ভাসানচরে পৌঁছেছে ২ হাজার ২৬০ জন রোহিঙ্গা - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১ ২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৩-০৩ ০৮:৩৬:০৩

ভাসানচরে পৌঁছেছে ২ হাজার ২৬০ জন রোহিঙ্গা

ভাসানচরে পৌঁছেছে ২ হাজার ২৬০ রোহিঙ্গা

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার : স্বেচ্ছায় উন্নত জীবনের আশায় স্বপ্রণোদিত হয়ে হাজার হাজার রোহিঙ্গা এখন ভাসানচর যেতে আগ্রহী হয়ে উঠেছে। তারই ধারাবাহিকতায় পঞ্চম দফায় আরও ৪ হাজার রোহিঙ্গা যাচ্ছে ভাসানচরে। এদের মধ্যে ২ হাজার ২৬০ জন ভাসানচরে পৌছেছে। বুধবার (৩ মার্চ) সকাল সাড়ে ১০টায় চট্টগ্রাম বোট ক্লাব থেকে তাদেরকে নিয়ে ভাসানচরের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে নৌ বাহিনীর ৬টি জাহাজ।

আজ দুপুরে তারা ভাসানচরে পৌছেছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট দপ্তর। আগামীকাল বৃহস্পতিবার আরও ২ হাজার রোহিঙ্গার ভাসানচরে যাওয়ার কথা রয়েছে।

এর আগে গতকাল (মঙ্গলবার) টেকনাফ ও উখিয়ার বিভিন্ন ক্যাম্প থেকে বাসযোগে রোহিঙ্গাদের এনে চট্টগ্রামের বিএএফ শাহীন কলেজের অস্থায়ী ক্যাম্পে রাখা হয়। তারা সেখানে রাত্রীযাপন শেষ আজ বুধবার ভাসানচরের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে।
এদিকে চট্টগ্রামস্থ পটিয়া মুজিব কানন মিড পয়েন্টে ভাসানচরে যাওয়া রোহিঙ্গাদের মাঝে বিফ্রিং করেন ১৫ আনাসার ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক আজিম উদ্দিন। তিনি জানান, রোহিঙ্গাদের মুজিব কানন ব্যাটালিয়ন আনসার সদস্যদের বিভিন্ন কৃষি উন্নয়ন মডেল কর্মসূচি দেখে তারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ভাসানচরে অপরাধমুক্ত জীবন যাপন, পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি গ্রহণ করে ছোট পরিবার গঠন, মাদক মুক্ত জীবন যাপন, কৃষি শাক সব্জি আবাদ পোল্ট্রি খামার মৎস্যচাষ খেলাধুলাসহ সার্বিক কৃষি উৎপাদনে অংশ নিয়ে বাংলাদেশ সরকারের আইন শৃংখলা মেনে চলবে।

ভাসানচরে যাওয়া রোহিঙ্গারা বলছেন, টেকনাফ-উখিয়ার ক্যাম্পগুলোতে বসবাসের তেমন সু-ব্যবস্থা না থাকায় স্বেচ্ছায় তারা ভাসানচরে যাচ্ছে। এর আগে তাদের যেসব আত্মীয়-স্বজন ভাসানচরে গেছেন তাদের সঙ্গে কথা বলে সেখানে যেতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

কক্সবাজার আরআরআরসি অফিস সূত্র জানিয়েছে, গত ১৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ৪ দফায় কক্সবাজারের ক্যাম্প থেকে ভাসানচরে স্থানান্তর করা হয়েছে ৯ হাজার ৫৪০ জন রোহিঙ্গা। প্রথম দফায় গত ৪ ডিসেম্বর ১ হাজার ৬৪২ জন রোহিঙ্গা স্বেচ্ছায় ভাসানচরে যান।

এরপর ২৯ ডিসেম্বর দ্বিতীয় ধাপে ১ হাজার ৮০৫ জন ও তৃতীয় ধাপে দুইদিনে ২৮ ও ২৯ জানুয়ারি ৩ হাজার ২০০ জন রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তর করা হয়। ১৪ ফেব্রুয়ারি ২ হাজার ১৪ জন ও ১৫ ফেব্রুয়ারি ৮৭৯ জন রোহিঙ্গা ভাসানচরের উদ্দেশ্যে যাত্রা করে।

এদিকে ৩ মার্চ সরেজমিনে দেখা যায়, কুয়াশার কারণে জাহাজ ছাড়তে কিছুটা দেরি হলেও রোহিঙ্গাদের মধ্যে ছিল না বিন্দুমাত্র ক্লান্তি। অনেকটা আনন্দ-উচ্ছ্বাস রয়েছে তাদের ওই ভাসানচর যাত্রায়।

এর আগে ২ মার্চ রাতে কক্সবাজার টেকনাফ এবং উখিয়া থেকে ৫০টির বেশি বাসে করে রোহিঙ্গাদের নগরীর পতেঙ্গা বিএফ শাহীন কলেজে আনা হয়। ৬টি জাহাজে করে রোহিঙ্গাদের এই যাত্রা তদারকি করতে বোট ক্লাব জেটিতে ছিলেন নৌবাহিনীর এরিয়া কমান্ডারসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

ভাসানচরের যাত্রী এসব রোহিঙ্গার দাবি, কক্সবাজারের আশ্রয় শিবিরগুলোতে ছিল তাদের দুর্বিষহ জীবন। এখন তারা বাংলাদেশ সরকারের আশ্বাসে উন্নত জীবনের আশায় ভাসানচরে যেতে আগ্রহী হয়েছেন।

আগের ৪ দফায় ১০ হাজার রোহিঙ্গা স্থানান্তর হয়েছে ভাসানচরে। সেখানে রোহিঙ্গাদের জীবন ধারণের জন্য সব রকমের ব্যবস্থা নিয়েছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী। সে সময় রোহিঙ্গাদের বিদায় জানাতে এসে সে কথা স্মরণ করিয়ে দিলেন চট্টগ্রাম নৌ-অঞ্চল কমান্ডার রিয়ার অ্যাডমিরাল এম মোজাম্মেল হক।

ক্যাম্পের একাধিক রোহিঙ্গা নেতা জানান, কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পের একাধিক গ্রুপের পক্ষ থেকে সাধারণ রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে যেতে রাজি না হওয়ার জন্য চাপ দেয়া হয়েছিলো। কিন্তু বর্তমানে সেই পরিস্থিতি ক্যাম্পে আর নেই। সরকারের কঠোর মনোভাব ও উদ্বাস্তুদের যেখানে ইচ্ছা, সরকার সেখানে রোহিঙ্গাদের রাখবে এ ঘোষণার পর উস্কানিদাতা স্বার্থান্বেষী মহল দূরে সরে এসেছে। ফলে রোহিঙ্গারা উন্নত জীবনের আশায় স্বেচ্ছায় ভাসানচরে যেতে তাদের নাম ঠিকানা জমা দিচ্ছেন নির্ভয়ে।

এ বিষয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা জানান, রোহিঙ্গাদের কারণে স্থানীয়দের মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে। পরিবেশের যা ক্ষতি হয়েছে, তা কখনও পুষিয়ে দেয়ার মতো নয়। বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়ে রোহিঙ্গারা ভিনদেশী আশ্রিত জাতিগোষ্ঠী হিসেবে বাস করেনি। কিছু সংখ্যক রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী গত সাড়ে ৩ বছরে মাদক, ডাকাতি, খুন, অপহরণ, লাশ গুমসহ চাঁদাবাজিতে জড়িয়ে পড়েছে।

ক্যাম্পে মাদক বিক্রি এবং মাদকের টাকার ভাগবাটোয়ারা নিয়ে ঘটেছে মারামারি খুনাখুনি। তাদের এসব কর্মকা- প্রতিরোধ, নজরদারি এবং রোহিঙ্গাদের নিজের দেশে ফেরত পাঠাতে কূটনৈতিক তৎপরতাসহ নানা উদ্যোগ হাতে নিয়ে সরকার এ পর্যন্ত ব্যাপক তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। রোহিঙ্গা সঙ্কটের সমাধান কবে হবে, তা কেউ জানে না!
ভাসানচরের আশ্রয় শিবিরে ১ লাখ রোহিঙ্গাকে সরিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। সেই লক্ষ্যে কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফ রোহিঙ্গা শিবির থেকে স্বেচ্ছায় যেতে ইচ্ছুক এসব রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে হস্তান্তর করা হচ্ছে।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে ৭ লাখ ৪১ হাজার ৮৪১ জন মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিক বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে। এদের মধ্যে থেকে ১ লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তরের পরিকল্পনা নেয় সরকার।

সরকারি তথ্য অনুযায়ী, রোহিঙ্গা স্থানান্তরের জন্য নিজস্ব তহবিল থেকে ৩ হাজার ৯৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ভাসানচর আশ্রয়ণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে সরকার। সেখানে এক লাখ রোহিঙ্গা বসবাসের উপযোগী ১২০টি গুচ্ছগ্রামের অবকাঠামো তৈরি করা হয়েছে। ভাসানচরের পুরো আবাসন প্রকল্পটি বাস্তবায়ন ও ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী।
বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে ১৩ হাজার একর আয়তনের ভাসানচরে ১২০টি অত্যাধুনিক পরিবেশবান্ধব গুচ্ছগ্রামের অবকাঠামো তৈরি করেছে নৌবাহিনী। রোহিঙ্গাদের জন্য বাসস্থান ছাড়াও বেসামরিক প্রশাসনের প্রশাসনিক ও আবাসিক ভবন, আইন প্রয়োগকারী সংস্থার ভবন, ধর্মীয় উপাসনালয়, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, চিকিৎসালয়, শিশুদের খেলার মাঠ ও বিনোদন স্পট গড়ে তোলা হয়েছে ভাসানচরে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছেন, এ পর্যন্ত ৪ দফায় ১০ হাজারের অধিক রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সেখানে যেতে আগ্রহ প্রকাশ করে অপেক্ষায় রয়েছে আরও ৫০ হাজার রোহিঙ্গা। উপরন্তু রোহিঙ্গাদের কারণে প্রতিনিয়ত স্থানীয়ভাবে নানা সঙ্কট ও সমস্যা জটিল আকার ধারণ করছে। মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গার সংখ্যা বর্তমানে প্রায় ১৪ লাখের বেশি।

তবে সরকারী হিসাব মতে, ২০২০ সালের ৫ আগষ্ট পর্যন্ত ১১ লাখ ১৮ হাজার ৫৭৬ জন। ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে ৭ লাখ ৪১ হাজার ৮৪১ জন নতুন করে রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে। এ ছাড়াও আশ্রয়প্রার্থী এতিম শিশু রয়েছে ৩৯ হাজার ৮৪১ জন।

কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলার রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে বছরে গড়ে জন্ম নিচ্ছে ৩০ হাজারেরও বেশি শিশু। বাংলাদেশের প্রায় ১০ হাজার একর বনভূমি ব্যবহার করছে আশ্রিত রোহিঙ্গারা।

আরো সংবাদ