মহেশখালীর শতবছর বয়সী ভোলা ডাক্তার আর নেই - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সোমবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৯-১৪ ১৫:৫১:২৩

মহেশখালীর শতবছর বয়সী ভোলা ডাক্তার আর নেই

আমিনুল হক আমিন, মহেশখালী থেকে : কক্সবাজারের মহেশখালী পৌরসভার গোরকঘাটা বাজারের প্রবীণ চিকিৎসক শতবছর বয়সী ডাঃ ভবরঞ্জন শর্মা (ভোলা ডাক্তার) পরলোক গমন করেছেন। তিনি ১৪ সেপ্টেম্বর সোমবার বিকাল ৪টা ৩৬ মিনিটে গোরকঘাটা দক্ষিন হিন্দু পাড়ার নিজ বাস ভবনে পরলোক গমন করেন।
মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল প্রায় শতবছর। ১৫ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সকাল ১০টায় পারিবারিক শ্মশানে তাঁর অন্তোষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন হবে বলে জানিয়েছেন তাঁর পুত্র রাজেশ খান্না শর্মা। মৃত্যুকালে তিনি ৫ জন ছেলে ও ৫ জন মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন এবং গুণগ্রাহী রেখে যান। তাঁর বড় ছেলে ডাঃ দিলীপ শর্মাও একজন মহেশখালী পৌরসভার গোরকঘাটা বাজারের প্রখ্যাত হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক। ডাঃ ভোলা বাবু ছিলেন সমগ্র মহেশখালীর পরিচিত মুখ। জীবদ্দশায় তিনি ছিলেন একজন সদালাপী মানুষ ও মানবিক গুণের অধিকারী। সকল সম্প্রদায়ের শ্রদ্ধাভাজন ব্যক্তি ছিলেন ডাঃ ভোলা বাবু। তিনি একজন স্বর্ণ পদক প্রাপ্ত হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক। তিনি ব্রিটিশ পিরিয়ডে দার্জিলিং নৈইনিতাল হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ থেকে এইচএমবিতে স্বর্ণ পদক পেয়েছিলেন। তাঁর একজন মেয়ে আমেরিকা প্রবাসী হওয়ায় তিনি আমেরিকাও গিয়েছিলেন। ওখানে নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করলে তাঁকে সম্মান দেখিয়ে বয়োবৃদ্ধ কালেও
আমেরিকার নাগরিকত্বও দেওয়া হয়। তিনি ঐতিহাসিক আদিনাথ মন্দির সংস্কার কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবং গোরকঘাটা বাজারস্থ শ্রী শ্রী কালি মন্দির পরিচালনা কমিটির দীর্ঘদিন সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তিনি আজীবন অসাম্প্রদায়িক ধর্মপরায়ন মানবিক লোক ছিলেন। একজন ধর্মীয় বক্তাও ছিলেন। এছাড়াও তিনি গোরকঘাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জমি দাতা ছিলেন। তিনি ছিলেন একজন আজীবন অজাতশ্রুত। আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর ‘২০২০ ইং সুদ্ধিস্নান ( ক্ষৌরকর্ম) ও ২৪ সেপ্টেম্বর বিষ্যুদবার আদ্যশ্রাদ্ধ অনুষ্ঠিত হবে বলে তাঁর পারিবারিক সূত্র নিশ্চিত করেন।
Hide quoted text
ছবিসহ
মহেশখালীর শতবছর বয়সী ভোলা ডাক্তার আর নেই
জসিম সিদ্দিকী কক্সবাজার : কক্সবাজারের মহেশখালী পৌরসভার গোরকঘাটা বাজারের প্রবীণ চিকিৎসক শতবছর বয়সী ডাঃ ভবরঞ্জন শর্মা ( ভোলা ডাক্তার) পরলোক গমন করেছেন। তিনি ১৪ সেপ্টেম্বর সোমবার বিকাল ৪টা ৩৬ মিনিটে গোরকঘাটা দক্ষিন হিন্দু পাড়ার নিজ বাস ভবনে পরলোক গমন করেন।
মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল প্রায় শতবছর। ১৫ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সকাল ১০টায় পারিবারিক শ্মশানে তাঁর অন্তোষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন হবে বলে জানিয়েছেন তাঁর পুত্র রাজেশ খান্না শর্মা। মৃত্যুকালে তিনি ৫ জন ছেলে ও ৫ জন মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন এবং গুণগ্রাহী রেখে যান। তাঁর বড় ছেলে ডাঃ দিলীপ শর্মাও একজন মহেশখালী পৌরসভার গোরকঘাটা বাজারের প্রখ্যাত হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক। ডাঃ ভোলা বাবু ছিলেন সমগ্র মহেশখালীর পরিচিত মুখ। জীবদ্দশায় তিনি ছিলেন একজন সদালাপী মানুষ ও মানবিক গুণের অধিকারী। সকল সম্প্রদায়ের শ্রদ্ধাভাজন ব্যক্তি ছিলেন ডাঃ ভোলা বাবু। তিনি একজন স্বর্ণ পদক প্রাপ্ত হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক। তিনি ব্রিটিশ পিরিয়ডে দার্জিলিং নৈইনিতাল হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ থেকে এইচএমবিতে স্বর্ণ পদক পেয়েছিলেন। তাঁর একজন মেয়ে আমেরিকা প্রবাসী হওয়ায় তিনি আমেরিকাও গিয়েছিলেন। ওখানে নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করলে তাঁকে সম্মান দেখিয়ে বয়োবৃদ্ধ কালেও
আমেরিকার নাগরিকত্বও দেওয়া হয়। তিনি ঐতিহাসিক আদিনাথ মন্দির সংস্কার কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবং গোরকঘাটা বাজারস্থ শ্রী শ্রী কালি মন্দির পরিচালনা কমিটির দীর্ঘদিন সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তিনি আজীবন অসাম্প্রদায়িক ধর্মপরায়ন মানবিক লোক ছিলেন। একজন ধর্মীয় বক্তাও ছিলেন। এছাড়াও তিনি গোরকঘাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জমি দাতা ছিলেন। তিনি ছিলেন একজন আজীবন অজাতশ্রুত। আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর ‘২০২০ ইং সুদ্ধিস্নান ( ক্ষৌরকর্ম) ও ২৪ সেপ্টেম্বর বিষ্যুদবার আদ্যশ্রাদ্ধ অনুষ্ঠিত হবে বলে তাঁর পারিবারিক সূত্র নিশ্চিত করেন।

আরো সংবাদ