মেজর সিনহার মৃত্যুতে যা বললেন দুই বাহিনী প্রধান - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১১ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৮-০৫ ১৩:২০:১০

মেজর সিনহার মৃত্যুতে যা বললেন দুই বাহিনী প্রধান

জসিম সিদ্দিকী কক্সবাজার : কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের গুলিতে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো: রাশেদ নিহতের ঘটনাটি একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ সেনা বাহিনীর প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ। বুধবার (৫ আগস্ট) বিকাল ৩টার দিকে ঘটনা পরিদর্শনে এসে কক্সবাজার সৈকতে অবস্থিত সেনাবাহিনীর রেস্ট হাউস জলতরঙ্গের সম্মেলন কক্ষে এক প্রেসব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা বলেন।
তিনি উল্লেখ করেন, ‘সিনহা হত্যাকান্ড নিয়ে বাংলাদেশের দুটি গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর মধ্যে কোন ভুল বুঝাবুঝির সৃষ্টি না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। কারণ, যে ঘটনাটি ঘটেছে সেটি কোন প্রতিষ্ঠান দায়ী হতে পারে না। তদন্ত কমিটি যাদের দোষী সাব্যস্ত করবে অবশ্যই তাদেরকে প্রায়শ্চিত্য পেতে হবে। এজন্য কোন প্রতিষ্ঠান তাদের সহযোগিতা করবে না। এ ঘটনায় সেনাবাহিনী ও পুলিশ বাহিনীর মধ্যে সম্পর্কের কোন ধরণের ফাটল সৃষ্টি হবে না।
উক্ত প্রেসব্রিফিংয়ে বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজির আহমেদ বলেছেন, ‘টেকনাফে যে ঘটনাটি ঘটেছে সেটির কারণে দুই বাহিনীর মধ্যে কোন ব্যত্যয় ঘটবে না। বরং আমাদের লক্ষ্য হবে যে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে গঠিত যৌথ তদন্ত কমিটি হয়েছে তারা প্রভাবমুক্ত পরিবেশে তদন্ত করবে। তারা তদন্ত করে যে প্রতিবেদন দিবেন সে অনুযায়ী পরবর্তী আইনি কার্যক্রম পরিচালিত হবে এবং সেটাই গ্রহন করা হবে।
বেনজির আহমেদ আরো বলেন, উক্ত ঘটনাটিকে অনেকেই উষ্কানিমুলক কথা বার্তা বলছে। এসব বলে তারা সফল হতে পারবে না। কারণ সেনাবাহিনী ও পুলিশ বাহিনীর মধ্যে পরস্পর সম্পর্ক রয়েছে। যারা বিভিন্ন উস্কানিমুলক কথা বলে দুই বাহিনীর মধ্যে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করছেন তারা কখনও সফল হবে না। তাই দেশের স¦ার্থে এ ধরণের কোন কথা বার্তা বলার অনুরোধ জানান।
এর আগে দুপুর দেড়টার দিকে বিমানবন্দর হয়ে কক্সবাজার সৈকতে অবস্থিত সেনাবাহিনীর রেস্ট হাউস জলতরঙ্গে এসে পৌছেন। এসময় পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, সেনাবাহিনীর উর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং প্রশাসনের বিভিন্ন উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন। পরে বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে কক্সবাজারের টেকনাফের শামলাপুর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এর আগে বেলা ১২টার দিকে টেকনাফ থানা ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ ৯ জনকে আসামী করে কক্সবাজার আদালতে মামলা করেন সিনহার বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস। কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট তামান্না ফারাহ’র আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে টেকনাফ থানাকে এজাহার হিসাবে নথিভূক্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন। একই সাথে মামলাটি র‌্যাবকে তদন্ত করারও আদেশ দেয়া হয়েছে।

মামলায় আসামী করা হয়েছে টেকনাফ বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এসআই লিয়াকত আলী, টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, এসআই নন্দ দুলাল রক্ষিত, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন, মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন, এএসআই লিটন মিয়া, এসআই টুটুল, কনষ্টেবল মো: মোস্তফা। এরা সকলেই টেকনাফের বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে ওইদিন রাতে কর্মরত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ৩১ আগস্ট রাত সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান। এ ঘটনায় চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ মিজানুর রহমানকে প্রধান করে একটি উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠন করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জন ও নিরাপত্তা বিভাগ। একইভাবে তদন্তের স্বার্থে টেকনাফের বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ লিয়াকত আলিসহ ২০ জন পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

এদিকে আরও জানা যায়, ৩১ জুলাই সন্ধ্যার পর নিজের প্রাইভেটকারে করে তথ্যচিত্রের কাজ শেষে টেকনাফ থেকে কক্সবাজার ফেরার সময় শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহা মো. রাশেদ খান। সিনহা রাশেদ ২০১৮ সালে সৈয়দপুর সেনানিবাস থেকে তিনি স্বেচ্ছায় অবসর নেন।

আরো সংবাদ