ভূমিহীনদের তালিকায় বহিরাগত প্রভাবশালীরা - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

প্রকাশ :  ২০২১-০২-০৪ ১২:৪০:০৫

ভূমিহীনদের তালিকায় বহিরাগত প্রভাবশালীরা

ভূমিহীনদের তালিকায় বহিরাগত প্রভাবশালীরা!

# পুনর্বাসনের আওতায় অনেক বহিরাগত # সমতলে জায়গা মিলছে টাকার বিনিময়ে # জনপ্রতিনিধি-ভূমি অফিসের কর্মচারী ও সিন্ডিকেটের কারসাজি

নিউজ ডেস্ক : কক্সবাজার শহরের পশ্চিম বাহারছড়া এলাকা থেকে পুনর্বাসনের আওতায় আসা ৪২২ জনের মধ্যে অনেকেই বহিরাগত। ওই এলাকায় ঘরবাড়ি না থাকলেও ঘরবাড়ির অস্তিত্ব দেখিয়ে তারা পেয়েছেন জমি এবং ঘর তৈরির জন্য নগদ টাকা। এক পরিবারের প্রত্যেক সদস্য, এমনকি অবিবাহিত তরুণীও জমি বরাদ্ধ পেয়েছেন।

ক্ষতিগ্রস্তরা জানান, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতা, ভূমি অফিসের কর্মচারী ও এক শ্রেণীর দালাল সিন্ডিকেটের কারসাজিতে এ অনিয়ম সংগঠিত হয়েছে। কক্সবাজার সদরের খুরুশকুলের হামজার ডেইল এলাকায় পুনর্বাসিতদের জমি মেপে দেয়া ও বন্টনের কাজটি করছেন একটি চক্র।

সমতলে জমি পাওয়ার জন্য গুনতে হচ্ছে টাকা। টাকা কম পেলে জায়গায় হচ্ছে পাহাড়ে। ওই টাকা ভাগবাটোয়ারা করেন জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতা, ভূমি অফিসের কর্মচারী ও এক শ্রেণীর দালালরা। এর আগে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা তৈরির সময়ও অনেকের কাছ থেকে টাকা করে আদায় করা হয়েছে।

খুরুশকুলে পুনর্বাসনের জন্য নির্ধারিত এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, চারদিকে পাহাড়ে, ঢালুতে গড়ে তোলা হচ্ছে নতুন ঘরবাড়ি। ক্ষতিগ্রস্তরা নিজ উদ্যোগে সেইসব ঘরবাড়ি গড়ে তুলছে। আগে থেকে সেখানে পয়নিস্কাশনের কোন সুবিধাও নিশ্চিত করা হয়নি।

ক্ষতিগ্রস্তরা বলছেন, তালিকায় শহরের অন্য এলাকা থেকে হঠাৎ ‘উড়ে এসে জুড়ে বসা’ লোকের সংখ্যা দুইশর বেশি। কেউ প্রভাব খাটিয়ে, কেউ অনৈতিক সুবিধার বিনিময়ে তালিকায় নাম লিখিয়েছেন। এতে বঞ্চিত হয়েছেন প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত অনেকেই। অনেকের বাড়ি থাকলেও ক্ষতিপূরণ হিসেবে এখনও পর্যন্ত তারা জমি বা নগদ টাকা কোনটাই পাননি।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকায় বিভিন্ন এলাকার ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে রাজনৈতিক দলেরকর্মী, স্থানীয় জনপ্রতিনিধির স্বজন, ভূমি অফিসের কর্মচারীর স্বজন, এমনকি সাংবাদিকও রয়েছেন।

পশ্চিম বাহারছড়ার বাসিন্দা হিসেবে পুনর্বাসনের আওতায় খুরুশকুলের হামজার ডেইল এলাকায় জমি বরাদ্দ পেয়েছেন শহরের ঘোনারপাড়া এলাকার বাসিন্দা, পোনা ব্যবসায়ী ফরিদুল আলম। যদিও ঘোনার পাড়ায় একটি টিনশেড ভবনে তার পরিবারের বসবাস। পশ্চিম বাহারছড়ায় কখনোই তার বাড়ি ছিল না।

ফরিদুল ইতোপূর্বে ভূমিহীন হিসেবে কক্সবাজার সদরের শুকনা ছড়িতেও পুনর্বাসনের আওতায় জায়গা পেয়েছেন এবং খুরুশকুল আশ্রয়ণ প্রকল্পে ফ্ল্যাট বরাদ্ধ পেয়েছেন। ঘর না থাকলেও পুনর্বাসনের আওতায় জমি বরাদ্ধ পেয়েছেন ভূমি অফিসের কর্মচারী হিসেবে পরিচয় দেয়া শাহাব উদ্দিনের ২ ভাই নাসির উদ্দিন ও নুরুল আলম। হোটেল শৈবালের সামনের ইসমাইল্যাপাড়া এলাকায় বসবাসরত মুদির দোকানদার হাবিবুর রহমান এবং রং মিস্ত্রি জাহাঙ্গীরও জমি বরাদ্ধ পেয়েছেন খুরুশকুলে। এছাড়া ২ জন সাংবাদিকও জমি বরাদ্ধ পেয়েছেন।

অনুসন্ধানে এমন এক পরিবারের সন্ধান পাওয়া গেছে, যে পরিবারের সাত সদস্যের নামেই জমি বরাদ্ধ হয়েছে। এমনকি ওই পরিবারের অবিবাহিত তরুনীর নামেও। হাবিবুর রহমান প্রকাশ হাবিব মাঝির স্ত্রী সবে মেহেরাজ, ছেলে মো. ইউনুচ, মোহাম্মদ ইলিয়াছ, রফিক উদ্দিন, মো. সাগর, অবিবাহিত কন্যা শাহিনা আকতার হিমা, বিবাহিত কন্যা রোজিনা আকতার রোজি প্রত্যেকেই পৃথকভাবে জমি বরাদ্দ পেয়েছেন। এরকম আরও অনেক পরিবারের সদস্যরা পৃথক জমি বরাদ্ধ পেয়েছেন বলে জানাগেছে।

অভিযোগ পাওয়া গেছে, হাবিবুর রহমান প্রকাশ হাবিব মাঝির ছেলে ইলিয়াস প্রভাব খাটিয়ে সবচেয়ে ভাল জায়গায় জমিও বরাদ্ধ পেয়েছেন। রাস্তার পাশেই বড় জায়গায় তার টিনশেড বাড়ি নির্মাণের কাজ প্রায় শেষ হওয়ার পথে ।

ঘোনারপাড়ায় বাড়িঘর থাকা সত্বেও পশ্চিম বাহারছড়ার বাসিন্দা হিসেবে জায়গা বরাদ্ধ পাওয়া ফরিদুল আলম বলেন, ‘পশ্চিম বাহারছড়ায় আমার পোনা ব্যবসার তিনটা অফিস ছিল। তাই আমাকে খুরুশকুলের জায়গা দেয়া হয়েছে। আমাকে দু’টো প্লট দেয়ার কথা ছিল। ইতোমধ্যে একটি প্লট বুঝে পেয়েছি। আরেকটা প্লট নেয়ার চেষ্টা করছি।

শুকনাছড়ি এবং খুরুশকুল আশ্রয়ণ প্রকল্পে কিভাবে জায়গা ও ফ্ল্যাট বরাদ্ধ পেয়েছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যেখানে যেখানে আমার জায়গা-জমি ছিল সেখান থেকে উচ্ছেদ করার কারণে আমাকে ওইসব জায়গায় পুনর্বাসন করা হয়েছে।

খুরুশকুলে পুনর্বাসিত এলাকায় সমতলে জায়গা বরাদ্ধ পাওয়া একই পরিবারের সাত সদস্যের একজন মোহাম্মদ ইলিয়াছ বলেন, আমার পরিবারের ৬ সদস্য জায়গা পেয়েছে। এখনও আমার এক বোনের জামাই পায়নি। আমার আব্বাও জায়গা পায়নি।’ তবে বোন শাহিনা আকতার হিমা অবিবাহিত হয়েও জায়গা বরাদ্ধ পাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন ইলিয়াছ।
পশ্চিম বাহারছড়ায় ঘরবাড়ি থেকে পুনর্বাসন কার্যক্রম থেকে বাদ পড়ার কথা জানিয়েছেন স্বামী পরিত্যাক্তা নারী আমেনা খাতুন (৪৮)। এক মেয়ে ও নাতিকে নিয়ে কষ্টে দিন কাটছে তাঁর। তিনি বলেন, শুনেছিলাম পুনর্বাসনের তালিকায় আমার নাম এসেছে। কিন্তু জমি বরাদ্ধ পাইনি, টাকাও পাইনি।

পার্শ্ববর্তী অনেকেই পেয়েছে, এমনকি বাইরের লোকজনও জমি বরাদ্দ পেয়েছে। সেখানে ঘর তৈরির জন্য টাকাও পেয়েছে ৩০ হাজার করে। আমার কি দোষ? এখন আমাদের উচ্ছেদ করা হলে কোথায় যাবো? পুনর্বাসন না করলে আমার লাশের উপর দিয়ে আমার বাড়ি উচ্ছেদ করতে হবে।

প্রায় একই অভিযোগের কথা জানিয়েছেন ওই এলাকার ফরিদ আলমের ছেলে মো. রুবেল। তিনি বলেন, আমরা ১৪-১৫ বছর ধরে এই এলাকায় বসবাস করছি। আমাদের ঘরবাড়ি আছে। ৩ ভাই ও দুই বোনসহ এখানে আমাদের বসবাস। কিন্তু আমার পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়নি। বাইরে লোকজনও এখানকার বাসিন্দা দেখিয়ে জমি পেয়েছে, টাকা পেয়েছে। আমরা কেন পাবো না? কেন আমরা তালিকার বাইরে-এ বিষয়ে কারও কাছে কোন সদুত্তর পাচ্ছি না।

রোজিনা আকতার বলেন, বহু বছর ধরে আমরা এই এলাকায় বসবাস করছি। এক সন্তান নিয়ে আমি বহুকষ্টে এখানে দিন কাটাচ্ছি। এখন এই এলাকার সবাইকে উচ্ছেদ করা হচ্ছে, তাদের পুনর্বাসনও করা হচ্ছে। কিন্তু সেই তালিকায় আমার নাম নেই। এখন আমার ঘরবাড়ি উচ্ছেদ করা হলে সন্তানকে নিয়ে রাস্তায় নামা ছাড়া গতি থাকবে না।

ভূমিহীনদের তালিকা প্রস্তুত ও তালিকার নানা অসঙ্গতির বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয় কাউন্সিলর নূর মোহাম্মদ মাঝু বলেন, এই তালিকা তৈরিতে আমরা কোনভাবেই সম্পৃক্ত ছিলাম না। তালিকা করেছে ভূমি অফিস। তালিকায় ওই বাইরের কোনো লোক আছে কিনা আমার জানা নেই। তবে পুনর্বাসনের আওতায় আসা লোকজনকে খুরুশকুলে জায়গা ভাগ করে দেয়ার দায়িত্ব আমাকে দেয়া হয়েছে। আমি সম্পূর্ণ সচ্ছতার সাথে জায়গাগুলো ভাগ করে দেয়ার চেষ্টা করছি। এক্ষেত্রে কোনো অনিয়ম হয়নি।

কক্সবাজার সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নু-এ মং মারমা বলেন, আমি মাসখানেক আগে যোগদান করেছি। তাই কিভাবে ওই তালিকা তৈরি করা হয়েছে তা আমার জানা নেই। তালিকার বিষয়ে কারও কোন অভিযোগ থাকলে আমাদের জানাতে পারে। আমরা অবশ্যই এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেব।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ আমিন আল পারভেজ বলেন, প্রায় এক বছর আগে জনপ্রতিনিধিরা ৪২২ জনের এই তালিকা করেছেন। ওখানে ভূমিহীনদের জায়গা বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। তারা জায়গা বরাদ্ধ পেয়েছেন ঠিক। কিন্তু এখনো তাদের কাগজপত্র দেয়া হয়নি। কাগজপত্র দেয়ার সময় যদি দেখা যায়, ভূমিহীন নয় এমন কেউ জায়গা পেয়েছে তবে তাদের উচ্ছেদ করা হবে।

পূনর্বাসনের তালিকায় বাদপড়া লোকজনের বিষয়ে কি পদক্ষেপ নেয়া হবে এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমরা আপাতত তালিকাভুক্ত ৪২২ জনকে নিয়ে ভাবছি। কেউ বাদ পড়ে থাকলে তাদের বিষয়ে পরে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। তবে সেখানে কেউ অবৈধভাবে থাকতে পারবে না। কেউ জোর করে থাকতে চাইলে বুলডোজার দিয়ে উচ্ছেদ করা হবে।

এদিকে কক্সবাজার সচেতন মহল মনে করেন ৪২২ জনের তালিকাটি প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। এ বিষয়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে তালিকাটি আরও অধিক যাচাই-বাচাই করা প্রয়োজন। আর জায়গা ভাগ বন্টনের ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ দালালমুক্ত রাখার জন্য প্রশাসনের প্রতি তারা হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। সূত্র- দৈনিক কক্সবাজার ।

আরো সংবাদ