বৃদ্ধকে উলঙ্গ করে নির্যাতনের ঘটনায় ফেইজবুকে তোলপাড় - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ১৫ জুলাই ২০২০ ৩১শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৬-০২ ১৩:২০:০৭

বৃদ্ধকে উলঙ্গ করে নির্যাতনের ঘটনায় ফেইজবুকে তোলপাড়

বিশেষ প্রতিনিধি কক্সবাজার কন্ঠ :  কক্সবাজারের চকরিয়ায় বৃদ্ধকে উলঙ্গ করে অমানবিক নির্যাতনের ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তোলপাড় চলছে। এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে আরও আন্তরিক হওয়ার আহবান জানিয়েছে স্থানীয়রা। গত ২৪ মে কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার ঢেমুশিয়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের ছয়কুড়িটিক্কা পাড়ায় এ মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটে।
জানাগেছে, চকরিয়া উপজেলার ঢেমুশিয়া ইউনিয়নের ছয়কুড়িটিক্কা পাড়ায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ৭২ বছরের সমাজপতি বৃদ্ধ নুরুল আলমকে কয়েকজন যুবক কিল-ঘুষি, পরনের লুঙ্গি, গেঞ্জি টেনে ছিঁড়ে ব্যাপক মারধর করে। আর কয়েকজন যুবক তা মোবাইলেভিডিও ধারণ করে। কিন্তু ওই সময় বৃদ্ধকে বাঁচাতে কেউ এগিয়ে আসেনি। এভাবে হেনস্থা করা হয়েছে বয়োবৃদ্ধ নুরুল আলমকে।

Advertisements

এ ঘটনায় গত ৩১ মে রাতে বৃদ্ধ নুরুল আলমের ছেলে আশরাফ হোসাইন বাদী হয়ে চকরিয়া থানায় এজাহার দায়ের করে। তবে এখনো এজাহারটি তদন্তধীন বলে থানা সূত্রে জানা গেছে। এতে আসামী করা হয়েছে, ওই এলাকার মৃত মনির উল্লাহর ছেলে বদিউল আলম (৫৫), আনছুর আলম (৩৫),শাহ আলম (৫২), শাহ আলমের স্ত্রী আরেজ খাতুন (৪৮), বদিউল আলমের ছেলে মিজানুর রহমান (২৮), আবদুল জাব্বারের ছেলে রিয়াজ উদ্দিন (৩২), জয়নাল আবেদিন (৩০) এবং মনজুর আলমের ছেলে মো.রুবেল (২৮)।
এজাহারে বাদী দাবি করেছে, গত ২৪ মে বয়োবৃদ্ধ নুরুল আলম ঈদের বাজার করে ঢেমুশিয়া স্টেশন থেকে টমটমযোগে তার নিজ বাড়ি ফিরছিল। পথিমধ্যে স্থানীয় ক্ষমতাধর আনছুর আলমের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী টমটম থেকে তার বাবাকে নামিয়ে নির্জন স্থানে নিয়ে যায়। পরে পড়নে থাকা লুঙ্গি, গেঞ্জি ছিড়ে ফেলে ব্যাপক মারধর করে। কয়েকজন যুবক ওই ঘটনাটির ভিডিও ধারণ করে। এসময় বৃদ্ধ নুরুল আলম বাঁচাও বাঁচাও বলে স্ব-শোর-চিৎকার করতে থাকে। পরে ঘটনাটি শোনার পর তার ছোট ভাই সিএনজি চালক সালাহউদ্দিন স্থানীয় লোকজন নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তার বাবাকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়। পরে ঘটনাটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর সবার নজরে আসে। এজাহারের দাবী বৃদ্ধ নুরুল আলমের ছেলে আশরাফ হোসাইন বলেন, ঘটনাটির পুরো নেতৃত্ব দিয়েছেন স্থানীয় সন্ত্রাসী আনছুর আলমসহ একদল বখাটে যুবক।

Advertisements

এ বিষয়ে ঢেমুশিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আলম জিকু বলেন, তুচ্ছ একটি ঘটনার জের ধরে এমন অমানবিক আচরণ করা হয়েছে বয়স্ক নুরুল আলমের সাথে। তিনি এই এলাকার একজন সমাজপতি। সবাই ওনাকে খুব সম্মান করে। এলাকার কিছু চিহিৃত সন্ত্রাসী ঘটনাটি ঘটিয়েছে। বিষয়টি আমাকে জানানোর পর থানায় এজাহার দেয়ার জন্য আমি পরামর্শ দিয়েছি।
চকরিয়া থানার ওসি মো.হাবিবুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় ভুক্তভোগির ছেলে আশরাফ হোসাইন একটি এজাহার দায়ের করেছে। এব্যাপারে খুব তড়িৎ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

Advertisements

এদিকে চকরিয়া সার্কেলের সহকারি পুলিশ সুপার কাজী মোহাম্মদ মতিউল ইসলাম বলেন, বিষয়টা আমি ফেসবুকে দেখেছি। ঘটনার বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য ওসিকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আরো সংবাদ