ভূঁয়া মালিককে ক্ষতিপূরণ দিতে তৎপর ভূমি সিন্ডিকেট, আদালতে মামলা - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ১২ আগস্ট ২০২০ ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৭-২৪ ১৮:১০:৫১

ভূঁয়া মালিককে ক্ষতিপূরণ দিতে তৎপর ভূমি সিন্ডিকেট, আদালতে মামলা

পিবিআই অফিস অধিগ্রহণের ২ শতক জমির ক্ষতি পূরণের টাকা না দিতে আদালতের নির্দেশ

বার্তা পরিবেশক : পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এর অফিসের জন্য অধিগ্রহণকৃত জমির মধ্যে ২ শতক জমির ক্ষতিপূরণের টাকা প্রদান না করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।
জমির প্রকৃত মালিককে বাদ দিয়ে একটি চক্র এলএ অফিসে ভূয়া কাগজপত্র দেখিয়ে ২ শতক জমির টাকা উত্তোলন করে পকেট ভারী করার খবর পেয়ে কক্সবাজার শহরের সৈকতপাড়ার মৃত নুরুল কবিরের ছেলে আলহাজ্ব নুরুল আলম বাদী হয়ে ২১/০৭/২০২০ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব)সহ ৮ জনকে বিবাদী করে বিজ্ঞ যুগ্ন জেলা জজ ১ম আদালত কক্সবাজারে এ মামলা অপর মোকদ্দমা-১৪৭/২০২০ দায়ের করলে আদালত উক্ত আদেশ প্রদান করেন।

ভূমি এলএ ০৪/২০১৮-২০১৯ মামলার ১নং রোয়েদাদ মূলে ঝিলংজা মৌজার বিএস ১৭০৫০ দাগের জমি আন্দর অধিগ্রহণের রোয়েদাদ বর্ণিত উক্ত ২ শতক জমির অধিগ্রহণের ক্ষতিপূরণের টাকা উত্তোলন না করার ৬ থেকে ৮নং বিবাদী এবং ১-৫ নং বিবাদীগণকে ক্ষতিপূরণের টাকা প্রদান না করার জন্য ১-৮নং বিবাদী গংকে নির্দেশ প্রদান করা হবে না মর্মে নোটিশ প্রাপ্তির ২০ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর জন্য উক্ত বিবাদীগণ আদালত নির্দেশ প্রদান করেন। বাদী নুরুল আলম গং জানান, উক্ত তপশীলের সৃজিত বিএস ৭০০৭নং খতিয়ানের বিএস ১৭০৫০ দাগের ২শতক জমি পিবিআই অফিসের জন্য অধিগ্রহণ করে।

নিয়ম অনুযায়ী ক্ষতিপূরণের টাকা আসে ৪৪ লক্ষ ৫৫ হাজার প্রায়। উক্ত টাকার জন্য ভূমি অধিগ্রহণ শাখায় আবেদনের পর গেল ৮ মাস টাকা দেয়ার নাম করে অদ্যবধি টাকা দেয়নি। শেষ পর্যায়ে ভূয়া খতিয়ান সৃজন করে নুরুল হক এবং মো ইদ্রিস গংকে টাকা দেয়ার পাঁয়তারা করে আসছে ভূমি অফিস শাখার কর্মকর্তা শামীমসহ একটি সিন্ডিকেট। তারা মোটা অংকের কমিশনের মাধ্যমে প্রকৃত জমির মালিককে ক্ষতিপূরণের টাকা না দিয়ে ভূয়া কাগজ সৃজনকারীদের উক্ত টাকা দেয়ার পাঁয়তারা করায় তাদের বিরুদ্ধে ২১ জুলাই উক্ত মামলা দায়ের করি।

তিনি আরও জানান, অধিগ্রহণের ২ শতক জায়গায় আমার বসত ঘর রয়েছে। পাশাপাশি চারদিকে ঘেরাবেড়াও রয়েছে। এ জমির প্রকৃত মালিক নরুল আলম গং। অথচ  ১১৫৭৬, ১১৬৩২ ও ১২৯৮২ এই ৩ টি জাল খতিয়ান সৃজিত করে একটি পক্ষ এল এ শাখা থেকে টাকা উত্তোলনের জন্য নানান পাঁয়তারা চালিয়ে আসছে। তাই আমি নিরুপায় হয়ে আইন আদালতের আশ্রয় নিয়েছি।

ওই মামলায় আদালত উক্ত বিবাদী ৮ জনের বিরুদ্ধে আগামী ২১ অক্টোবর প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ উপস্থিত হতে আদালত নির্দেশ দেয় এবং উক্ত ২ শতক জায়গার ক্ষতিপূরণের টাকা বন্ধ রাখতেও নির্দেশ প্রদান করে আদালত। মামলার অপরাপর আসামীরা মো. ইদ্রিস সিআইপি, সৈকতপাড়া, কলাতলী, দিদারুল আলম চৌধুরী, সাইফুল ইসলাম চৌধুরী, খালেদা বেগম চৌধুরানী, রুমালিয়ারছড়া, এড. মো: নুরুল হক, দক্ষিণ বাহারছড়া, ডেপুটি কমিশনার কক্সবাজার, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) এবং ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা, কক্সবাজার।

আরো সংবাদ