রমজান মাসে গুনাহ ও আমাদের উপর আজাব-হেলাল আহমদ রিজভী - কক্সবাজার কন্ঠ । কক্সবাজারের মুখপত্র

শনিবার, ৬ জুন ২০২০ ২৩শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৫-১৬ ০৫:৫৪:০৩

রমজান মাসে গুনাহ ও আমাদের উপর আজাব-হেলাল আহমদ রিজভী

রমজান মাসে গুনাহ ও আমাদের উপর আজাব জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল “কক্সবাজার কন্ঠ” এর সৌজন্যে রমজানের ধারাবাহিক “রমজান কন্ঠ” কলাম থেকে- ধারাবাহিক পর্ব-২২ ইমাম তাবরানী (রাহঃ) ‘আল মু’জামুল ছগীর’ এ বর্ণনা করেছেন যে, হযরত উম্মে হানি (রাঃ) হতে বর্ণিত, নবি করিম [ﷺ] এরশাদ করেছেন- “আমার উম্মত ততক্ষণ পর্যন্ত অপমানিত-অপদস্ত হবেনা যতক্ষণ তারা মাহে রমজানের হক্ব আদায় করতে থাকবে” জিজ্ঞেস করা হল…হে আল্লাহর রাসুল [ﷺ] “আক্বা, ‘রমজানের হক্ব নষ্ট করায় উম্মতের অপমানিত-অপদস্ত কেমন? জবাবে নবিজি [ﷺ] বললেন, যেমন এই মাসে হারাম কাজে লিপ্ত হওয়া” তিনি আরো বলেন, “যে এই মাসে যিনা করবে বা মদপান করবে পরবর্তী রমজান মাস আসা পর্যন্ত আল্লাহ তায়ালা এবং তার সকল আসমানি ফিরিশতাগন তাকে লা’নত দিতে থাকে আর সে যদি পরবর্তী রমজান মাস পাওয়ার আগেই মারা যায় তাহলে তার কাছে এমন কোন ভাল কাজই থাকবেনা যেটা তাকে জাহান্নামের আগুন থেকে বাঁচাতে পারবে”।

তাই রমজান মাসের ব্যাপারে সতর্ক হোন, কেননা যেমনিভাবে এই মাসে অন্য মাসের তুলনায় বেশি নেকি (সওয়াব) বাড়িয়ে দেয়া হয় তেমনিভাবে গুনাহর ক্ষেত্রেও হিসাব হয়। সম্মানিত পাঠকবৃন্দ, যদি আমরা আমাদের হারিয়ে ফেলা ঐতিহ্য আবার ফিরে পেতে চাই আর মুসলিম মিল্লাতের আগের সেই উৎকর্ষতার ধারার সাথে পরিচয় করাতে চাই তাহলে রাত দিন উম্মতের এই অপমানিত-অপদস্ত হওয়ার মায়াকান্না কেঁদে কেঁদে ইসলামের দুষমন অপশক্তি গুলোর উপর অভিযোগ না দিয়ে আসুন, আমরা সকলেই মাহে রমজানুল মোবারকের হক্ব আদায় করি। এই পবিত্র সময়ে গুনাহ থেকে দূরে থেকে, করজোড়ে মুসলিম মিল্লাতের নিরাপত্তার জন্য প্রার্থনা করি। সম্মানিত পাঠকবৃন্দ, “জন জন করে জনগণ তৈরি হয়” যদি আমরা আমাদের ব্যক্তিগত জীবনে এই রমজানে পরিবর্তন আনতে সফল হই তাহলে ধীরে ধীরে সমগ্র পৃথিবীতে একটা জাগরণ সৃষ্টি হবে আর মহান আল্লাহ মুসলিম মিল্লাত তাদের হারিয়ে ফেলা গৌরব আবার ফিরিয়ে দিবেন। ‘মাজমুয়ায়ে জাওয়াহেদ’ গ্রন্থে বর্ণিত হয়েছে, হযরত আনাস বিন মালেক (রাঃ) বর্ণনা করেন- আমার নবিজি [ﷺ] কে বলতে শুনেছি “রমজান মাস তোমাদের মাঝে উপস্থিত হয়েছে এতে জান্নাতের দরজাসমূহ খুলে দেওয়া হয় ও জাহান্নামের দরজা বন্ধ করে দেওয়া হয় এবং শয়তানকে কয়েদ (বন্দী) করে ফেলা হয়।” বড়োই অভাগা সে ব্যক্তি, “যে রমজান মাস পেল কিন্তু তার মাগফিরাত (ক্ষমা) হলনা অর্থাৎ, তার রমজানে মাগফিরাত (ক্ষমা) হলনা তো হবে কখন!” সম্মানিত পাঠকবৃন্দ, মুসলিম মিল্লাতের জন্য রমজান মাস ‘বার্ষিক প্রশিক্ষণ প্রোগ্রাম’ এর গুরুত্ব বহন করে। এটি রূহানী ট্রেনিং এর মাস। যদি আমরা এই একমাস সফলভাবে পরিপূর্ণ প্রশিক্ষণ নিতে পারি তাহলে বাকি এগার মাসেও সফলতা আমাদের মাঝে ধরা দিবে। আর যদি এই একমাসে আমরা ট্রেনিং এ বিফল হই তাহলে পরবর্তীতে ট্রেনিং এ সফলতা অর্জন করা অনেক কঠিন হয়ে পড়ে।

সম্মানিত পাঠকবৃন্দ, বিষয়টি একটি উদাহরণ থেকে বুঝার চেষ্টা করুন- মনে করেন, কোন বক্সার বক্সিং রিং এ কোন প্রতিদ্বন্দ্বী ছাড়াই ১ম রাউন্ডে শুধুমাত্র পাঞ্চিং ব্যাগে পাঞ্চ করছে (ঘুষি মারছে) আর মনোবল এতই কম যে, কোন প্রতিপক্ষ ছাড়াই শুধুমাত্র পাঞ্চিং ব্যাগে পাঞ্চ করেই সে ক্লান্ত হয়ে যায় আর দাড়িয়ে থাকতে পারেনা। আর যদি সে দাবী করে যে, বাকী এগার রাউন্ডে প্রতিপক্ষ বক্সার কেউ হারিয়ে দিবে। তখন আপনি বলবেন, ওরে বোকা… কোন প্রতিদ্বন্দ্বী ছাড়া, প্রতিপক্ষ ছাড়া তুমি ১ম রাউন্ড টিকতে পারলেনা তাহলে বাকী ১১ রাউন্ডে যখন তোমার প্রতিপক্ষ তোমাকে মারবে তখন তা কিভাবে মোকাবেলা করবা!

সম্মানিত পাঠকবৃন্দ, ঠিক এরকমই! বছরের ১২মাসের মধ্যে এই ১টি মাস রমজান। যে মাসে আমাদের দুষমন (শয়তান)’কে বন্দী করে ফেলা হয়। এখন তো ময়দানে আমরা একা! আমাদের হামলা করার জন্য কেউ নেই! তবুও আমরা নামাজ কাজা করছি! তবুও আমরা হারাম মুভি দেখছি! তবুও আমরা গীবত (পরনিন্দা) করছি! তবুও আমরা সুযোগ বুঝে কারো ক্ষতি করতে মত্ত হচ্ছি! তবুও আমরা গুনাহের কাজে লিপ্ত হচ্ছি! আবার এমনও বলছি যে, পরে নিশ্চয় ভাল হয়ে যাব! আর মাগফিরাত কামনা করে নিব! তখন যে কোন বুদ্ধিমান মানুষ বলবে, যখন রমজান মাসে শয়তান বন্ধী আছে, হামলা করার জন্য কোন দুষমনও নেই তুমি তবুও গোনাহই লিপ্ত হচ্ছ।

তাহলে যখন হামলাকারী (শয়তান) মুক্ত হয়ে যাবে তখন তুমি কিভাবে মাগফিরাত হাসিল করবে! এজন্য নবিজি [ﷺ] বলেছেন, “বড়োই হতভাগা সে ব্যক্তি যে রমজান মাস পেলো কিন্তু মাগফিরাত (ক্ষমা) পেলনা” যদি রমজানে মাগফিরাত না পায় তবে পাব কখন? তাই সম্মানিত পাঠকবৃন্দ, আসুন, এ পবিত্র মাসে আমরা নিজেদের এমন মজবুত করে নিই যাতে বাকী ১১মাসে আমরা শয়তানের উপর বিজয়ী হতে পারি। মহান আল্লাহর কাছে এটিই চাওয়া, সর্বশক্তিমান স্রষ্টা আমাদের এই পবিত্র মাহে রমজানুল মোবারক মাসের মূল্য বুঝার তাওফিক দিন। আর এই পবিত্র মাসে আমাদের শরীয়তের আহকাম সমূহের উপর আমল করার তাওফিক দিন। আমিন, বেহুরমতি সৈয়্যদিল মুরসালিন।

কলামিষ্ট, মাওলানা হেলাল আহমদ রিজভী, কামিল (মাস্টার্স) ফার্স্টক্লাস, মাওলানা বাড়ি, সোনারপাড়া, উখিয়া, কক্সবাজার। মুঠোফোন-01824878721 ই-মেইল- helalrezvi87@gmail.com

আরো সংবাদ