ব্যয়বহুল হওয়ায় চাপে পড়বে সাধারণ আয়ের মানুষ - কক্সবাজার কন্ঠ । কক্সবাজারের মুখপত্র

মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০ ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মঙ্গলবার

প্রকাশ :  ২০২০-০১-২৯ ১৯:২৪:৪০

ব্যয়বহুল হওয়ায় চাপে পড়বে সাধারণ আয়ের মানুষ

নিজস্ব প্রতিবেদক: সরকার কক্সবাজার শহরকে ব্যয়বহুল ঘোষণা করায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে বেসরকারি সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে বেতন বৈষম্য বাড়ার পাশাপাশি ক্রয়-ক্ষমতাসহ সাধারণ মানুষের দৈনন্দিন জীবনযাত্রার ক্ষেত্রের বিরূপতার প্রভাব পড়বে এমনটি মন্তব্য কক্সবাজারের সচেতন মহলের। সরকারি এ ঘোষণার প্রেক্ষিতে প্রজ্ঞাপন জারি হওয়ায়, কক্সবাজার শহরে কর্মরত সরকারি চাকুরিজীবীদের বাড়ী ভাড়াসহ বিভিন্ন ধরণের সুযোগ-সুবিধা বাড়বে। গত সোমবার কক্সবাজার শহর বা পৌর এলাকাকে ব্যয়বহুল ঘোষণা দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে মন্ত্রি পরিষদ বিভাগ। এতে বলা হয়েছে, কক্সবাজার শহর বা পৌর এলাকায় নিত্যপ্রযোজনীয় জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধিসহ বাড়ী ভাড়া, যানবাহন ভাড়া, খাদ্য ও পোষাক সামগ্রীসহ অন্যান্য ভোগপণ্যের দাম বিবেচনায় কক্সবাজার শহরকে ব্যয়বহুল এলাকা হিসেবে ঘোষনা করা হয়েছে।

Advertisements

ইতিপূর্বে ব্যয়বহুল এলাকা ঘোষিত ঢাকাসহ অন্য এলাকাগুলোতে সরকারি সরকারি চাকুরিজীবীরা মূল-বেতনের ৫০ শতাংশ বাড়ী ভাড়াসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা পেয়ে থাকেন। এখন থেকে কক্সবাজারের চাকুরিজীবীরাও তা পাবেন। বর্তমানে এই হার ৪৫ শতাংশ। এছাড়া টিএ-ডিএসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধাও বাড়বে।
প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ঢাকায় অনুষ্ঠিত গত জেলা প্রশাসক সম্মেলনে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসকের দেয়া প্রস্তাবের ভিত্তিতেই মূলত এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

ওই সম্মেলনে জেলা প্রশাসক জানিয়েছিলেন, বাস্তুচ্যুত হয়ে মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গারা কক্সবাজারে আসার পর থেকে অসংখ্য দেশি-বিদেশি বিভিন্ন সংস্থা কাজ শুরু করে। এতে কক্সবাজারে থাকা-খাওয়ার খরচ বেড়ে গেছে। ফলে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপর আর্থিক চাপ পড়েছে। এসব বিবেচনায় কক্সবাজার শহর বা পৌর এলাকাকে ব্যয়বহুল ঘোষণার প্রস্তাব করেছিলেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন।
এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক বলেন, একে তো কক্সবাজার পর্যটন শহর অন্যদিকে রোহিঙ্গা সংকটের কারণে অসংখ্য দেশি-বিদেশি সংস্থা কাজ করছে। এতে বাসস্থান, যাতায়ত, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য ও ভোগপণ্যের দাম বৃদ্ধিসহ সর্বক্ষেত্রে প্রভাব পড়েছে। বাড়ীভাড়া বলতে গেলে প্রায় দ্বিগুণ, খাদ্য ও অন্যান্য পণ্যের দামও উর্ধ্বমুখী। এ নিয়ে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা আর্থিক চাপের মধ্যে রয়েছে।

Advertisements

পর্যটন ও রোহিঙ্গা সংকটসহ সার্বিক দিক বিবেচনায় সরকারের সংশ্লিষ্টদের কাছে এ ধরণের প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়েছিল বলে জানান জেলা প্রশাসক।
এদিকে কক্সবাজার শহরকে ব্যয়বহুল ঘোষণা দেয়ায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে বেসরকারি সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীরাসহ বিভিন্ন শ্রেনীপেশার মানুষের দৈনন্দিন জীবনযাত্রায়ও বিরূপ প্রভাব পড়বে বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় প্রতিনিধিত্বশীল ব্যক্তিবর্গ।
ব্যয়বহুল শহর ঘোষণার ফলে চাকুরিজীবীদের বেতন-ভাতা ও বাজারের উপর প্রভাব পড়বে বলে মন্তব্য করেন কক্সবাজার চেম্বার অব ইন্ড্রাস্ট্রিজের সভাপতি আবু মোর্শেদ চৌধুরী খোকা। তিনি বলেন, সরকারি এ ঘোষণার ফলে সরকারি ও বেসরকারি চাকুরিজীবীদের বেতন-ভাতার ক্ষেত্রে বৈষম্যের সৃষ্টি হবে। বর্তমানে দ্রব্যমূল্যের যে ধারা বিরাজমান তাতে অসাধু বা সুযোগ-সন্ধানী ব্যবসায়িরা ঘোষণাটিকে পুঁজি করে ফায়দা হাসিল করতে পারে। তিনি আরও বলেন, সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে। এ নিয়ে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে সাধারণ মানুষের ক্ষমতা কমে যাবে। সরকার যদি সাধারণ মানুষের কথা বিবেচনায় নিয়ে ঘোষণাটি দিয়ে থাকে তাহলে এটার একটি মেকানিজম প্রণয়ন করা দরকার বলে মন্তব্য করেন ব্যবসায়িদের এ নেতা।

জানাগেছে, বর্তমানে দেশের সাতটি বিভাগীয় শহর ছাড়াও কয়েকটি এলাকা সরকারি হিসেবে ব্যয়বহুল। সাত বিভাগীয় শহরগুলো হল, ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা, রাজশাহী, বরিশাল, রংপুর ও সিলেট। তবে ময়মনসিংহ বিভাগীয় শহর হলেও এখনো ব্যয়বহুল হিসেবে ঘোষণা আসেনি। এসব শহর ছাড়াও ঢাকার পার্শ্ববতী নারায়নগঞ্জ ও গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনসহ সাভার পৌর এলাকা সরকারি হিসেবে ব্যয়বহুল।

আরো সংবাদ