বিদেশ থেকে লবণ আমদানির কারণে ৫ শ টাকার লবণ ১৫০ টাকা - Coxsbazarkontho.com

শনিবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২০ ১১ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০১-০৬ ১১:৫০:৫৫

বিদেশ থেকে লবণ আমদানির কারণে ৫ শ টাকার লবণ ১৫০ টাকা

কক্সবাজার টাইমস: কক্সবাজারের মহেশখালীতে উপকূলীয় বিভিন্ন লবণের মোকামে লবণ থাকার পর ও বিদেশ থেকে লবণ আমদানীসহ নানা কারনে দিন দিন মূল্য কমে যাচ্ছে লবণের। ধ্বস নেমেছে লবন বিক্রিতে। এতে করে সংকটে পড়েছে লবণ চাষীরা। আর চরম হতাশায় এ শিল্পের উপর নির্ভরশীল কক্সবাজার ও চট্টগ্রামের ৫৫ হাজার চাষীসহ ৫ লাখ মানুষ। যারা দেশের মানুষের লবণের চাহিদা মিটিয়ে জীবন-যাপন করে।
৬০ হাজার একর এলাকাজুড়ে অবস্থিত এই শিল্প কক্সবাজারের উপকূলীয় দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীসহ উপকূলীয় উপজেলায় অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখলেও ভাল নেই লবণ শিল্পের সাথে জড়িতরা। লাগামহীনভাবে লবণের দাম কমে যাওয়ায় খুবই ক্ষতিগ্রস্থ লবণচাষীরা। লবণের ন্যায্য মূল্য পাওয়ার দাবীতে চাষীরা ইতোমধ্যে মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচী পালন করেছে মহেশখালীতে।

Advertisements

লবণ চাষীরা জানায়, মাঠ পার্যায়ে এক মন লবণ উৎপাদন করতে ব্যায় হয় ৩ শ টাকা। সে লবন এখন বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৭০ টাকায়। অথচ এক মাস আগেও প্রতি মন লবণ বিক্রি হয়েছে ৫শ থেকে ৬শ টাকায়। এতে লাভ’ত দুরের কথা গুনতে হয়েছে লোকসান। আর এ ক্ষতি’র জন্য চাষীরা দায়ী করছেন অসাধু মিল মালিকদের সিন্ডিকেট ও চাহিদা পূর্ণ থাকার পরেও বিদেশ থেকে লবণ আমদানিকে। এ অবস্থায় লবণ চাষী ও মালিকদের দাবী লবণের মূল্য আগের মতই রাখা হউক। যাতে করে লবণ শিল্প বেঁচে থাকে আর এই শিল্পের সাথে জড়িতরা রক্ষা পায়।
মহেশখালী লবণ চাষী সংগ্রাম কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব আনোয়ার পাশা চৌধুরী জানায়, ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে মণ প্রতি লবণের দাম ছিল ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা। ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে তা কমে দাঁড়িয়েছে ৪’শ থেকে ৪’শ ৫০ টাকায়। ২০১৮-২০১৯ সালে তা আরো কমে দাঁড়িয়েছে ১৭০ টাকা থেকে ১৬০ টাকায়। কিন্তু মাঠে মণ প্রতি লবণ উৎপাদনে খরচ পড়ছে ৩শ টাকা।
Advertisements

বাংলাদেশ লবণ চাষী সমিতির সভাপতি এডভোকেট শহিদুল্লাহ চৌধুরী জানান, গত বছরের লবণের দামের উপর নির্ভর করে চাষিরা অগ্রিম টাকা নিয়ে লবণের মাঠ করছে। এই অবস্থায় যদি ৫’শ টাকার লবণ ১৭০ টাকা হয়, তাহলে চাষীদের মজুরীর টাকা পর্যন্ত উঠবেনা।
তিনি আরও বলেন, গত কয়েক বছর বিদেশ থেকে লবণ আমদানি না করায় দেশে লবণের দাম ভাল ছিল। চাষিরাও সন্তুষ্ঠ ছিল। কিন্তু চাহিদা পূর্ণ থাকার পরেও ভ্যাট আর কর দিয়ে বিদেশ থেকে লবন আমদানি করা হচ্ছে। অসাধু ব্যবসায়ীরা বেশি লাভের আশায় বিদেশী লবণের সাথে দেশি লবণ মিশিয়ে বিক্রি করছে। আর তারাই লবণের দাম কমিয়ে দিয়েছে। যার ফলে চরম দূরাবস্থায় পড়েছে লবণ চাষী ও মালিকেরা।
বিসিক কক্সবাজারের উপ-মহাব্যবস্থাপক দিলদার আহমদ চৌধুরী জানান, এবার চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের ৬০ হাজার একর জমিতে লবন চাষ হয়েছে। এ বছর লবণের চাহিদা রয়েছে ১৬ লাখ ৬১ হাজার মেট্রিক টন। বিষয়টি তিনি মন্ত্রনালয়কে অবহিত করেছেন বলেও জানান।
Advertisements

উল্লেখ্য, কক্সবাজারের ৭ উপজেলা চকরিয়া, পেকুয়া, টেকনাফ, কক্সবাজার সদর, রামু, কুতুবদিয়া, মহেশখালীসহ চট্টগ্রামের বাঁশখালীর ৫৫ হাজার লবন চাষীর পাশাপাশি এ শিল্পের সাথে ৫ লাখ মানুষ জড়িত। তাদের একমাত্র আয়ের উৎস লবণ চাষ। তাই লবণ চাষী ও মালিকদের ন্যায্যমূল্য প্রদানের মাধ্যমে বাচিঁয়ে রাখতে তারা প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

আরো সংবাদ