বিআরটিএ অফিসে প্রকাশ্যে ঘুষ লেনদেনে অপারেটর জামশেদ - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ৫ ডিসেম্বর ২০২০ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-১১-১১ ০৭:১২:০০

বিআরটিএ অফিসে প্রকাশ্যে ঘুষ লেনদেনে অপারেটর জামশেদ

নিউজ ডেস্ক :  কক্সবাজার বিআরটিএ অফিসের দুর্নীতি এখন চরম আকার ধারণ করেছে। ঘুম ছাড়া মোটরযান রেজিষ্ট্রেশন ও ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়া যায় না। অভিযোগ আছে, ডিসিটিবি অন্তর্ভুক্ত না করে ভুয়া নাম্বার দিয়ে লাইসেন্স বের করে দেন এক কর্মকর্তা নেতৃত্বে একটি চক্র। এছাড়া রাজস্ব জমা না দিয়ে আত্মসাত করা, লাইট লাইসেন্স থেকে মিডিয়াম লাইসেন্স না করে সরাসরি হেবি লাইসেন্স করিয়ে দিয়ে লাখ-লাখ হাতিয়ে নিচ্ছে চক্রটির প্রধান কক্সবাজার বিআরটিএ কম্পিউটার অপারেটর জামশেদ আলম। তাঁর সাথে বেশ কয়েকজন দালাল রয়েছে। তার বিরুদ্ধে গণমাধ্যমে একাধিক তথ্যবহুল সংবাদ প্রকাশ হলেও বহাল তবিয়তে রয়েছে। ইতিমধ্যে তার বিরুদ্ধে কয়েকজন ভোক্তভোগী দুদকসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেছে।  কম্পিউটার অপারেটর জামশেদ আলম সরকারী নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে দেদারছে ঘুষ নেওয়ার একটি ভিডিও প্রকাশ পেয়েছে।

 জানা গেছে, জামশেদ আলম কক্সবাজার বিআরটিএ অফিসের কম্পিউটার অপারেটর দীর্ঘদিন ধরে কর্মরত রয়েছে। এই সময়ে ডিজিটাল রেজিষ্ট্রেশন সার্টিফিকেট (ডিআরসি) ও লাইসেন্স ডাটা এন্টিসহ ছবি তোলা এবং ডেলিভারি দেওয়ার সময় তিনি জনপ্রতি দুইশ থেকে একহাজার পর্যন্ত ঘুষ নেন। তার দাবিকৃত ঘুষ না দিলে কাগজ ছুড়ে মারাসহ নানা রকম হয়রানি ও খারাপ আচরণ করার অভিযোগ তুলেছে সেবা নিতে আসা অনেক গ্রাহক।
নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, ‘টাইগার আইটি বিডি’ নামের একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠান বিআরটিএ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে চুক্তি রয়েছে। বেসরকারী প্রতিষ্ঠানটির কম্পিউটার অপারেটর পদে দায়িত্বে রয়েছে জামশেদ আলম। এই পদে বসে জামশেদ ঘুষ ও গ্রাহক হয়রানিসহ নানা অপকর্ম ও জালিয়াতির সঙ্গে জড়িত পড়েছে। সরকারিভাবে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা জমা না দিয়ে বিদেশগামী এবং বিভিন্ন পেশার লোকজন থেকে আর্জেন্ট লাইসেন্স করিয়ে দেওয়ার প্রলোভনে লাইসেন্স প্রতি ১০হাজার থেকে ৩০হাজার হাতিয়ে নিচ্ছে জামশেদের চক্রটি।

ভোক্তভোগীদের অভিযোগ, ড্রাইভিং লাইসেন্স, ডিজিটাল রেজিষ্ট্রেশনের ছবি তোলা সময় জামশেদকে জনপ্রতি দুইশ থেকে একহাজার টাকা দিতে হয়। এমনকি কার্ড ডেলিভারি সময়ও দিতে হয় দুইশ থেকে ৫শত টাকা। কোন গ্রাহক তার চাহিদা মত টাকা দিতে রাজি না হলে তাকে নানাভাবে হয়রানির শিকার হতে হয়। জামশেদ টাকার বিনিময়ে লাইট লাইসেন্স থেকে মিডিয়াম লাইসেন্স না দিয়ে সরাসরি হেবি লাইসেন্স করে দেয়। যানবাহনের মালিকানা পরিবর্তন করে দেওয়ার সময় তাকে দিতে হয় মোটা অঙ্কের ঘুষ।

একজন ভোক্তভোগী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, কক্সবাজার বিআরটিএ কম্পিউটার অপারেটর জামশেদকে টাকা দিলে তিনি সব করে দিতে পারেন। সুযোগ বুঝে যার কাছে যত নিতে পারে সেইভাবে হাতিয়ে নেন তিনি। এছাড়াও মোটা অঙ্কের টাকা দিলে নমুনা ড্রাইভিং পরীক্ষা ছাড়াও লাইসেন্স করিয়ে দেন জামশেদ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিআরটিএর এক কর্মচারী বলেন, মোটরযান চালকদের পেশাদারিত্ব ও দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য বিশেষ প্রশিক্ষণ ও ওরিয়েন্টেশন বাবদ প্রতি বছর লাখ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হলেও উল্লেখযোগ্য কোনো প্রশিক্ষণ ও ওরিয়েন্টেশন করা হয় না। ভুয়া বিল ভাউচার করে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তা আত্মসাৎ করেন। এ নিয়ে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মধ্যে টানাপড়েন চলছে।

রামুর এলাকার বাসিন্দা জানে আলম বলেন, বিআরটিএ অফিস থেকে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে আন-ফিট যানবাহনগুলোকে ফিটনেস সার্টিফিকেট প্রদান করার কারণে সড়ক দুর্ঘটনা বেড়ে গেছে এবং সাধারণ মানুষের প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে বিআরটিএ কক্সবাজার এর একটি কর্মচারি ঘুষ নেয়ার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বিআরটিএ’র সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর জামশেদ আলম বিশ্বস্ত লোক হিসেবে পরিচিত কয়েকজন দালাল কাজগুলো করে দেয়। এতে তারা কিছু কমিশন নেন।

বিআরটিএ’র সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর জামশেদ আলম অভিযোগ স্বাকীর করে বলেন, ‘সরকারী অফিসে এই রকম হয় সেটা ঠিক। নিউজটা হলে আমার ঝামলা হবে। তাই একটু বসে বিস্তারিত আপনার সাথে কথা বলতে চাই।’

এ ব্যাপারে বিআরটিএ কক্সবাজার সার্কেলের সহকারী পরিচালক (ইঞ্জি:) উথোয়াইনু চৌধুরীর মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হয়। তাঁর ফোন বন্ধ থাকায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।সূত্র আমার কক্সবাজার… অনলাইন।

আরো সংবাদ