বড় রোহিঙ্গা সমাবেশে এনজিও’র উস্কানি ছিলো - Coxsbazarkontho.com | Newspaper

বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯ ১লা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বুধবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০৮-২৯ ১২:২৫:৫৭

বড় রোহিঙ্গা সমাবেশে এনজিও’র উস্কানি ছিলো

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার : দুই বছর পূর্তিতে রোহিঙ্গাদের বড় সমাবেশ নিয়ে কক্সবাজারের সর্বত্র তোলপাড় চলছে। এই সমাবেশকে অনেকেই বাংলাদেশের জন্য বড় হুমকি বা অশনি শংকেত হিসেবেই দেখছেন। সরকারের অনুমতি না নিয়ে এধরনের সমাবেশ স্থানীয় মহলকে রীতিমত ভাবিয়ে তুলেছে। কক্সবাজারের বিভিন্ন শ্রেণী মহলের বক্তব্যে উঠে এসেছে সমাবেশের প্রতিক্রিয়া।
সূত্র মতে, রোহিঙ্গা আগমনের দুই বছর পূর্তি উপলক্ষে উখিয়া-টেকনাফের ৩২টি ক্যাম্পে ছোট-বড় সমাবেশ হয়েছে। সমাবেশের প্রতিপাদ্য ছিল ‘গোয়িং হোম ক্যাম্পেইন’। সব চে’ বড় সমাবেশটি হয়েছে উখিয়ার কুতুপালং মধুরছড়া ক্যাম্পে। এই ক্যাম্পের সমাবেশে উপস্থিত ছিল ২০ হাজারের বেশী রোহিঙ্গা। মূলত: এই সমাবেশটির নেতৃত্ব দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও মিডিয়ার আলোচনায় চলে আসেন রোহিঙ্গা নেতা মুহিব্বুল্লাহ। এ প্রসঙ্গে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কক্সবাজার জেলা ইউনিট কমান্ডের সাবেক কমান্ডার মো: শাহজাহান বলেন, দেশী-বিদেশী একাধিক এনজিও’র প্রত্যক্ষ মদদে এধরনের সমাবেশ করতে পেরেছে রোহিঙ্গারা। ভবিষ্যতে বড় কিছু করতে পারে তারা। তাই এটা স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের জন্য হুমকিস্বরূপ। তিনি আরো বলেন, ‘রোহিঙ্গা’ নিয়ে শাপ নেওলে খেলা খেলছে চীন ও আমেরিকা। চীন চায় আরাকানকে নিজেদের করায়ত্বে নিতে। আমেরিকা চায় আরাকানে একটি খ্রিষ্টান ষ্ট্যাট হউক। ভাসারচরে রোহিঙ্গারা যেতে না চাওয়া এনজিওগুলোর ষড়যন্ত্র বলেও তিনি দাবী করেন। তিনি গুরুত্ব দিয়ে বলেন, রোহিঙ্গা সমাবেশের মধ্য দিয়ে এদেশে আইএসের পদধ্বনি শুনা যাচ্ছে।
এদিকে দুই বছর পূর্তিতে প্রত্যাবাসনের বিপরীতে রোহিঙ্গাদের মাঝে দিন দিন দ্বন্দ্ব সংঘাত সংঘটিত হচ্ছে। প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া বিলম্বিত হওয়ার পেছনে কিছু এনজিও সংস্থা এবং কিছু রোহিঙ্গা নেতাদের যোগসাজশ রয়েছে বলে বার-বার আলোচিত হচ্ছে। ফলশ্রুতিতে পর-পর দুইবার রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠাতে ব্যর্থ হয়েছে বাংলাদেশ সরকার। এমনিতে এনজিওগুলো রোহিঙ্গাদের মূল সহায়ক শক্তি হিসেবে দেখছেন দায়িত্বশীল পক্ষগুলো। এসব এনজিওই লাখ লাখ টাকা খরচ করে সমাবেশের জন্য প্ল্যাকার্ড, ব্যানার, ফেস্টুন, সাদা শার্ট আর গেনজি সরবরাহ করেছে, এমন অভিযোগও রয়েছে।

অপরদিকে ২৫ আগষ্টের রোহিঙ্গা সমাবেশে বাংলাদেশ সরকারকে পরোক্ষভাবে হুমকি দেয়া হয়েছে বলে মনে করে স্থানীয় মহল। এটা গভীর ষড়যন্ত্র বলে মত অনেকের। রোহিঙ্গারা পাঁচ দফা না মানলে বাংলাদেশ ছাড়বেনা বলেই সমাবেশে হুমকি দিয়ে রেখেছে। এমনকি রোহিঙ্গা নেতারা বলেছে, জোর করে ফেরত পাঠানোর পরিণাম ভালো হবে না। আর এই বিশাল সমাবেশ আয়োজনের পেছনে অর্থায়ন করেছে আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন আল কায়দার অর্থ যোগানদাতা পাকিস্তান ভিত্তিক সংস্থা আল খিদমত ফাউন্ডেশন! ইতোমধ্যে বিভিন্ন মিডিয়ায় খবরটি প্রচার হয়েছে।
স্থানীয়দের দাবী, আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস’র নেতারা তিন শতাধিক রোহিঙ্গাকে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ক্যাম্পে ছড়িয়ে দিয়েছেন। তারা ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, ভাইভারের মাধ্যমে মহা-সমাবেশের বার্তা পৌঁছে দিচ্ছে। কোথাও কোথাও মসজিদ, স্কুল ও ডিস্ট্রিভিউশন সেন্টারের মাইক দিয়ে আহ্বান করা হয়েছিল মধুরছড়া ক্যাম্পে জড়ো হতে। প্রশিক্ষিত ওই তিন শতাধিক সদস্যকে দিয়ে যেকোন কর্মকা- ঘটানো যাবে বলে আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। ইতোমধ্যে তাদের ঘরোয়া সভা-সমাবেশ নিয়মিত অনুষ্টিত হয়ে আসছে বলে ক্যাম্পের একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।
এদিকে টেকনাফের লেদা ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের জন্য দেশীয় তৈরি অস্ত্র সরবরাহ করতে যাচ্ছিলো বেসরকারী এনজিও সংস্থা মুক্তি। এমন খবরে ২৬ আগষ্ট সকালে উখিয়ার কোট বাজারের ভালুকিয়া সড়কের একটি কামারের দোকান থেকে দেশীয় অস্ত্রগুলো জব্দ করে উপজেলা প্রশাসন। সকাল ১১ টার দিকে উখিয়া উপজেলার সহকরী কমিশনার (ভূমি) ফখরুল ইসলামের নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালিত হয়। তবে তাৎক্ষনিক এসব অস্ত্রের সঠিক নাম ও পরিমাণ সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এদিকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বিতরনের জন্য বেসরকারী এনজিও সংস্থা মুক্তি এসব অস্ত্র তৈরী করতে দিয়েছিল বলে জানিয়েছেন কামার অধীর দাশ। এর আগে এসব অস্ত্রের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে স্থানীয়দের মাঝে ব্যাপক সমালোচনার ঝড় উঠে। তবে অভিযুক্ত এনজিও সংবাদ সম্মেলন করে এসব ধারালো অস্ত্র স্থানীয় কৃষকদের উপকরণ বলে দাবী করেছে।

এদিকে ২৫ আগস্ট সারাদিন সমাবেশের অনুমতি ছিল, সরকারের সব স্তরের কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে বলে দাবি রোহিঙ্গা নেতাদের। এ কথা জানান ‘আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস’-এর ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম মাষ্টার। তিনি বলেন, সমাবেশ আয়োজনের জন্য শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশন থেকে নিয়োজিত ক্যাম্প ইনচার্জের কাছ থেকে অনুমতি নেয়া হয়। সারাদিন সমাবেশ করার কথা ছিল। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, আমরা দুই ঘণ্টার বেশি সমাবেশ করতে পারিনি। কারণ, তীব্র গরমে অনেকে অসুস্থ, তাই সমাবেশ তাড়াতাড়ি শেষ করি।
রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সংগ্রাম কমিটির সাধারণ সম্পাদক পালংখালী ইউপি চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরী বলেন, সরকারের কোন সংস্থার অনুমতিহীন এতবড় বিশাল শোডাউন করেছে রোহিঙ্গারা। তাতে স্থানীয় অধিবাসীদের ভাবিয়ে তুলেছে। এতসব রোহিঙ্গা হিংস্রতায় রুপ নিতে পারে আশংকা করছি। সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) উখিয়ার সভাপতি সাংবাদিক নুর মোহাম্মদ সিকদার বলেন, রোহিঙ্গারা এমনিতেই সহিংস। নতুন করে বিশাল সমাবেশ উখিয়া-টেকনাফ বাসীকে ভাবিয়ে তুলেছে। তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে সরকারকে আরও কঠোর হতে হবে পাশপাশি অসাধু এনজিওগুলোর বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। তা না হলে প্রত্যাবাসন বাধাগ্রস্ত হবে। শীঘ্রই রোহিঙ্গাদের উপর নিয়ন্ত্রণ দাবী করছি।

আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস’র চেয়ারম্যান মাস্টার মুহিব উল্লাহ সংবাদকে বলেন, গণহত্যা দিবসে গণজমায়েত করা হয়েছিল মিয়ানমারকে জানান দিতে। অনুমতি নিয়ে সমাবেশ করেছি। স্থানীয়দের ওপর যেন প্রভাব না পড়ে তাই ক্যাম্পের ভেতরে সমাবেশ করেছি। শুধু ঐক্যবদ্ধ থেকে নিজেদের দাবি আদায়ের লক্ষ্যে আমাদের তিন শতাধিক কর্মী তৎপর থেকে সমাবেশের আয়োজন করেছে।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো: কামাল হোসেনের উদ্ধৃতি দিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী বলেন, রোহিঙ্গাদের অনাকাঙ্খিত গনজমায়েত নিয়ে জেলা প্রশাসকের সাথে বিস্তর আলোচনা হয়েছে। তিনি বলেছেন, এ নিয়ে উচ্চ মহলেও ব্যাপক আলোচনা চলছে। ইতিমধ্যে সেখানে ক্যাম্পে দায়িত্বরত সরকারী কর্মকর্তাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তলব করেছেন বলে তিনি জানান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক এনজিও কর্মকর্তা জানান, সমাবেশে রোহিঙ্গারা কি বলবে তা কয়েকদিন ধরে প্রত্যাবাসন বিরোধী কিছু এনজিও কর্মকর্তা তাদের শিখিয়েছেন।

স্থানীয়দের অভিযোগ, রোহিঙ্গারা আসার পর নিজেদের প্রভাব বিস্তারের জন্য নিজেদের ইচ্ছামতো সবকিছু করছে। সাড়ে ৮ হাজার হেক্টর বনাঞ্চলের পাশাপাশি দখলে নিয়েছে হাটবাজার। রোহিঙ্গাদের কারণে জায়গা মিলছে না গণপরিবহনেও। সবকিছু মিলিয়ে স্থানীয়রা চরম দুর্দশার মধ্যে পড়েছে। হুমকির মুখে পরিবেশ ও নিরাপত্তা।
টেকনাফ উপজেলা রোহিঙ্গা প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক কাইছার পারভেজ চৌধুরী বলেন, রোহিঙ্গাদের কারণে স্থানীয়রা কোণঠাসা। যত্রতত্র রোহিঙ্গাদের বিচরণের ফলে যাতায়াত, স্বাস্থ্য, শিক্ষার চরম ক্ষতি হচ্ছে। যত দ্রুত সম্ভব রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন করা জরুরি।

টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্প ভিত্তিক ইয়াবা সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছে। বর্তমানে যেসব চালান ধরা পড়ছে সবই আনছে রোহিঙ্গারা। মিয়ানমার বর্ডার কাছাকাছি হওয়ায় কিছুতেই তাদের থামানো যাচ্ছে না। পাশাপাশি অপরাধও বৃদ্ধি পেয়েছে।

কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন সংবাদকে বলেন, রোহিঙ্গাদের গণজমায়েত অহিংস ছিল। তবে আগামীতে এ ব্যাপারে আমাদের আরও সতর্ক থাকতে হবে।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের সেনা, বিজিপি, নাটালা বাহিনী ও রাখাইন জনগোষ্ঠীর নির্যাতনের মুখে নিজ দেশ ছেড়ে পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া শুরু করে এসব রোহিঙ্গা। উখিয়া ও টেকনাফে স্থানীয় লোকের সংখ্যা পাঁচ লাখের কিছু বেশি হলেও এই ২ থানায় বর্তমানে রোহিঙ্গার সংখ্যা ১২ লাখের বেশি।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
অক্টোবর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১