মেজর সিনহা হত্যায় আলোচনায় ইলিয়াস কোবরা! নিজেকে নির্দোষ দাবী - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১১ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৮-১০ ১৩:২৯:০৮

মেজর সিনহা হত্যায় আলোচনায় ইলিয়াস কোবরা! নিজেকে নির্দোষ দাবী

নিজস্ব প্রতিবেদক : গত ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজারের টেকনাফ বাহারছড়া শামলাপুর মেরিন ড্রাইভ রোডে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান খুনের ঘটনায় চলচ্চিত্রের খল অভিনেতা ইলিয়াস কোবরার সম্পৃক্ততার খবরে তোলপাড় চলছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম অনলাইন পত্রিকা, টেলিভিশনসহ এই বিভিন্ন গণমাধ্যমে এই খবরটি ইতোমধ্যে ব্যাপকভাবে আলোচিত হচ্ছে। তবে এই লোমহর্ষক হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার বিষয়টি সম্পূর্ণভাবে অস্বীকার করেছে ইলিয়াস কোবরা। ১০ আগষ্ট বিকেলে কক্সবাজার প্রেসক্লাবে তিনি এবিষয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন। এদিকে নাটকীয়ভাবে এই হত্যাকান্ডে চলচ্চিত্রের খলনায়ক ইলিয়াস কোবরার নাম চলে আসে। ওসি প্রদীপ, ইন্সপেক্টর লিয়াকতসহ সংশ্লিষ্টদের সাথে ইলিয়াস কোবরার ঘনিষ্টতার বিষয়টি আলোচনায় আসে। তবে তিনি হত্যাকান্ডে কোনভাবেই জড়িত নয় বলে দাবী করছেন। ওই সময় তিনি বলেন আমি কোন মেজর সিনহাকে চেনেননা, তার সাথে কোনদিন আলাপও হয়নি। ওসি প্রদীপের সাথে এলাকার মাদক প্রতিরোধ কমিটির আমি সভাপতি হিসেবে মাঝে মধ্যে তার সাথে কথা হত। তিনি চ্যালেঞ্জ করে বলেন, আমি এই জঘন্য ঘটনার সাথে জড়িত আছি এমন কোন প্রমাণ দিন। কোন ভিডিও অডিও এবং মোবাইলে কথোপকথনের প্রমাণ দিন। তিনি আরও বলেন, যারা আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়েছে আমি তাদের বিরুদ্ধে প্রচলিত আইন মতো ব্যবস্থা নেব।
এদিকে গত ৩১ জুলাই রাত ৯টার পর মেরিনড্রাইভ রোডের শামলাপুর চেকপোষ্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো: রাশেদ। এরপরই শামলাপুর পুলিশ ফাঁড়ির ২০ সদস্যকে একযোগে প্রত্যাহার করা হয়। পরবর্তীতে টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার, বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইন্সপেক্টর লিয়াকতসহ অভিযুক্তদের সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এই হত্যাকান্ডের পর গত ৫ আগস্ট নিহতের বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস বাদী হয়ে ৯ পুলিশের বিরুদ্ধে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেন। এই দিনই রাতেই মামলাটি টেকনাফ থানায় নথিভূক্ত করা হয়েছে। পরদিন ৬ আগস্ট অভিযুক্ত ৯ আসামী আদালতে আত্মসমর্পণ করলে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট হেলাল উদ্দিন প্রত্যেক আসামীকে ৭দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। একই সাথে মামলাটি র‌্যাব-১৫কে তদন্তের দায়িত্ব অর্পণ করা হয়েছে। রিমান্ডের প্রেক্ষিতে আসামীদের জিঙ্গাসাবাদ করছে র‌্যাবের তদন্ত টীম।

আরো সংবাদ