মহেশখালীতে বির্তকিত ভূমি কর্মচারীদের নামে পাওয়ার অফ অ্যাটর্নি সম্পাদন! - Coxsbazarkontho.com

শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০৯-০৯ ২০:৫৫:৩৩

মহেশখালীতে বির্তকিত ভূমি কর্মচারীদের নামে পাওয়ার অফ অ্যাটর্নি সম্পাদন!

মোহাম্মদ আবু তাহের  ও আ ন ম হাসান: কক্সবাজারের মহেশখালী-কক্সবাজার সদরের কর্মরত ভূমি মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ বির্তকিত ৩ কর্মচারী নিয়ে নানা অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় কক্সবাজার জেলাজুড়ে ব্যাপক সমালোচনা চলছে। জানাগেছে, কক্সবাজার সদর ভূমি অফিসের এমএলএসএস হাসেমের আপন ভাই আবু তাহের, কক্সবাজার এলও অফিসের সার্ভেয়ার কবির, মহেশখালী ভূমি অফিসের কানুনগো (ভারপ্রাপ্ত) আব্দুর রহমানের সিন্ডিকেট মিলে মহেশখালীতে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে রাতের আধাঁরে সাব রেজিষ্ট্রারকে ম্যানেজ করে পাওয়ার অফ অ্যাটর্নি সম্পাদন করেছেন।ভূমি মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ কর্মচারি হয়েও তাদের প্রকৃত পরিচয় গোপন রেখে এহেন ন্যাক্কারজনক কর্ম দিব্যি চালিয়ে যাচ্ছে সিন্ডিকেটটি৷ এ বিষয়ে বিভিন্ন মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশিত হলে, উক্ত সিন্ডিকেট মামলা, হামলার ভয় দেখিয়ে কূল করতে না পেরে মিডিয়ার মুখ বন্ধ করতে মোটা অংকের টাকা নিয়ে মাঠে নেমেছে।
অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে উক্ত সিন্ডিকেটের কোটি কোটি টাকার জালিয়াতির কথা। সরেজমিনে বিভিন্ন তথ্য উপাত্তের আলোকে জানা যায়, বিগত ২৩ জানুয়ারী সম্পাদিত ১৩১ নং দলিল মূলে বেরিয়ে আসে চাঞ্চল্যকর জালিয়াতির কথা। প্রসংগত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ভূমি মন্ত্রণালয় বাংলাদেশ সচিবালয় ঢাকা ২২-১১-২০১৮ ইং এর পরিপত্রে উল্লেখ্য যে, মহেশখালী উপজেলার অমাবশ্যাখালী, হেতালীয়া, ধলঘাটা,মাতারবাড়ি, দিনেশপুর,ঘটিভাঙ্গা মৌজা সমূহের ভূমি জরিপ কার্যক্রম শেষে উপরোক্ত মৌজায় চুড়ান্ত গেজেট প্রকাশের পর স্বত্বলিপি ভলিউম হস্তান্তর করা হয়। ঐ স্বত্ব লিপির উপর ভিত্তি করে নামজারী জমাভাগ ভূমি উন্নয়ন কর আদায় করে প্রকৃত কার্যক্রম হস্তান্তরিত স্বত্বলিপি মোতাবেক সদয় অবগতি ও পরবর্তী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা থাকলেও ভূমি মন্ত্রণালয়ের আদেশকে বৃদ্ধ আঙ্গুল দেখিয়ে মহেশখালী সাব রেজিষ্টার অফিসের যোগসাজশে হোয়ানক ইউনিয়নের আমাবশ্যাখালী মৌজার ৩৩ শতক, হেতালিয়া মৌজার ২০ শতক মিলে মোট ৫৩ শতক জমি উক্ত সিন্ডিকেটের নামে পাওয়ার অফ এটর্নি নেয়।
অপরদিকে ২৪ জানুয়ারী ইং তারিখে সম্পাদিত ১৪৩ নং দলিল মূলে জানা যায, হোয়ানক ইউনিয়নের হোয়ানক মৌজার ২৬ শতক জমি কক্সবাজার সদর ভূমি অফিসের এমএলএসএস আবুল হাশেমের আপন ভাই আবু তাহেরের নামে সম্পাদন করে। হাস্যকর বিষয় যে, ১৩১ নং দলিলে আবু তাহেরের ঠিকানা ঢাকার গাজিপুরে দেখানো হলেও ১৪৩ নং দলিলে ঠিকানা উল্লেখ করা হয়েছে কক্সবাজার সদরে, এবং উভয় দলিলে পিতার নামে মৃত ও জীবিত দেখানো হয়েছে। উভয় দলিলে এলও অফিসের সার্ভেয়ার কবির ও মহেশখালী ভূমি অফিসের কানুনগো (ভারপ্রাপ্ত) আব্দুর রহমানের নামও উল্লে করা হয়েছে।
২৩ জানুয়ারী তারিখে সম্পাদিত ১২৬নং দলিল মূলে জানা যায়, উপজেলার হোয়ানক ইউনিয়নের হোয়ানক মৌজার ৩৯ শতক জমি পরিচয় গোপন রেখে কক্সবাজার সদর ভূমি অফিসের এমএলএসএস আবুল হাশেমের নামে করে নেয়। ১২৬ নং দলিল মোতাবেক কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এওয়ার্ড নং- ২০১, ২৩৫ এলএ মামলা নং-০৪/২০১৩-১৪ ইং এর রোয়েদাদ নং- ৭০,৭১,২৭ মূলে উল্লেখ আছে যে, স্থাবর সম্পত্তির অধিগ্রহণ ও হুকুম দখল অধ্যাদেশ আইন এর অন্তর্ভুক্ত হলে আপনারা পাওয়ার গ্রহীতাগণ আমরা পাওয়ার দাতাগণের পক্ষ হয়ে ক্ষতিপূরণের চেক বা টাকা উত্তোলন করতে পারবেন। দলিলাদি পর্যালোচনায় আরো দেখা যায়, কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এলএ মামলা নং ০৪/২০১৩-১৪ ইং এর রোয়েদাদ নং যথাক্রমে – ২১, ১৮ ও ০৪,০৫,০৬ মূলে উল্লেখ আছে যে, স্থাবর সম্পত্তির অধিগ্রহণ ও হুকুম দখল অধ্যাদেশ আইন এর অন্তর্ভুক্ত হলে আপনারা পাওয়ার গ্রহীতাগণ আমরা পাওয়ার দাতাগণের পক্ষ হয়ে ক্ষতিপূরণের চেক বা টাকা উত্তোলন করিতে পারবেন মহেশখালী সচেতন নাগরীকের স্বাভাবিকভাবে প্রশ্ন থেকে যায়, সরকারি কর্মচারী হয়ে পরিচয় গোপন রেখে নিজেদের নামে পাওয়ার অফ এটর্নি নিতে পারে কিনা!
মহেশখালী উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি অংগ্যজাই মার্মাকে বিষয়টি দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, এ প্রসংগে আমি কিছু জানি না। অভিযোগের আলোকে তদন্ত পূর্বক উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে দোষিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
সেপ্টেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০