ নিউজ।

আরো সংবাদ