ভূমিমন্ত্রী কক্সবাজারে : অ্যাকশন দেখার অপেক্ষায় ভুক্তভোগীরা - কক্সবাজার কন্ঠ । জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল

শুক্রবার, ৩ এপ্রিল ২০২০ ২০শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০২-২২ ২০:৫২:১৫

ভূমিমন্ত্রী কক্সবাজারে : অ্যাকশন দেখার অপেক্ষায় ভুক্তভোগীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক: কক্সবাজার এসেছেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী। পূর্ণমন্ত্রী হয়ে এবারসহ সম্ভবত দুই বা তিনবার আনুষ্ঠনিক সফরে কক্সবাজার আসলেন। তবে মন্ত্রীর এবারের আসাটা একটু ভিন্ন চোখে দেখা হচ্ছে! কেননা প্রায় এক কোটি ঘুষের টাকাসহ এক সার্ভেয়ার আটকের ঘটনাটি নিয়ে কক্সবাজারে গত চারদিন ধরে তোলপাড় চলছে। এমনকি বিষয়টি জাতীয়ভাবে বেশ আলোচনা এসেছে। তাই এই ঘটনার বিষয়ে ‘অ্যাকশন’ নিতে ভূমিমন্ত্রী কক্সবাজার এসেছে বলে মনে করছে অনেকে। মন্ত্রীর এই আসা নিয়ে একটি ‘অ্যাকশন দেখার অপেক্ষায় রয়েছেন ভুক্তভোগীরা।

Advertisements

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ভূমি মন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী টেকনাফের সাবরাং ট্যুরিজম পার্কে অনুষ্ঠানরত ৫ দিন ব্যাপী ন্যাশনাল কমিউনিটি বেইজ স্কাউট ক্যাম্প উদ্বোধন করেছেন। আজ ২৩ ফেব্রুয়ারী সকাল সাড়ে ১০ টায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের শহীদ এটিএম জাফর আলম সিএসপি সম্মেলন কক্ষে জেলা আইনশৃংখলা কমিটির বিশেষ সভায় এবং বেলা ১২ টায় জেলা রাজস্ব সম্মেলনে তিনি প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন।

জানা গেছে,শনিবার কক্সবাজারের এসেছেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী। তিনি এসেই গতকাল আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের সাথে এক মতবিনিময় সম্পন্ন করেছেন। দলীয় সভা হলেও সেখানে ভূমি অধিগ্রহণ শাখার ঘুষ-দুর্নীতি কথা বলেছেন। সেখানে তিনি ঘুষের টাকাসহ সার্ভেয়ার আটকসহ ভূমি অধিগ্রহণে দুর্নীতির বিষয়ে কঠোরভাবে কথা বলেছেন।

তিনি বলেছেন পর্যটন শিল্পের জন্যে গুরুত্বপূর্ণ কক্সবাজারসহ দেশের কোথাও ভূমি অধিগ্রহণ কার্যক্রমে কোন ধরণের অনিয়ম সহ্য করা হবে না। কারণ উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে ভূমি অধিগ্রহণ অপরিহার্য। যারা ভূমি অধিগ্রহণে দুর্নীতি করেছে তারা এক অর্থে দেশের উন্নয়ন কর্মকান্ড বাধাগ্রস্ত করছে। তারা জনগণের শত্রু।

Advertisements

তিনি বলেছেন, পূর্বের যেকোনো সময় থেকে ক্ষতিপূরণ প্রদান প্রক্রিয়া অনেক স্বচ্ছ হয়েছে। জনগণ এর সুফল পাচ্ছে। আমরা অনলাইনের মাধ্যমে ভূমি অধিগ্রহণের ক্ষতিপূরণ প্রদানের ব্যবস্থা করছি। এছাড়া বাড়ি বাড়ি গিয়ে অধিগ্রহণের ক্ষতি পূরণের অর্থ প্রদানের কাজ ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে।
অভিযোগ রয়েছে, মহেশখালীতে ১৫টির বেশি কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিমার্ণ করছে সরকার। একই সাথে অর্থনৈতিক অঞ্চলসহ আরো কয়েকটি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। এসব উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য মহেশখালী থেকে ১৫ হাজার একরের মতো জমি অধিগ্রহণ করছে সরকার। কিন্তু শুরু থেকেই এসব প্রকল্পের জমি অধিগ্রহণের টাকা ছাড়ে ব্যাপক দুর্নীর্তি করে সংশ্লিষ্টরা। বাধ্যতামূলকভাবে ১৫ থেকে ৩০% কমিশন (ঘুষ) কেটে নেয়া হয়েছে। একই সাথে ভুয়া প্রকল্প বানিয়ে হাতিয়ে নেয়া হয়েছে প্রকৃত মালিকের টাকা। এভাবে এলও কানুনগো, সার্ভেয়ার ও দালালচক্র মিলে কয়েক হাজার কোটি টাকা।

এদিকে ঘুষের ৯৪ লাখ টাকাসহ সার্ভেয়ার ওয়াসিম আটকের ঘটনার পর আকস্মিক ভূমিমন্ত্রীর কক্সবাজার আসাকে ভিন্নভাবে দেখছেন ভুক্তভোগীরা। তারা ভূমিমন্ত্রীর এই সফরে জমি অধিগ্রহণ নিয়ে চলমান দুর্নীতি রোধ এবং দুর্নীতকে হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া দুর্নীতিবাজ চক্রের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেবেন- এমন প্রত্যাশা করেন ভুক্তভোগীরা।

আরো সংবাদ