ভাসানচরে যাচ্ছে আরও ৪ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১১ এপ্রিল ২০২১ ২৮শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

রবিবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৩-৩১ ১৪:৩৩:২০

ভাসানচরে যাচ্ছে আরও ৪ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা

ভাসানচরে যাচ্ছে আরও ৪ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা

বিশেষ প্রতিবেদক  :  ৬ষ্ঠ দফায় স্বেচ্ছায় কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফের বিভিন্ন রোহিঙ্গা শিবির থেকে আরও ৪ হাজারের বেশি রোহিঙ্গাকে নোয়াখালীর ভাসানচরে স্থানান্তর করা হচ্ছে। তাদের কক্সবাজার থেকে চট্টগ্রামে আনা হয়েছে। সেখান থেকে জাহাজে করে তাদের ভাসানচর নিয়ে যাওয়া হবে। এর আগে, পঞ্চম দফা পর্যন্ত ১৪ হাজার ২০০ জন রোহিঙ্গাকে কক্সবাজারের বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্র থেকে ভাসানচরে স্থানান্তর করা হয়েছে। এই কার্যক্রম ঘিরে, ব্যাপক নিরাপত্তার ব্যবস্থা নিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) দুপুরে কক্সবাজারের উখিয়ার ট্রানজিট পয়েন্ট থেকে ২ হাজার ৫৫৫ জন রোহিঙ্গাকে চট্টগ্রামে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বুধবারও (৩১ মার্চ) একই প্রক্রিয়ায় রোহিঙ্গাদের আরও একটি দল ভাসানচরের উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এ ২ দিনে মোট ৪ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা ভাসানচরের উদ্দেশ্য কক্সবাজার ক্যাম্প ত্যাগ করেছেন।

জানা গেছে, এবার ৬ষ্ঠ দফায় যারা ভাসানচর যাচ্ছে তাদের মধ্যে প্রায় ১৭০ পরিবার আছে যারা গত ২২ মার্চ উখিয়ার বালুখালীর রোহিঙ্গা শিবিরে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ।

কক্সবাজার ত্রাণ ও শরণার্থী প্রত্যাবাসন কার্যালয় সূত্র জানায়, মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) দুপুরে ৪৭টি বাসে করে ২ হাজার ৫৫৫ জন রোহিঙ্গাকে চট্টগ্রাম নিয়ে যাওয়া হয়েছে। রাতে তাদের চট্টগ্রামে বিএএফ শাহীন কলেজের অস্থায়ী ট্রানজিট ক্যাম্পে রাখা হয়েছে। বুধবার (৩১ মার্চ) সেখান থেকে তাদের নৌবাহিনীর ব্যবস্থাপনায় ভাসানচরে পৌঁছানোর কথা রয়েছে।

একইভাবে বুধবারও কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে আরও অন্তত ২ হাজার রোহিঙ্গাকে ভাসানচরের উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। সেখান থেকে আজ বৃহস্পতিবার তাদের ভাসানচরে নিয়ে যাওয়া হবে।

এদিকে চট্টগ্রামস্থ পটিয়া মুজিব কানন মিড পয়েন্টে ভাসানচরে যাওয়া রোহিঙ্গাদের মাঝে বিফ্রিং করেন ১৫ আনাসার ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক আজিম উদ্দিন। তিনি জানান, রোহিঙ্গাদের মুজিব কানন ব্যাটালিয়ন আনসার সদস্যদের বিভিন্ন কৃষি উন্নয়ন মডেল কর্মসূচি দেখে তারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ভাসানচরে অপরাধমুক্ত জীবন যাপন, পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি গ্রহণ করে ছোট পরিবার গঠন, মাদক মুক্ত জীবন যাপন, কৃষি শাক সব্জি আবাদ পোল্ট্রি খামার, মৎস্য চাষ ও খেলাধুলাসহ সার্বিক কৃষি উৎপাদনে অংশ নিয়ে বাংলাদেশ সরকারের আইন শৃংখলা মেনে চলবে ।

উল্লেখ্য, এর আগে, পঞ্চম দফা পর্যন্ত ১৪ হাজার ২০০ জন রোহিঙ্গাকে কক্সবাজারের বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্র থেকে ভাসানচরে স্থানান্তর করা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, ক্যাম্প ঘিরে রয়েছে বাজার নিয়ন্ত্রণ, মাদক কারবার, অস্ত্র কারবার ও আধিপত্যের লড়াই। অগ্নিকা-ে ঘরবাড়ি হারানোদের দাবি, এটি দুর্ঘটনা নয়, পরিকল্পিত ঘটনা।

এদিকে প্রতিনিয়ত অশান্ত হয়ে উঠেছে কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলো। ক্যাম্পে মাদক বিক্রি এবং মাদকের টাকার ভাগবাটোয়ারা নিয়েও ঘটেছে মারামারি খুনাখুনি। তাদের এসব কর্মকা- প্রতিরোধ, নজরদারি এবং রোহিঙ্গাদের নিজের দেশে ফেরত পাঠাতে কূটনৈতিক তৎপরতাসহ নানা উদ্যোগ হাতে নিয়ে সরকার ব্যাপক তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে ৭ লাখ ৪১ হাজার ৮৪১ জন মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিক বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে। এদের মধ্যে থেকে ১ লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তরের পরিকল্পনা নেয় সরকার। ইতোমধ্যে বিভিন্ন ধাপে প্রায় ১৪ হাজারের অধিক রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সেখানে যেতে আগ্রহ প্রকাশ করে অপেক্ষায় রয়েছে আরও ৫০ হাজার রোহিঙ্গা।

উপরন্তু রোহিঙ্গাদের কারণে প্রতিনিয়ত স্থানীয়ভাবে নানা সঙ্কট ও সমস্যা জটিল আকার ধারণ করছে। মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গার সংখ্যা বর্তমানে প্রায় ১৪ লাখের বেশি।

কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলার রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে বছরে গড়ে জন্ম নিচ্ছে ৩০ হাজারেরও বেশি শিশু। বাংলাদেশের প্রায় ১০ হাজার একর বনভূমি ব্যবহার করছে আশ্রিত এ রোহিঙ্গারা।

 

আরো সংবাদ