ভালো আছেন সেন্টমার্টিনে আটকা পড়া পর্যটকরা - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সোমবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০২০-১০-২৩ ১৫:৩২:০২

ভালো আছেন সেন্টমার্টিনে আটকা পড়া পর্যটকরা

ভালো আছেন সেন্টমার্টিনে আটকা পড়া পর্যটকরা

নিউজ ডেস্ক  : প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি টেকনাফের সেন্টমার্টিন দ্বীপে আটকা পড়া চার শতাধিক পর্যটক ভালো আছেন। সেখানকার আবাসিক হোটেলগুলোতে নিরাপদে অবস্থান করছেন তারা।

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের কারণে সাগর উত্তাল থাকায় পর্যটন নগরী কক্সবাজারের সঙ্গে প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিনের নৌপথে যোগাযোগ এখনও বন্ধ রয়েছে। কক্সবাজার উপকূলীয় এলাকাকে তিন নম্বর সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে। এই বৈরী আবহাওয়ার কারণেই আটকা পড়েছেন ওই পর্যটকরা।

কক্সবাজার আবহাওয়া অফিসের প্রধান আবহাওয়াবিদ আব্দুর রহমান জানান, শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) ভোর ৬টা থেকে বিকাল তিনটা পর্যন্ত ১০০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। নিম্নচাপের প্রভাবে সাগর উত্তাল রয়েছে। এ কারণে কক্সবাজার উপকূলীয় এলাকাকে তিন নম্বর সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত সব ধরনের নৌযানকে উপকূলে নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।

বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড পূর্ব জোনের অপারেশন অফিসার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার মো. হাবিব সারাক্ষণ’কে বলেন, সেন্টমার্টিনে আটকা পড়া চার শতাধিক পর্যটক ভালো আছেন। সেখানকার আবাসিক হোটেলগুলোতে তারা নিরাপদে অবস্থান করছেন। আমরা তাদের ব্যাপারে সার্বক্ষণিক খোঁজ-খবর নিচ্ছি।

তিনি বলেন, বৈরী আবহাওয়ার কারণে তারা আটকা পড়েছেন। প্রতিবছরই এমন ঘটনা ঘটে। এটা নিয়ে উদ্বেগ-উৎকন্ঠার কিছু নেই। নিম্নচাপের প্রভাবে সাগর উত্তাল থাকায় কক্সবাজারের সঙ্গে সেন্টমার্টিনের নৌপথে যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। আশা করছি, দু’একদিনের মধ্যেই নিম্নচাপের প্রভাব কেটে যাবে। এরপর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে নৌপথে যোগাযোগ পুনরায় চালু হবে। তখন সেন্টমার্টিনে আটকা পড়া পর্যটকরা কক্সবাজারে ফিরে আসতে পারবেন।

একই প্রসঙ্গে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম সারাক্ষণ’কে বলেন, সেন্টমার্টিনে আটকা পড়া পর্যটকরা ভালো আছেন। তাদের যাতে কোনো সমস্যা না হয়, সেজন্য নজর রাখা হচ্ছে। সাগর উত্তাল থাকায় কক্সবাজারের সঙ্গে সেন্টমার্টিনের নৌপথে যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই তারা সেখান থেকে ফিরে আসবেন।

তিনি জানান, করোনা মহামারী শুরু হওয়ার পর থেকে সেন্টমার্টিনে যাতায়াতের জন্য টেকনাফ থেকে জাহাজ চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। গত ১ অক্টোবর থেকে সেন্টমার্টিনে যাতায়াতের জন্য কক্সবাজার থেকে কর্ণফুলী এক্সপ্রেস নামের একটি পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল শুরু হয়েছে। সাড়ে পাঁচশ’ যাত্রী নিয়ে কক্সবাজার-সেন্টমার্টিন নৌপথে যাতায়াত করতে পারে ওই পর্যটকবাহী জাহাজটি।

জানা গেছে, বৈরী আবহাওয়ার কারণে বিপাকে পড়েছেন সেন্টমার্টিনে ভ্রমণে যাওয়া পর্যটকরা। একদিকে, দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে কক্সবাজারের সঙ্গে সেন্টমার্টিনের নৌপথে জাহাজ চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আটকা পড়েছেন তারা, অন্যদিকে নিম্নচাপের কারণে ভারী বৃষ্টিপাত হওয়ায় সৈকতের ঘুরতে না পেরে হোটেলের মধ্যেই অলস সময় পার করতে হচ্ছে তাদের। সেন্টমার্টিনের হোটেল-মোটেল ও রিসোর্টগুলোতে তাদের সব ধরনের সুযোগ সুবিধার বিষয়ে পুলিশের নজরদারি রয়েছে বলে জানিয়েছেন সেন্টমার্টিন পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ তারেক মাহমুদ।সূত্র- সারাক্ষণ

আরো সংবাদ