মহেশখালীতে কমিউনিটি ক্লিনিক সেন্টার নামে ঔষধ ব্যবসা বন্ধ করা জরুরী - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১ ৬ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-১১-২৩ ০০:১৮:১৩

মহেশখালীতে কমিউনিটি ক্লিনিক সেন্টার নামে ঔষধ ব্যবসা বন্ধ করা জরুরী

মহেশখালীতে কমিউনিটি ক্লিনিক সেন্টার নামে ঔষধ ব্যবসা বন্ধ করা জরুরী

সাদেক হোসাইন তৈয়ব : করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত হয়ে মানুষ একটা নতুন জীবন পাবার আকাক্ষাই আছে। তবে সে প্রত্যাশাটা দিবাস্বপ্নতে পরিণত হচ্ছে ক্রমশ।

কারন,কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে মানুষ বাঁচার জন্য প্রথমেই যায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বা গ্রাম ভিত্তিক কমিউনিটি ক্লিনিক গুলোতে। কিন্তু দুঃখের বিষয় এই পরিস্থিতিতেও থেমে নেই দুর্নীতি!

এই কঠিন পরিস্থিতিতে কক্সবাজারের মহেশখালীতে থেমে নেই গ্রাম ভিত্তিক কমিউনিটি ক্লিনিক গুলোতে দুর্নীতি। প্রতিনিয়ত চলতেছে ঔষধ ব্যবসা।
ভুক্তে হচ্ছে অসহায় দরিদ্রদের। যাদের ঔষধ কেনার টাকা না থাকায় বাধ্য হয়ে যেতে হচ্ছে কমিউনিটি ক্লিনিক গুলোতে। কিন্তু সেখানে গিয়েও ফিরে আসতে হই টাকা না থাকায়।

আমার কথা হচ্ছে যেখানে বিনা মূল্যে ঔষধ দেয়ার কথা, সেখানেই কেন টাকার অভাবে ফিরে আসতে হবে সাধারণ জনগনের৷
তাহলে কি ক্লিনিক গুলো তাদের জন্য নয়?

যে ক্লিনিক গুলো জনগনের জন্য নির্মিত। যেখানে জনগনের সুরক্ষার জন্য বাংলাদেশ সরকার কোটি কোটি টাকা ব্যয় করছে।জনগনের সুরক্ষার জন্য বাজেটে স্বাস্থ্য খাতের জন্য একটা বড় অংশ বরাদ্দ করা হয়।
সেখানে কেন কমিউনিটি ক্লিনিক গুলোতে গিয়ে টাকা দিয়ে ঔষধ কিনতে হবে?
ঔষধ কি ফার্মাসিতে পাওয়া যায় না?
কিছু টাকা বাঁচানোর জন্য যারা অনেক দূর থেকে ক্লিনিক গুলোতে যায়,তাদের কেন টাকার জন্য ফিরে আসতে হবে?

বাংলাদেশের কোনো স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে বা সংবিধানে কি লিখা আছে প্রতিটি ঔষধের পাতা বা প্রতিটি ট্যাবলেটের জন্য ৫ টাকা করে দিতে হবে। যে যত বেশি টাকা নিয়ে যাবে তাকে ইচ্ছা মত ঔষধ দেয়া হবে?
প্রতি জন থেকে অন্তত ৫ টাকা নেয়া যায়। কিন্তু দুঃখজনক প্রতিটি ঔষধের পাতার জন্য দিতে হচ্ছে ৫ টাকা (যেমন আমি ৩ ধরনের ভিন্ন ভিন্ন ঔষধ নিলাম, সো আমাকে ১৫ টাকা দিতে হবে)
যদি এই রকম কোন কিছু লিখা না থাকে তাহলে,তাদের এত সাহস কিভাবে আসল?কে বা কারা দিচ্ছে এই সাহস? তাদের পিছনে কাদের হাত আছে?
এরা জনগণের হক মেরে দিয়ে জনগণের সাথে অন্যায় করছে নানাভাবে দিনের পর দিন। তবে এদের বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষ লড়াই করার সাহস পায় না। কারন ক্ষমতা আর প্রভাবপত্তির কারনে তাদের কাছে জিম্মি ‘গনতান্ত্রিক’ শব্দটি। বর্তমান বাংলাদেশ অবকাঠামোগতভাবে উন্নয়নশীল দেশ। কিন্তু এখনও মানুষের মৌলিক চাহিদাগুলো ন্যায্য ভাবে পূরণ হচ্ছে না। সামাজিক নিরাপত্তা পদে পদে হোঁচট খাচ্ছে দূর্নীতির কারনে। যা করোনা কালে দৃশ্যমান।

মুখ বুঝে সইয়ে যাওয়া মানুষরা এখন এ দুর্নীতি মানতে নারাজ। তারা চায় একটা দুর্নীতি মুক্ত বাংলাদেশে৷ তাই প্রতিবাদ করছে সরকারের কোটি কোটি টাকা লুটপাটকারীদের বিরুদ্ধে। তবে সাধারণ জনগণের চেয়ে দুর্নীতিবাজরা অনেক বেশি শক্তিশালি। এর অন্তরালের কারন মানুষের কাছে কেবল প্রশ্নবোধক চিহ্ন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ছিলেন সোচ্চারিত। তাই তিনি তার শেষ ভাষণে দুর্নীতি দমনে জনগণকে সজাগ হতে বলতে গিয়ে বড় আপসোস করে বলেছিলেন – এত চোরের চোর, এই চোর যে কোথা থেকে পয়দা হয়েছে তা জানি না। পাকিস্তান সব নিয়ে গেছে কিন্তু এই চোর তারা নিয়ে গেলে বাঁচতাম। এই চোর রেখে গেছে। কিছু দালাল গেছে, চোর গেলে বেঁচে যেতাম।

আমি প্রশাসনের কাছে বিনীতভাবে অনুরোধ জানাচ্ছি যে এর বিরুদ্ধে যত শীঘ্রই ব্যবস্থা নেয়া হোক।
অন্যতাই,জনগন একবার জেগে উঠলে তাদের থামানো অসম্ভব হয়ে উঠবে। আমি এব্যাপারে কর্তৃপক্ষকে দায়িত্বশীল ভুমিকা পালন করার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি।
তরুন লেখক সাদেক হোসাইন তৈয়ব মহেশখালীর কৃতি সন্তান এবং একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী, রামু সরকারি কলেজ, রামু, কক্সবাজার।

আরো সংবাদ