মেরিন ড্রাইভে আসল রূপ দেখাচ্ছে প্রকৃতি - কক্সবাজার কন্ঠ

মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই ২০২০ ৩০ আষাঢ়, ১৪২৭

সোমবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৫-০৭ ২০:৫৮:৩৪

মেরিন ড্রাইভে আসল রূপ দেখাচ্ছে প্রকৃতি

আরফাতুল মজিদ : করোনা ভাইরাসে পুরো বিশ্ব যখন থমথমে অবস্থা। ঠিক সেই সময়ে পুরো যৌবন ফিরে পেয়েছে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভের প্রকৃতি। সড়কের দু’পাশ যেন এখন প্রকৃতির যৌবনে পরির্পূণ। বেড়েছে শীতল ছায়া, মেলেছে রূপ। যেন জম্ম নেয়া এক নতুন প্রকৃতিময় সড়ক। যার রূপে আলপনা একেঁছে সবুজ পাহাড় আর ওপাশে নীল সমুদ্র।

মাঝখান দিয়ে এঁকেবেঁকে চলে গেছে দীর্ঘ পিচঢালা মসৃণ পথ। এ পথের পুরোটাই পাহাড়-সমুদ্রর ছায়া মিতালী। পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত ছুঁয়ে এ মেরিন ড্রাইভ সড়ক এর মধ্যে দীর্ঘতম খেতাব পেয়েছে।

এখন চোখে পড়ে সবুজ বন-জঙ্গল ফসলের মাঠ গ্রামীণ জনপদের অপরূপ দৃশ্য। অন্যপাশে অকুল দরিয়া সেই বঙ্গোপসাগরে ঢেউয়ের গর্জন। সমুদ্রের কোলঘেঁষে কোথাও সোজা কোথাও কিছুটা এঁকেবেঁকে চলা ভিন্ন রকমের মহাসড়ক এখন দেখা যায় ভিন্ন রূপে। নেই তেমন গাড়ির দৌড়। জেলেদের মাছ
শিকার তেমনও চোখে পড়েনা। হৃদয়-মন নিংড়ানো সাগরবুকে সূর্যাস্ত অবলোকন দেখা যায় ভিন্ন রূপে। লোনা বাতাসের ঝাপটা এখন সহজেই গায়ে লাগে। কখনও বা শিউরে ওঠে জনশূণ্য এই সড়কে। মুক্তির খোঁজে ছুটে চলছে প্রকৃতি তার নিয়মে।

এখন মেরিন ড্রাইভের আসল স্বাদ পাওয়া যায় কক্সবাজার কলাতলী দরিয়ানগর থেকে। ওখান থেকে টেকনাফ সমুদ্র সৈকত পর্যন্ত একটানা শীতল ছাঁয়ায় চলে গেছে এ সড়ক।

উখিয়ার জালিয়াপালং এলাকায় মেরিন ড্রাইভের সৌন্দর্যও বেড়েছে এখন। ইনানী থেকে সামান্য সামনে জালিয়াপালং। এখানে আছে রয়েল টিউলিপ বিচ রিসোর্ট। সাগর ঘেঁষে গড়ে ওঠা আধুনিক এ রিসোর্টটি নির্জনে সমুদ্র দেখার অনবদ্য জায়গা। এরপরে বেশ কিছুটা পথ পাহাড় কোলে নির্জন মেরিন ড্রাইভ। সমুদ্রের ঢেউয়ের গর্জন ছাড়া আর কোনো শব্দ পাওয়া বিরল।

কক্সবাজার থেকে প্রায় চল্লিশ কিলোমিটার দূরে মেরিন ড্রাইভের চমৎকার একটি জায়গা শামলাপুর। এখানকার সমুদ্র সৈকতটি বেশ সুন্দর ও নির্জন।

টেকনাফের এ সৈকতে এসেই শেষ হয়েছে দীর্ঘ ৮০ কিলোমিটারের মেরিন ড্রাইভ। এখন সব স্বাধীনতা প্রকৃতির। নিজের রূপে সেজে উঠছে প্রকৃতি।

আরো সংবাদ