মিয়ানমারের আকস্মিক সিদ্ধান্তে বিস্মিত রোহিঙ্গারা - Coxsbazarkontho.com | Newspaper

শনিবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৯ ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শনিবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০৮-১৭ ১৮:৪৪:৪৮

মিয়ানমারের আকস্মিক সিদ্ধান্তে বিস্মিত রোহিঙ্গারা

নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশ সরকার ও আন্তর্জাতিক মহলের চাপের মুখে সম্প্রতি দ্বিতীয়বারের মতো প্রতিনিধি দল পাঠায় মিয়ানমার। প্রত্যাবাসনের লক্ষে প্রতিনিধি দলটি কয়েক দফায় বৈঠক করেন মুসলিম, হিন্দু ও খ্রিস্টান রোহিঙ্গা নেতাদের সঙ্গে। এ বৈঠকে তেমন ভালো ফলাফল আসেনি। উল্টো মিয়ানমার সরকারের বিরুদ্ধে প্রত্যাবাসন নিয়ে তামাশা করার অভিযোগ তুলে রোহিঙ্গা নেতারা। গত ১৬ আগস্ট মিয়ানমারের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানান, আগামী ২২ আগস্ট প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া চালু হচ্ছে। প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া চালু করতে দুই দেশ সম্মত হয়েছে। প্রথম দফায় তিন হাজার ৫৪০ জন রোহিঙ্গা ফিরিয়ে নিতে চান তারা। এদিকে এ ঘোষণার পরপরই রোহিঙ্গা নেতারা জানিয়েছেন, গত বৈঠকে রাখাইনে বসবাসের পরিবেশ সৃষ্টির উদ্যোগ নেওয়ার কথা ছিল। পাশাপাশি আরও আলোচনার কথা থাকলেও সেটা রক্ষা করেনি মিয়ানমার সরকার।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নেতা দিল মোহাম্মদ

তুমব্রু রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নেতা দিল মোহাম্মদ বলেন, ‘গত বৈঠকে মিয়ানমার প্রতিনিধিরা সেই পুরনো গল্প শুনিয়েছেন। আমরা বার বার বলেছি, আমাদের নাগরিকত্ব না দিলে মিয়ানমারে ফিরবো না। কিন্তু তারা দ্বিতীয়বারে মতো তামাশা করছে। তারা জানিয়েছে, নাগরিকত্ব দেয়া হবে- তবে তারা চাইলে যেকোনো মুহূর্তে আবার নিয়েও নেওয়া হবে। এ শর্তে আমরা কখনও ফিরতে রাজি না।’

তিনি আরও বলেন, ‘মিয়ানমার হঠাৎ প্রত্যাবাসনের যে ঘোষণা দিয়েছে তাতে আমরা বিস্মিত। কারণ যেখানে আমাদের সঙ্গে আরও আলোচনার কথা ছিল এবং মিয়ানমার সরকার তাতে রাজিও ছিল। কিন্তু হঠাৎ এমন সিদ্ধান্ত কখনও ভালো ফলাফল বয়ে আনবে না। আমরা মিয়ানমারে গিয়ে স্বাভাবিক জীবন ফিরে পেতে চাই। কোনও ধরণের ক্যাম্প জীবন আর চাই না। যদি ফেরত যেতে হয় তাহলে নাগরিকত্ব নিয়ে যাব। এ কথা আমরা বার বার জানিয়েছি।’

অপর রোহিঙ্গা নেতা আব্দুর রহিম

রোহিঙ্গাদের আরেক নেতা আব্দুর রহিম বলেন, ‘মিয়ানমারের প্রতিনিধিরা আগেরবারও একই কথা বলেছিল। কিন্তু আমরা যে দাবি জানিয়েছি তাতে তারা সম্মতি দেয়নি। এবারও প্রথমে একই কথা জানঅ্যায় তারা। কিন্তু হঠাৎ এমন ঘোষণা কি কারণে সেটা জানি না। এখন আমাদের ফিরে যাওয়া কঠিন হবে। কারণ নাগরিকত্ব ছাড়া সে দেশে যাওয়া খুবই কঠিন।’

খ্রিস্টান রোহিঙ্গা নেতা আবু তাহের বলেন, ‘শুক্রবার (১৬ আগস্ট) বিকেলে প্রশাসনের এক কর্মকর্তা এসে জিজ্ঞাসা করেন, স্ব-ইচ্ছাই কেউ যেতে রাজি কিনা? তখন আমি জানিয়েছি, আমার কেউ এমবিসি কার্ড নিয়ে যেতে রাজি না। পরে তারা চলে যায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘বৈঠকে বসে কোনও সিদ্ধান্ত না দিয়ে হঠাৎ ফিরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্তে অবাক হয়েছি। এভাবে তো যাওয়া যায় না। আমাদের সঙ্গে আরও আলোচনার কথা ছিল মিয়ানমার প্রতিনিধিদের। কিন্তু সেটি না করে প্রত্যাবাসনের সিদ্ধান্ত অবান্তর।’

জানতে চাইলে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার আবুল কালাম বলেন, ‘এ বিষয়ে আমাদের কোনও সিদ্ধান্ত জানানো হয়নি।’

প্রসঙ্গত, গত ২৭ জুলাই মিয়ানমার সরকারের ১২ সদস্যের প্রতিনিধি দল রোহিঙ্গা নেতাদের সঙ্গে কয়েক দফায় বৈঠক করেন। কিন্তু কোনও সিদ্ধান্ত না দিয়েই ফিরে যান তারা। পরে মিয়ানমার প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেয়া মিন্ট থোয়ে সংবাদ মাধ্যমকে জানান, রোহিঙ্গাদের বিদেশি নাগরিকের মর্যাদায় ফিরিয়ে নিতে রাজি মিয়ানমার। এর আগেও কয়েকদফা প্রতিনিধি দল পাঠায় মিয়ানমার। কিন্তু প্রত্যাবাসন হয়েও হয়নি। রোহিঙ্গাদের শর্ত পূরণ না হওয়ায় কেউ সেদেশে যেতে রাজি না।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ২৪ আগস্টের পর থেকে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয় ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা। সুত্র: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

 

 

 

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
নভেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০