রেডিয়েন্ট ফিস ওয়ার্ল্ডের বিরুদ্ধে ভ্যাট ফাঁকির মামলা - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০ ১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

প্রকাশ :  ২০২০-১০-০৭ ০৯:৫৫:৫১

রেডিয়েন্ট ফিস ওয়ার্ল্ডের বিরুদ্ধে ভ্যাট ফাঁকির মামলা

রেডিয়েন ফিস ওয়ার্ল্ডের বিরুদ্ধে ভ্যাট ফাঁকির মামলা
নিজস্ব প্রতিবেদক : কক্সবাজার রেডিয়েন্ট ফিস ওর্য়াল্ডের বিরুদ্ধে ৩ কোটি ৩৮ লাখ টাকা ভ্যাট ফাঁকির মামলা দায়ের করা হয়েছে। কক্সবাজার কাস্টমস এক্সসাইজ ও ভ্যাট অফিস সূত্রে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে। জানাগেছে, ৩ বছর আগে উদ্বোধন হওয়া এই বিলাস বহুল রেডিয়েন ফিস ওয়াল্ডে পর্যটকদের জন্য বিভিন্ন প্রজাতির মাছের প্রদর্শনী,রেষ্টুরেন্ট, হল ভাড়া,বিনোদন,দোকান ভাড়া বাবদ প্রতি মাসে যে ভ্যাট আসে তার নূন্যতম দিয়েছে কিন্তু এর বাইরে বড় অংকের ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে প্রতিষ্টানটি। তাই ইতি মধ্যে সেখানে কাস্টমস বিভাগ অভিযান চালিয়ে তাদের গুরুত্বপূর্ন নথিপত্র,কম্পিউটার জব্দ করে। এতে হিসাবে অনুযায়ী ৩ কোটি ৩৮ লাখ টাকার ভ্যাট ফাকিঁ দিয়েছে বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন কক্সবাজার জেলা রাজস্ব কর্মকর্তা রনজিত কুমার দাশ।
এদিকে কাস্টমস কর্তৃক মামলার বিষয়টি জানেনা বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্টানটির মালিক শফিকুর রহমান। এ বিষয়ে
কক্সবাজার রাজস্ব কর্মকর্তা রনজিত কুমার দাশ জানিয়েছেন উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে কক্সবাজার শহরের ঝাউতলা রেডিয়েন ফিস ওয়ার্ল্ড এ অভিযান চালিয়ে তাদের গত কয়েক বছরের নথি পত্র,বিভিন্ন হিসাবের বহি এবং কম্পিউটারের পিসি জব্দ করা হয়েছে। সেখান থেকে পাওয়া তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষন করে তাদের দেয়া ভ্যাট হিসাবে মিল করে দেখা গেছে তারা প্রায় ৩ কোটি ৩৮ লাখ টাকার ভ্যাট ফাকিঁ দিয়েছে। সে জন্য ইতি মধ্যে প্রতিষ্টানটি বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। তিনি জানান,রেডিয়েন্ট ফিস ওয়ার্ল্ডে শুধু মাছের প্রদর্শনী খাতে নয়,বিভিন্ন বিবাহ,সভা সেমিনার হয় নিয়মিত। এছাড়া রেষ্টুরেন্ট আছে, থ্রিডি ভিডিওর ব্যবস্থা আছে আরো বেশ কিছু বিনোদনের খাত থেকে তারা আয় করে কিন্তু সে পরিমান ভ্যাট তারা কখনো দেয়নি। তাই উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে সরকারকে ফাঁকি দেয়া রাজস্ব আদায় করতে এই পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। রাজস্ব কর্মকর্তা বলেন টাকার পরিমান আরো বাড়তে পারে।
এদিকে ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে চালু হওয়া এই রেডিয়েন ফিস ওয়ার্ল্ড পর্যটকদের জন্য বাড়তি বিনোদনের ব্যবস্থা হলেও সম্প্রতি এই প্রতিষ্টানটি মালিকের বিরুদ্ধে বেশ কিছু প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে। তার নিজ এলাকা কুমিল্লা এবং সাতক্ষিরায় বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে ব্যবসায়িক উদ্দ্যেশ্যই টাকা নিয়ে আর ফেরত না দিয়ে উল্টো বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধমকি দেয়ার অভিযোগও ইতি মধ্যে বিভিন্ন গণমাধ্যমে আলোচনা হচ্ছে।

আরো সংবাদ