মালিকানা বিরোধের মামলা থাকার পরও ক্ষতিপূরণের চেক হস্তান্তরের অভিযোগ - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ১৫ জুলাই ২০২০ ৩১শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৫-১৩ ১৮:০২:২৬

মালিকানা বিরোধের মামলা থাকার পরও ক্ষতিপূরণের চেক হস্তান্তরের অভিযোগ

নিউজ ডেস্ক :  কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ (এলএ) শাখা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) ও পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) কার্যালয় নির্মাণে অধিগ্রহণ করা বিরোধীয় জমির চেক বিতরণ করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। একাধিক অভিযোগ বিচারাধীন থাকার পরও ইতিমধ্যে তিন কিস্তির চেকে প্রায় ১৫ কোটি টাকার ছাড়ও দেয়া হয়েছে।

জমির অংশীদার নয়, এমন ব্যক্তিকেও অদৃশ্য কারণে ক্ষতিপূরণ দেয়া হয়েছে অভিযোগ করে বাকি টাকার চেকগুলো মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ধরে রাখার ব্যবস্থা করতে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) চেয়ারম্যান, ভূমিমন্ত্রী, ভূমি মন্ত্রণালয়ের সচিব, চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার ও কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন দিয়েছে ক্ষতিগ্রস্ত জমির অংশীদার ও দাবিকারকরা।

অভিযোগকারীরা হলেন- কক্সবাজার পৌরসভার উত্তর রুমালিয়ারছরার মরহুম আমান উল্লাহ চৌধুরীর ছেলে আজম মোবারক উল্লাহ চৌধুরী, দিদারুল আজম চৌধুরী, খালেদা বেগম চৌধুরী, আকলিমা বেগম চৌধুরী ও কলাতলীর সৈকতপাড়ার হাজী ছালেহ আহমদের ছেলে শফিউল্লাহ।

তারা বলছেন, পিবিআই ও সিআইডির কক্সবাজার কার্যালয় নির্মাণের জন্য এলএ মামলা নম্বর-০৪/২০১৮-২০১৯ মূলে ৪ নম্বর রোয়েদাদে কক্সবাজারের ঝিলংজা মৌজার আরএস ১৯৫০ খতিয়ানের আরএস ৮০০৪/৮৯২১ দাগের বিএস ২০৩০৭ নম্বর দাগের শূন্য দশমিক ৭৫ একর জমি অধিগ্রহণ করে। আরএস ১৯৫০ খতিয়ানের আরএস ৮০০৪/৮৯২১ দাগের ৬ একর ৪০ শতক জমি অছিউদ্দিনের ছেলে আবদুল হাকিমের স্বত্ব দখলীয় জমি ছিল। তার মৃত্যুর পর এমআরআর ২০৪৮ খতিয়ান ও ১৯৬৩ সালের ২৩ জুলাইয়ের ২৮৭৭ রেজিস্ট্রি অংশনামা, একই বছরের ২৩ সেপ্টেম্বর ৩৪৩২ কবলা ও ২৮ সেপ্টেম্বরের ৩৪৮৭ কবলা দলিল এবং ১৯৭০ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি ১১০৭ রেজিস্ট্রি কবলা দলির মূলে আরএস ১৯৫০ খতিয়ানের ৮০০৪/৮৯২১ দাগের ৬ একর ৪০ শতক জমির মালিক হন অভিযোগকারী প্রথম চারজনের মা নুর মহল বেগম চৌধুরী। সেখান থেকে তিনি কিছু জমি সন্তানদের মৌখিক দান করেন।

তারা আরও বলেন, বিএস জরিপে আরএস ১৯৫০ খতিয়ানের ৮০০৪/৮৯২১ দাগের ২ একর জমি বিএস ২০৩০৭ নম্বর দাগের অন্তর্ভুক্ত হয়ে দাগটি বিএস ১০৫ নম্বর খতিয়ানে নুর মহল বেগম চৌধুরী ও তার চার ছেলে-মেয়ের নামে লিপি হয়। জরিপে অভিযোগকারীদের নামে জমি পরিমাপ কম হলেও পুরো জমি অভিযোগকারীদের ভোগদখলে রয়েছে। ১৯৫০ খতিয়ানের ৮০০৪/৮৯২১ দাগ মোতাবেক বিএস ১০৫, ৭৬৩০, ১৯৯৩ খতিয়ানের বিএস ২০৩০৭, ২০১৬৩,২০৩০৬, ১৭০৫০ দাগাদির ৬ দশমিক ৪০ শতক জমি হতে এলএ মামলা নম্বর-০৪/২০১৮-২০১৯ মূলে এক একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়। কিন্তু কাগজপত্র পর্যালোচনা করে জরিপে অভিযোগকারীদের নামে জমি কম পড়া রেকর্ড সংশোধনে কক্সবাজার যুগ্ম জেলা জজ প্রথম আদালতে দেওয়ানি মামলা দায়ের করা হয় (অপর-২৫১/২০১৯; অপর-২৫৭/২০১৯; অপর-২৭১/২০১৯ ও অপর-৭৩/০১)। যা বিচারাধীন।

এদিকে, ২০০৯ সালের ৩ আগস্ট ৩৫৩০ নম্বর রেজিস্ট্রি আমমোক্তার নামা মূলে ৫ নম্বর অভিযোগকারী এক ও দু’নম্বর অভিযোগকারী থেকে ১২ শতক জমি ক্রয় করেন।

অধিগ্রহণের কথা শুনে অর্থ হাতিয়ে নিতে খতিয়ানভূক্ত জমির মালিক না হয়েও স্থানীয় ভিন্ন স্থানের জমির কয়েক মালিক এলএ অফিসে যোগাযোগ করেন। সেটি জানতে পেরে মূল মালিকদের কাছ থেকে খরিদা মালিক শফিউল্লাহ অধিগ্রহণ সংশ্লিষ্ট টাকা বিতরণ বন্ধ রাখতে সকল সরকারি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সিনিয়র সহকারী জজ সদর আদালতে নিষেধাজ্ঞার আবেদনে অপর-২৫১/২০১৯ মামলা করলে মামলায় সহকারী জজ স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে নির্দেশনা দেন। সেই মতে এলএ অফিস অধিগ্রহণ শাখার গ্রুপ-৪ এর ২০১৯ সালের ৯ অক্টোবর ৪৩/২০১৯ নম্বর প্রসেস মূলে উক্ত তফসিলের অধিগ্রহণকৃত জমির ক্ষতিপূরণের চেক ইস্যু স্থগিত রাখেন। কিন্তু অধিগ্রহণ কার্যক্রম সচল রাখতে বাংলাদেশ পুলিশ, পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন হেডকোয়ার্টারের ২০১৮ সালের ৯ মে পিবিআই/ভূ.অধি./৭৬-২০১৮/৩৩১০ স্বারক মূলে জমি অধিগ্রহণ সংক্রান্ত কার্যক্রম চালাতে অনাপত্তি দেন পৈত্রিক দালিকদের একজন দিদারুল আজম চৌধুরী।

অভিযোগে আরও বলা হয়, অধিগ্রহণকৃত জমিতে আর এস ৮০০৪/৮৯৬৩, ৮০০৪/৮৯৬৪, ৮০০৪/৮৯৬৫ দাগাদির তুলনামূলক বিএস খতিয়ান বা দাগের কোনো জমি পড়েনি। এরপরও অধিগ্রহণকৃত জমিতে স্থানীয় চদ্রিমা বহুমুখী সমিতি, পয়ঃম্যানুফাকচারিং প্ল্যান্ট ও জিনাত রেহেনা, টিপু সুলতান, গোলাম মওলা, অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, এম কে এম শামিমুর রহমান, অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ নুরুল হক, মো. ইদ্রিস, বেলায়েত হোসেন ও ফেরদৌস আক্তার পাপড়ীর পক্ষে স্থানীয় চন্দ্রিমা বহুমুখী সমবায় সমিতির নামীয় একটি দলিলের ওপর ভিত্তি করে সৃজিত ১৩৩৬৫ নম্বর খতিয়ানে অধিগ্রহণকৃত জমি রয়েছে এমন ভুল তথ্য উপস্থাপনে ২০১৯ সালের ৪ ডিসেম্বর ১১ কোটি, ২০২০ সালের ২৫ মার্চ ৮৪ লাখ টাকা এবং লকডাউন চলাকালীন ৭ এপ্রিল ৩ কোটি টাকার চেক হস্তান্তর করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ১১ কোটি টাকা অভিযুক্ত ৯ জনের নামে ক্যাশ হলেও বাকি চেক প্রসেসিং পর্যায়ে রয়েছে। অধিগ্রহণের মোট টাকা ২৯ কোটি ৮৪ লাখ থেকে প্রদেয় টাকার চেক ছাড়াও বাকি ১৫ কোটি টাকার চেকও লকডাউন সময়ে হস্তান্তর করার উদ্যোগ চূড়ান্ত হওয়ার খবর পেয়েছেন অভিযোগকারীরা।

এমনটি দাবি করে তারা বলেন, লকডাউন স্বাভাবিক হলেই টাকা ক্যাশ করার পথে হাঁটছেন সংশ্লিষ্টরা। একাধিক অভিযোগ থাকার পরও কীভাবে সরকারি বিপুল পরিমাণ টাকা ছাড় দেয়া হয়েছে তা বোধগম্য নয়। এটা জেনেই সরকারি টাকা এবং নিজেদের হক রক্ষায় দুদক, ভূমি মন্ত্রী, সচিব ও ডিসি বরাবর আবেদন দেয়া হয় বলে উল্লেখ করেন তারা।

অভিযোগের কপি হাতে পেয়েছেন জানিয়ে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, করোনার সময়ে কোনো চেক হস্তান্তর হয়নি। আর কাগজপত্র যাচাই করে সত্যতা না পেলে টাকা ছাড় দেয়ার কথা নয়। এরপরও অভিযোগ যখন এসেছে তা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত অভিযুক্ত জমির টাকা ছাড় বিষয়ে বাকি কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। অফিস স্বাভাবিকভাবে খুললে দু’পক্ষকে এ নিয়ে বসানো হবে। সূত্র জাগো নিউজ ২৪.কম।

আরো সংবাদ