মহেশখালীতে নিখোঁজ গৃহবধূর লাশ স্বামীর আঙ্গিনার গর্ত থেকে উদ্ধার - কক্সবাজার কন্ঠ

মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-১০-১৭ ২২:২৭:২৪

মহেশখালীতে নিখোঁজ গৃহবধূর লাশ স্বামীর আঙ্গিনার গর্ত থেকে উদ্ধার

মহেশখালীতে নিখোঁজ গৃহবধূর খোঁজ মেলেনি

নিজস্ব প্রতিবেদক : ৫ দিন পর ছয়দিনের মাথায় কক্সবাজারের মহেশখালীতে নিখোঁজ হওয়া গৃহবধূ আফরোজা বেগমের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ১৭ অক্টোবর রাত সাড়ে ১০টার দিকে পুলিশ স্বামী রাকিব হাসান বাপ্পীর বাড়ির আঙিনায় পুঁতে রাখা অবস্থায় লাশটি উদ্ধার করে। নিহত আফরোজার বড়ভাই মিজানুর রহমান ঘটনাস্থল থেকে এ তথ্য জানান। মহেশখালী উপজেলার কালারমারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ জহির উদ্দীনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ দেহটি উদ্ধার করে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় মহেশখালী সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার ও থানার ওসি।
স্থানীয়দের দেয়া তথ্য মতে, উপজেলার উত্তর নলবিলার আওয়ামী লীগ নেতা হাসান বশিরের দ্বিতীয় স্ত্রীর ছেলে ও বদরখালী কলেজের প্রভাষক রাকিব হাসান বাপ্পীর সাথে হোয়ানক পুঁইছড়ার মো: ইসহাকের মেয়ে আফরোজার বেগমের ৯ মাস আগে বিয়ে হয়। এটি দুইজনেরই দ্বিতীয় বিয়ে ছিলো। এর মধ্যে আফরোজার স্বামী মারা যায় আর বাপ্পী নিজে স্ত্রীকে তালাক দেন। কিন্তু আফরোজার বিয়ের পর নতুন করে তালাক দেয়া স্ত্রীর সাথে বাপ্পীর যোগাযোগ শুরু হয়। এ নিয়ে দাম্পত্য জীবনে কলহ শুরু হয়। এতে বাঁধা দেয়ায় আফরোজাকে স্বামীসহ পরিবারের লোকজন অমানুষিক নির্যাতন করতো। এ ঘটনায় আদালতে মামলাও রয়েছে। এর মধ্যে ১২ অক্টোবর হঠাৎ করে নিখোঁজ হয় আফরোজা। কিন্তু তার নিখোঁজের সাথে সাথে পালিয়ে যায় স্বামী রাকিব হাসান বাপ্পী। এরপর থেকে আফরোজার পরিবারের লোকজন বিভিন্নভাবে খোঁজাখুঁজি শুরু করে। কিন্তু তার কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। অবশেষে নিরুপায় হয়ে তারা মহেশখালী থানার ওসির কাছে যায়। ওসি কালারমারছড়া ফাঁড়ির পুলিশকে দায়িত্ব দিলেও তারা অবহেলা করেছে বলে অভিযোগ করে আফরোজার বড়ভাই মিজান। এই ঘটনা ধামাচাপা দিতে বাপ্পীর ভগ্নিপতি শহীদুল ইসলাম কাজল বেশ দৌঁড়াদৌড়ি করছে। তিনি ফাঁড়ির পুলিশকে ম্যানেজ করেছে বলেও অভিযোগ নিহতের ভাই মিজানের। এদিকে গত শুক্রবার কয়েকজন লোক নিয়ে খোঁজ করতে গেলে ফাঁড়ির কনস্টেবল হাসান নিহতের বড় ভাই মিজানকে পিস্তল ধরে ভয়ভীতি দেখায় বলেও দাবি করে মিজান।
মহেশখালী থানার ওসি জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। পাশাপাশি জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।
এদিকে এ হত্যার সাথে বাপ্পীর মা রোকেয়া হাসানসহ পরিবারের লোকজন জড়িত বলে বিভিন্ন লোকমুখে প্রকাশ পাচ্ছে।

আরো সংবাদ