মিয়ানমার থেকে পেয়াঁজ আমদানি কমার আশঙ্কা - Coxsbazarkontho.com | Newspaper

বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯ ১লা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বুধবার

প্রকাশ :  ২০১৯-১০-০৩ ২১:১১:২২

মিয়ানমার থেকে পেয়াঁজ আমদানি কমার আশঙ্কা

নিজস্ব প্রতিবেদক: পেঁয়াজের দাম বাড়ছে মিয়ানমারেও। সে তুলনায় বাংলাদেশে পেঁয়াজের বাড়তি দাম কমতে শুরু করেছে। এতে মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানি কমে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন ব্যবসায়ীরা।

জানা গেছে, শুরুতে মিয়ানমারে পেয়াঁজের প্রতি টনের দাম ছিল ৪১০ ডলার। এখন তা বেড়ে ৬০০ ডলারে এসে দাঁড়িয়েছে।

এসব বিষয় তুলে ধরে টেকনাফ স্থলবন্দরের আমদানিকারক এমএ হাশেম, যদু চন্দ্র দাশ ও শওকত আলম বলেন, ‘মিয়ানমারে বাড়ছে পেঁয়াজের দাম, কিন্তু দেশের বাজারে দাম কমছে। এতে ব্যবসায়ীরা চিন্তিত। বিষয়টি কতৃর্পক্ষের চিন্তা করা প্রয়োজন।

তারা আরও বলছেন, স্থানীয় প্রশাসন যেভাবে পেয়াঁজের দাম নির্ধারণ করছে, তাতে পেয়াঁজ আমদানি কমে যাওয়ার আশঙ্কা বেশি।

Advertisements



শুল্ক স্টেশন সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার (৩ অক্টোবর) মিয়ানমার থেকে টেকনাফ স্থলবন্দরে ৮০৩ দশমিক ৭৯৮ মেট্রিক টন পেঁয়াজ খালাস করা হয়েছে। খালাসকৃত পেয়াঁজ ট্রাক ভর্তি করে দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানো হয়েছে। তবে খালাসের অপেক্ষায় নাফ নদীতে আরও ৭৪২ দশমিক ৫২০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ বোঝাই জাহাজ ও ট্রলার অপেক্ষায় রয়েছে। বন্দরে পর্যাপ্ত শ্রমিক ও অবকাঠামোর অভাবে এসব পেয়াঁজ খালাস করা সম্ভব হচ্ছে না বলে অভিযোগ ব্যবসায়ীদের।

তবে চলতি মাসের তিন দিনে ১ হাজার ৯৫৮ দশমিক ২৬০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ খালাস করা হয়েছে। এছাড়া গত সেপ্টেম্বর মাসে খালাস হয়েছে ৩ হাজার ৫৭৩ দশমিক ১৪১ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়। এতে বিপুল পরিমাণ পেয়াঁজ আমদানি হলেও স্থানীয় বাজারে দাম সহনীয় পর্যায়ে আসছে না বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

এদিকে, টেকনাফ বাজারে সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, প্রতি কেজি পেয়াঁজ ৮০ থেকে ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সরকার পেঁয়াজের দাম কমিয়ে আনতে নানা উদ্যোগ নিলেও তা কাজে আসছে না। জেলায় বাজারে পেঁয়াজের দাম সহনশীল রাখতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করলেও টেকনাফ বাজারে অভিযানের ছোঁয়া এখনো লাগেনি। বাজারগুলো মনিটরিং না করলে পেয়াঁজের দাম আরও কমার সম্ভবনা নেই বলে জানায় স্থানীয় লোকজন।

Advertisements



খুচরা কাচাঁ মালামাল বিক্রেতা মো. ফায়সাল বলেন, ‘আমরা ৬৫ টাকায় প্রতি কেজি পেঁয়াজ কিনে এনে ৭০ টাকা বিক্রি করছি। এর চেয়ে কম দামে বিক্রি করলে লোকসান গুনতে হবে।

টেকনাফ স্থলবন্দর শুল্ক কর্মকর্তা আবছার উদ্দিন বলেন, ‘বৃহস্পতিবার ৮০৩ দশমিক ৭৯৮ মেট্রিক টন পেঁয়াজ খালাস করে দেশের বিভিন্ন জায়াগায় পাঠানো হয়েছে। পেয়াঁজের সংকট মোকাবিলায় আরও আমদানি বৃদ্ধিতে উৎসাহিত করা হচ্ছে। তবে পেয়াঁজ দ্রুত খালাস করতে বন্দর কতৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
অক্টোবর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১