মেরিন ড্রাইভের দু’পাশে গাছের চারা রোপন করল সেনাবাহিনী - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ৯ আগস্ট ২০২০ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৭-৩১ ১৪:১৭:৩১

মেরিন ড্রাইভের দু’পাশে গাছের চারা রোপন করল সেনাবাহিনী

নিজস্ব প্রতিবেদক : “সবুজ বৃক্ষ নির্মল পরিবেশ বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ” এ প্রতিপাদ্য নিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বিশেষ বৃক্ষরোপন অভিযান শুরু করেছে সেনাবাহিনী।

শুক্রবার দুপুরে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের শাপলাপুর এলাকায় এক লাখ গাছের চারা রোপন কর্মসূচীর উদ্বোধন করেন সেনাবাহিনীর ১০ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি ও এরিয়া কমান্ডার কক্সবাজার এরিয়া-এর মেজর জেনারেল মো. মাঈন উল্লাহ চৌধুরী।

এ সময় শরনার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো: মাহবুব আলম তালুকদার, জেলা প্রশাসক মো: কামাল হোসেন, পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন, রামু সেনানিবাসে কর্মরত ঊর্ধ্বতন সামরিক ও অসামরিক কর্মকর্তাবৃন্দসহ সেনাসদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

কক্সবাজারে অবস্থিত পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকতকে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সবুজ শ্যামল সৈকতে রূপান্তরিত করতে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ১০ পদাতিক ডিভিশন কর্তৃক এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। কারণ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সর্বপ্রথম কক্সবাজারের সমুদ্র সৈকতকে সবুজায়ন করার লক্ষে সমুদ্রতীরে ঝাউবাগান করেন। তারই ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রীর সুস্পষ্ট নির্দেশনায় ও সেনাবাহিনী প্রধানের সার্বিক দিক নির্দেশনায় জিওসি ১০ পদাতিক ডিভিশনের নেতৃত্বে সামরিক ও বেসামরিক প্রশাসনকে সাথে নিয়ে মেরিন ড্রাইভের দুপাশে এই বৃক্ষ রোপন কর্মসূচির আয়োজন করে।

রামু সেনানিবাস জানায়, জাতির পিতার জন্মশতার্ষিকী কে স্মরণীয় করে রাখতে ও সমুদ্রতীরের প্রাকৃতিক ভারসাম্য বজায় রাখার উদ্দেশ্যে এই বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ও সেনাবাহিনী প্রধানকে মেরিন ড্রাইভ সড়কের দুপাশে অধিক পরিমাণে ঝাউগাছ ও অন্যান্য গাছ লাগানোর নির্দেশ প্রদান করেন। এরই অংশ হিসেবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পক্ষে ১০ পদাতিক ডিভিশন প্রধানমন্ত্রীর এই মহতী উদ্যোগ কে বাস্তবে রূপ দিতে চলেছে।

এই বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির আওতায় কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের পাশে সমুদ্রতটে ১৫ হাজার ফলজ, ১৫ হাজার বনজ, ২০ হাজার ঔষধি ও ৫০ হাজার ঝাউগাছের চারা রোপণ করা হবে।

শুক্রবার উদ্বোধনের পর ২৫০০ গাছের চারা রোপণ করা হয়েছে। পরবর্তী এক মাস এই কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে এবং আগস্ট মাসের মধ্যে সকল চারা রোপন সম্পন্ন করা হবে।

আরো সংবাদ