বিচ্ছিন্ন সহিংসতা ও বর্জনের মধ্য দিয়ে ভোট শেষ  - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০২১-০১-১৬ ১৮:৩০:৪৬

বিচ্ছিন্ন সহিংসতা ও বর্জনের মধ্য দিয়ে ভোট শেষ 

বিচ্ছিন্ন সহিংসতা ও বর্জনের মধ্য দিয়ে ভোট শেষ 

পৌর নির্বাচন দ্বিতীয় ধাপ # বিচ্ছিন্ন সহিংসতা ও বর্জনের মধ্য দিয়ে ভোট শেষ  # অধিকাংশ পৌরসভায় শান্তিপূর্ণ ভোট

সংবাদ ডেস্ক :  কেন্দ্র দখল, এজেন্ট বের করে দেয়া, মারধর, ভোটদানে বাধাসহ নানা অনিয়মের মধ্য দিয়ে গতকাল দ্বিতীয় ধাপে ৬০টি পৌরসভা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। অনিয়মের অভিযোগ এনে বেশকিছু পৌরসভায় বিএনপিসহ স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ভোট বর্জন করেছেন। নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার এবারের পৌর নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হয়নি দাবি করেছেন। তবে নির্বাচন কমিশনের সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর বলেছেন, ভোট শান্তিপূর্ণ হয়েছে। পরিস্থিতি অত্যন্ত ভালো ছিল। নির্বাচনের ফলাফলে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা এগিয়ে আছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ফেনীর দাগনভূঞা পৌরসভায় ককটেল বিস্ফোরণে এক আনসার সদস্য এবং আরও কয়েকটি পৌরসভায় ধাওয়া-পাল্টা-ধাওয়ার ঘটনায় বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। কুমিল্লার চান্দিনাসহ আরও কয়েকটি পৌরসভার কিছু কেন্দ্রে ইভিএমে ভোট প্রদানে জটিলতার খবরও পাওয়া গেছে। এছাড়া বেশিরভাগ পৌরসভায় মোটামুটি শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণের খবর পাওয়া গেছে।

সর্বশেষ প্রাপ্ত বেসরকারি ফলাফল অনুযায়ী, মেয়র পদে নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগ ৩৯টি, ধানের শীষ প্রতীকে বিএনপি ৪টি পৌরসভায় এবং অন্যান্য (স্বতন্ত্রসহ) প্রতীকের প্রার্থীরা ৮টি পৌরসভায় জয়লাভ করেছেন।

পৌর নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হয়নি দাবি করে গতকাল রাজধানীর নির্বাচন ভবনে লিখিত বক্তব্যে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার জানান, সকালে তিনি নিজে সাভার পৌরসভার তিনটি ভোটকেন্দ্রের ১৮টি বুধ পরিদর্শন করে ১৫টি বুথেই বিরোধী দলের এজেন্ট দেখতে পাননি। পৌর এলাকায় বিরোধী দলের পোস্টারও নজরে পরেনি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘একতরফা নির্বাচন কখনও কাম্য নয়।’ পৌরসভা নির্বাচনে সহিংসতা বেড়ে চলেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সহিংসতা ও নির্বাচন একসঙ্গে চলতে পারে না। নির্বাচন প্রক্রিয়ার পরিবর্তন না হলে এই সহিংসতা বন্ধ করা সম্ভব নয়।’ দ্বিতীয় ধাপে গতকাল ২৮টি পৌরসভায় ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) এবং ৩২টি পৌরসভায় ব্যালট পেপারে ভোট নেয়া হয়। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত টানা চলে ভোটগ্রহণ। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ভোটগ্রহণের শুরুতে কেন্দ্রগুলোতে ভোটার উপস্থিতি কম থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে ভোটার সংখ্যা। নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করার জন্য ভোট কেন্দ্রগুলোতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন ছিল।

গোলযোগ ও ভোট বর্জন

মৌলভীবাজারের কুলাউড়া পৌরসভা নির্বাচনে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রুমেল আহমদের নেতৃত্বে ভোটকেন্দ্র দখল করায় দু’পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এতে ভোটগ্রহণ সাময়িকভাবে স্থগিত করে কর্তৃপক্ষ।

মোংলা পোর্ট পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থীসহ মোট ১২ জন কাউন্সিলর প্রার্থী অনিয়ম ও ভোট কারচুপির অভিযোগ এনে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। এরমধ্যে জামায়াত সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলরও রয়েছেন।

মেহেরপুরের গাংনী পৌরসভায় অনিয়মের অভিযোগ এনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও বহিষ্কৃত যুবলীগ নেতা, বর্তমান মেয়র আশরাফুল ইসলাম নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন।

আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকরা ভোট দিতে দেয়নি, এমন অভিযোগ করে রাজশাহীর বাগমারার ভবানীগঞ্জ পৌরসভার বিএনপি প্রার্থী আবদুর রাজ্জাক ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।

ফেনীর দাগনভূঞা পৌরসভা নির্বাচনে গনিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে পরপর দুটি কককেট বিস্ফোরণ হয়। এ সময় কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা আরিফুল নামের এক আনসার সদস্য আহত হন। ঝিনাইদহের শৈলকুপা পৌরসভা নির্বাচনে দুই মেয়র প্রার্থীর সমর্থকদের মাঝে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় দু’জন আহত হন। ঝাউদিয়া ভোটকেন্দ্র এলাকায় স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) মেয়র প্রার্থীর গাড়ি ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে।

পৌর নির্বাচন নিয়ে উত্তেজনাপূর্ণ মন্তব্য করে সম্প্রতি আলোচিত আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরর ভাই আবদুল কাদের মির্জা গতকাল নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভা নির্বাচন পরিস্থিতি নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন। এ পৌরসভায় নৌকার প্রার্থী আবদুল কাদের মির্জা নিজের জয়ের বিষয়ে আশা প্রকাশ করে বলেন, যদি হেরেও যাই, ফলাফল মেনে নিয়ে বিজয়ীকে স্বাগত জানাব।

এদিকে প্রথমবারের মতো ইভিএমে ভোট দিতে গিয়ে বিপাকে পড়েন অনেক ভোটার। তাদের কারণে সৃষ্ট দীর্ঘসূত্রতায় ভোগান্তিতে পড়েন অন্যরা। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কুমিল্লার চান্দিনা পৌরসভা নির্বাচনে কয়েকটি কেন্দ্রে ইভিএমে ভোট প্রদানে দীর্ঘ সময় ব্যয় হওয়ায় ভোটারদের লম্বা লাইন তৈরি হয়। ফলে বিরক্ত হয়ে অনেকে ভোট না দিয়েই ফিরে যান।

এদিকে দ্বিতীয় ধাপে পৌর ভোটের আগে নির্বাচনী এলাগুলোতে সংঘাত-সংঘর্ষের ঘটনা তুলনামূলক বেশি হয়েছে। আওয়ামী লীগের মেয়র-কাউন্সিলর প্রার্থী এবং বিদ্রোহীদের মধ্যেই সংঘাতের ঘটনা বেশি। তাদের প্রচার-প্রচারণার উত্তাপ কোন কোন জায়গায় সহিংসতায় রূপ নেয়। কয়েকটি পৌরসভায় প্রার্থী-সমর্থকদের সংর্ঘষের ঘটনায় কাউন্সিলর প্রার্থীসহ দুজন নিহত এবং অর্ধশতাধিক আহত হন। একে-অন্যের ওপর হামলা, প্রতিপক্ষের নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙচুর এবং লুটপাটের ঘটনাও ঘটে।

দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে আটটি রাজনৈতিক দল তাদের নিজস্ব প্রতীক নিয়ে অংশ নেয়। সিরাজগঞ্জের কাজিপুর, পাবনার ভাঙ্গুরা, পিরোজপুরের পিরোজপুর সদর এবং নারায়ণগঞ্জের তারাব পৌরসভায় মেয়র পদে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী থাকায় (৪ জন) বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন। এছাড়া বিভিন্ন ওয়ার্ডে সাতজন সাধারণ কাউন্সিলরও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

ইসি সচিবালয়ের যুগ্ম-সচিব ও পরিচালক (জনসংযোগ) এসএম আসাদুজ্জামান জানান, দ্বিতীয় ধাপের জন্য ইসি প্রথমে ৬১টি পৌরসভার তফসিল ঘোষণা করলেও নীলফামারীর সৈয়দপুরের প্রতিদ্বন্দ্বী একজন মেয়র প্রার্থীর মৃত্যুর কারণে সেখানে ভোট স্থগিত করা হয়েছে।

দেশে মোট ৩২৯টি পৌরসভার মধ্যে মেয়াদোত্তীর্ণ পৌরসভাগুলোতে ৯০ দিনের মধ্যে ভোটের বাধ্যবাধকতা থাকায় এসব পৌরসভায় নির্বাচনের আয়োজন করেছে ইসি। প্রথম ধাপে গত ২৮ ডিসেম্বর ২৩টি পৌরসভায় নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা ১৮টি, বিএনপির প্রার্থীরা ২টি এবং স্বতন্ত্র ৩ জন প্রার্থী মেয়র পদে জয়লাভ করেন। সবগুলো পৌরসভায় ইভিএমে ভোটের ওই নির্বাচনে গড়ে ৬৫ শতাংশ ভোট পড়ে।

ইসির তফসিল অনুযায়ী, তৃতীয় ধাপে ৬৪টি পৌরসভায় ৩০ জানুয়ারি এবং চতুর্থ ধাপে ৫৬টি পৌরসভায় ১৪ ফেব্রুয়ারি ভোট হবে।

 

দ্বিতীয় ধাপে প্রার্থী ও ভোটার পরিসংখ্যান

ইসির পরিসংখ্যান অনুযায়ী, দ্বিতীয় ধাপে পৌরসভায় মোট মেয়র প্রার্থী ২২১ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২ হাজার ৩২০ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর ৭৪৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ৬১টি পৌরসভায় মোট ভোটার ২২ লাখ ৪০ হাজার ২২৬ জন। তাদের মধ্যে পুরুষ ১১ লাখ ৮ হাজার ৪৩১ জন এবং নারী ১১ লাখ ৩১ হাজার ৮৩১ জন। ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ১ হাজার ৮০টি এবং ভোটকক্ষ ৬ হাজার ৫০৮টি।

 

পৌর ভোট শান্তিপূর্ণ হয়েছে : ইসি সচিব

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর বলেছেন, পৌরসভা নির্বাচনের সার্বিক পরিস্থিতি অত্যন্ত ভালো ছিল। শান্তিপূর্ণভাবে ভোট হয়েছে। প্রচুর ভোটার উপস্থিতি ছিল। তারা স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোট দিয়েছেন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সবার সহযোগিতায় একটি সুন্দর নির্বাচন করা সম্ভব হয়েছে। গতকাল দ্বিতীয় ধাপে ৬০টি পৌরসভার ভোট শেষে রাজধানীর আগারগাঁও নির্বাচন ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

সচিব বলেন, সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী পৌরসভাগুলোর মধ্যে ইভিএমে সর্বোচ্চ ৮০ শতাংশ এবং সর্বনিম্ন ৫৫ শতাংশ ভোট পড়েছে। ব্যালটে যে তথ্য পাওয়া গেছে, সর্বোচ্চ ৭৫ শতাংশ এবং সর্বনিম্ন ১৫ শতাংশ ভোট পড়েছে। সার্বিক হিসাবে থেকে ৭০ থেকে ৭৫ শতাংশ ভোট পড়তে পারে। তবে এটি চূড়ান্ত হিসাব নয়।

‘নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হয়নি’- নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদারের এমন অভিযোগের জবাবে সিনিয়র সচিব বলেন, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন আর নিরপেক্ষ নির্বাচন ভিন্ন বিষয়। ইসির দায়িত্ব নিরপেক্ষ নির্বাচন করা। নির্বাচনে যদি কেউ না আসে, তাতে নির্বাচন কমিশনের কিছু করণীয় নেই। নির্বাচনে আসা না আসার বিষয়ে রাজনৈতিক দলের একটি কৌশল হতে পারে।

দেশের কয়েকটি স্থানে নির্বাচন নিয়ে সহিংসতার প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ইসি সচিব বলেন, সাড়ে ৬০০ ভোটকেন্দ্রের মধ্যে দু-একটি কেন্দ্রে সহিংসতার তথ্য পেয়েছি। এটি বড় কিছু নয়। আর আমাদের দেশে সহিংসতা কোন নির্বাচনে হয় না? সব নির্বাচনেই কমবেশি হয়। তিনি আরও বলেন, কিছু কিছু এলাকায় দুষ্কৃতকারী থাকে। তারা নির্বাচনে বিঘ্ন ঘটানোর প্রচেষ্টা চালায়, কিন্তু নির্বাচনী দায়িত্ব পালনকারী আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা এটাকে নিয়ন্ত্রণ করেছে। তাদের নির্বাচনী পরিবেশ নষ্ট করার সুযোগ দেয়া হয়নি।

সচিব বলেন, ৬০টি পৌরসভার মধ্যে রাজশাহীর বোয়ালমারী পৌরসভার একটি কেন্দ্রে দুষ্কৃতকারীরা ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের চেষ্টা করেছে। কিন্তু তারা ব্যালট পেপার নিয়ে যেতে পারেনি। তবে ব্যালট বাক্স যেহেতু ভেঙে গেছে প্রিজাইডিং অফিসার ওই নির্বাচনী কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করেছেন। কিশোরগঞ্জেও একটি কেন্দ্রে ব্যালট পেপার ছিনতাই করে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা হয়েছিল সেটাকেও বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া ৬০টি পৌরসভার সব কেন্দ্রে সুষ্ঠুভাবে ভোট সম্পন্ন হয়েছে।

আরো সংবাদ