মার্চের শুরুতে ৫ম দফায় ভাসানচরে যাচ্ছে রোহিঙ্গারা - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১১ এপ্রিল ২০২১ ২৮শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০২-২৫ ১৪:২৪:১৬

মার্চের শুরুতে ৫ম দফায় ভাসানচরে যাচ্ছে রোহিঙ্গারা

মার্চের শুরুতে ৫ম দফায় ভাসানচরে যাচ্ছে রোহিঙ্গারা

বিশেষ সংবাদদাতা : মার্চের শুরুতে কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে উন্নত জীবনের আশায় ৫ম দফায় স্বেচ্ছায় আরও সাড়ে ৩ হাজার রোহিঙ্গা ভাসানচরে যাচ্ছেন। ইতোমধ্যে তাদের নাম ঠিকানা ক্যাম্প ইনচার্জ বরাবরে জমা দিয়েছেন। সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জানাগেছে, রোহিঙ্গারা স্ব-স্ব ক্যাম্প ইনচার্জের মাধ্যমে তাদের নামের তালিকা জমা দিয়ে ভাসানচরে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এবারে ৫ম দফায় ভাসানচরে যাচ্ছেন আরও সাড়ে ৩ হাজার রোহিঙ্গা।

ক্যাম্পের একাধিক নেতা জানান, কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পের একাধিক গ্রুপের পক্ষ থেকে সাধারণ রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে যেতে রাজি না হওয়ার জন্য চাপ দেয়া হয়েছিলো। কিন্তু বর্তমানে সেই পরিস্থিতি ক্যাম্পে আর নেই। সরকারের কঠোর মনোভাব ও উদ্বাস্তুদের যেখানে ইচ্ছা, সরকার সেখানে রোহিঙ্গাদের রাখবে এ ঘোষণার পর উস্কানিদাতা স্বার্থান্বেষী মহল দূরে সরে এসেছে। ফলে রোহিঙ্গারা উন্নত জীবনের আশায় স্বেচ্ছায় ভাসানচরে যেতে তাদের নাম ঠিকানা জমা দিচ্ছেন নির্ভয়ে।

এ বিষয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা জানান, রোহিঙ্গাদের কারণে স্থানীয়দের মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে। পরিবেশের যা ক্ষতি হয়েছে, তা কখনও পুষিয়ে দেয়ার মতো নয়। বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়ে রোহিঙ্গারা ভিনদেশী আশ্রিত জাতিগোষ্ঠী হিসেবে বাস করেনি। কিছু সংখ্যক রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী গত সাড়ে ৩ বছরে মাদক, ডাকাতি, খুন, অপহরণ, লাশ গুমসহ চাঁদাবাজিতে জড়িয়ে পড়েছে।

ক্যাম্পে মাদক বিক্রি এবং মাদকের টাকার ভাগবাটোয়ারা নিয়ে ঘটেছে মারামারি খুনাখুনি। তাদের এসব কর্মকা- প্রতিরোধ, নজরদারি এবং রোহিঙ্গাদের নিজের দেশে ফেরত পাঠাতে কূটনৈতিক তৎপরতাসহ নানা উদ্যোগ হাতে নিয়ে সরকার এ পর্যন্ত ব্যাপক তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। রোহিঙ্গা সঙ্কটের সমাধান কবে হবে, তা কেউ জানে না!
ভাসানচরের আশ্রয় শিবিরে ১ লাখ রোহিঙ্গাকে সরিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। সেই লক্ষ্যে কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফ রোহিঙ্গা শিবির থেকে স্বেচ্ছায় যেতে ইচ্ছুক এসব রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে হস্তান্তর করা হচ্ছে ।
২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে ৭ লাখ ৪১ হাজার ৮৪১ জন মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিক বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে। এদের মধ্যে থেকে ১ লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তরের পরিকল্পনা নেয় সরকার।

সরকারি তথ্য অনুযায়ী, রোহিঙ্গা স্থানান্তরের জন্য নিজস্ব তহবিল থেকে ৩ হাজার ৯৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ভাসানচর আশ্রয়ণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে সরকার। সেখানে এক লাখ রোহিঙ্গা বসবাসের উপযোগী ১২০টি গুচ্ছগ্রামের অবকাঠামো তৈরি করা হয়েছে। ভাসানচরের পুরো আবাসন প্রকল্পটি বাস্তবায়ন ও ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী।
বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে ১৩ হাজার একর আয়তনের ভাসানচরে ১২০টি অত্যাধুনিক পরিবেশবান্ধব গুচ্ছগ্রামের অবকাঠামো তৈরি করেছে নৌবাহিনী। রোহিঙ্গাদের জন্য বাসস্থান ছাড়াও বেসামরিক প্রশাসনের প্রশাসনিক ও আবাসিক ভবন, আইন প্রয়োগকারী সংস্থার ভবন, ধর্মীয় উপাসনালয়, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, চিকিৎসালয়, শিশুদের খেলার মাঠ ও বিনোদন স্পট গড়ে তোলা হয়েছে ভাসানচরে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছেন, এ পর্যন্ত ৪ দফায় ১০ হাজারের অধিক রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সেখানে যেতে আগ্রহ প্রকাশ করে অপেক্ষায় রয়েছে আরও ২০ হাজার রোহিঙ্গা। উপরন্তু রোহিঙ্গাদের কারণে প্রতিনিয়ত স্থানীয়ভাবে নানা সঙ্কট ও সমস্যা জটিল আকার ধারণ করছে। মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গার সংখ্যা বর্তমানে প্রায় ১৪ লাখের বেশি।

তবে সরকারী হিসাব মতে, ২০২০ সালের ৫ আগষ্ট পর্যন্ত ১১ লাখ ১৮ হাজার ৫৭৬ জন। ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে ৭ লাখ ৪১ হাজার ৮৪১ জন নতুন করে রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে। এ ছাড়াও আশ্রয়প্রার্থী এতিম শিশু রয়েছে ৩৯ হাজার ৮৪১ জন।

কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলার রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে বছরে গড়ে জন্ম নিচ্ছে ৩০ হাজারেরও বেশি শিশু। বাংলাদেশের প্রায় ১০ হাজার একর বনভূমি ব্যবহার করছে আশ্রিত রোহিঙ্গারা।

আরো সংবাদ