ভালোবাসা দিবসে উচ্ছ্বাসে মাতোয়ারা ভ্রমণকারীরা - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ১ মার্চ ২০২১ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০২-১৪ ১৫:০৫:৫৭

ভালোবাসা দিবসে উচ্ছ্বাসে মাতোয়ারা ভ্রমণকারীরা

কক্সবাজারে পর্যটকের ঢল : মানছে না স্বাস্থ্যবিধি

বিশেষ প্রতিনিধি : একদিকে বসন্ত, অন্যদিকে ভালোবাসা দিবস। এই খুশির সময় প্রিয়জনের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি করতে করোনা মহামারিতে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে ছুটে এসেছে ভ্রমণ পিপাসুরা। তারা সমুদ্রের ঢেউয়ে ঢেউয়ে মেতে উঠেছেন হাসি-গানে। আগত এই পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে দায়িত্ব পালন করছেন প্রশাসন।

১৪ ফেব্রুয়ারি বিকালে কক্সবাজার সৈকত পাড়ে ভালোবাসা দিবস পালন করতে ভিড় জমিয়েছেন লাখো মানুষ। সৈকতজুড়ে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। আর তাদের নিরাপত্তায় বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে লাইফ গার্ড ও ট্যুরিস্ট পুলিশ।
রোববার সকাল থেকেই সৈকতের ১০টি পয়েন্টে উচ্ছ্বাসে মাতোয়ারা ভ্রমণকারীরা। তারা সমুদ্রের নোনা জলে গা ভাসিয়ে প্রিয় জনের সাথে আনন্দ ভাগাভাগি করে ব্যস্ত সময় পার করছেন।

সী-সেইভ লাইফ গার্ডের ইনচার্জ রাশেদ আলম বলেন, আজকে বিশেষ দিন। তাই স্বাস্থ্য বিধি মেনে বাড়তি নিরাপত্তার জন্য সকাল থেকেই সব কয়টি পয়েন্টেই কাজ করছে লাইফ গার্ডের কর্মীরা।
কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের ওসি জানান, পর্যটকদের ভ্রমণ নির্বিঘ্ন করতে ট্যুরিস্ট পুলিশের পক্ষ থেকেও নেয়া হয়েছে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

পর্যটন সংশ্লিষ্টদের দেয়া তথ্যে জানা যায়, বসন্ত আর ভালোবাসা দিবস কেন্দ্র করে সাগরের নীল জলরাশি ও প্রকৃতির সৌন্দর্য উপভোগ করার কক্সবাজারে বেড়াতে এসেছেন লক্ষাধিক পর্যটক। শহরের ৪ শতাধিকের বেশি হোটেল-মোটেল ও রিসোর্টগুলোতে এখন ঠাঁই নেই অবস্থা।

পর্যটকরা সৈকতের লাবনী, সুগন্ধা, ইনানী, হিমছড়িসহ ৬টি পয়েন্ট ছাড়াও ভ্রমণ করেছেন, দরিয়ানগর, হিমছড়ি ঝর্ণা, রামুর বৌদ্ধ বিহার, রেডিয়েন্ট ফিশ ওর্য়াল্ড, মহেশখালীর আদিনাথ মন্দির, সোনাদিয়া ও সেন্টমার্টিনসহ বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান। পর্যটকদের সরব উপস্থিতিতে সমুদ্রের পাড় যেন উৎসবে পরিণত হয়েছে।

কক্সবাজার বেড়াতে আসা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তামান্না ফারিহা বলেন, ১৪ ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে আমরা বন্ধুরা গ্রুপ করে কক্সবাজার বেড়াতে এসেছি। এখানে না এলে বোঝা যাবে না এই জায়গা কতো সুন্দর। সমুদ্রের পাড়ে দাঁড়ালেই মনে একেবারে ভরে যায়।

লাবিব নামে ঢাকা থেকে আসা আরেক পর্যটক বলেন, একদিকে বসন্ত, অন্যদিকে ভালোবাসা দিবস। আর এই দিনটা সমুদ্রের পাড়ে কাটানোর জন্য স্ত্রী তাহিয়াকে সাথে নিয়ে তিনি হানিমুনে এসেছেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ট্যুরিস্ট পুলিশ) জানান, স্বাস্থ্য বিধি মেনে ভালোবাসা দিবস থেকে শুরু আগামী একুশে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বিপুল সংখ্যক পর্যটক কক্সবাজারে আসবেন। বিশেষ দিবসে আগত পর্যটকরা যেন কোনো ধরনের হয়রানি কিংবা দুর্ঘটনায় কবলে না পড়েন সেজন্য সব ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

পর্যটক জোনগুলোতে ট্যুরিস্ট পুলিশসহ অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন রয়েছে। এছাড়া পর্যটকদের তথ্য প্রদানের মাধ্যমে সেবা নিশ্চিত করা হচ্ছে।

আরো সংবাদ