রেড জোনে ১১ জুলাই পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ১৫ জুলাই ২০২০ ৩১ আষাঢ়, ১৪২৭

মঙ্গলবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৬-২৪ ১৪:৩৯:২৭

রেড জোনে ১১ জুলাই পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক : কক্সবাজারের ৩ এলাকাকে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রবণ এলাকা হিসেবে ঘোষণা করায় সেখানে সাধারণ ছুটি দিয়েছে সরকার। ২৩ জুন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় কক্সবাজার জেলার ৩টি রেড জোন এলাকায় আজ ২৪ জুন থেকে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে আদেশ জারি করেছে। যা আগামী ১১ জুলাই পর্যন্ত এই সাধারণ ছুটি থাকবে।
কক্সবাজার জেলার ৩টি রেড জোন ঘোষিত এলাকার সীমান হল : ১. কক্সবাজার সদর উপজেলাধীন কক্সবাজার পৌরসভা, ২. টেকনাফ উপজেলাধীন টেকনাফ পৌরসভা ও ৩. উখিয়া উপজেলাধীন রাজাপালং ইউনিয়নের ২, ৫, ৬ ও ৯ নং ওয়ার্ড, রতœাপালং ইউনিয়নের কোটবাড়ি বাজার, পালংখালী ইউনিয়নের বালুখালী ও থাইংখালী বাজার।
গত ২০ জুন এই অঞ্চলগুলো রেড জোনের অন্তর্ভূক্ত বলে প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়। সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয় ২৪ জুন হতে ১১ জুলাই পর্যন্ত। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ২৩ জুন রাতে প্রজ্ঞাপনটি জারি করে। এতে কক্সবাজারসহ মাগুরা, খুলনা ও হবিগঞ্জের সাতটি রেড জোনে ২৪ জুন থেকে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে আদেশ জারি করা হয়।
ভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণের জন্য স্থানীয় প্রশাসন লাল অঞ্চলে জীবনযাত্রা কঠোরভাবে নিযন্ত্রণ করতে পারবে। অফিস-কারখানা বন্ধ থাকবে, যানবাহন ও সাধারণের চলাচলে থাকবে কড়াকড়ি। এনিয়ে তিন দফায় ১৯ জেলার ৪৫টি এলাকাকে রেড জোন ঘোষণা করে সেখানে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়।
আদেশে বলা হয়েছে, লাল অঞ্চল ঘোষিত এলাকায় অবস্থিত সকল সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, আধা-স্বায়ত্তশাসিত, সংবিধিবদ্ধ ও বেসরকারি অফিস, প্রতিষ্ঠান ও সংস্থায় কর্মরত ও অন্য এলাকায় বসবাসরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ক্ষেত্রেও এ ছুটি প্রযোজ্য হবে।
এদিকে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের দেয়া তথ্য মতে, ২৩ জুন পর্যন্ত এ নিয়ে জেলায় ৪৬ জন রোহিঙ্গাসহ করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ২ হাজার ১৯৭ জনে। এদের মধ্যে কক্সবাজার সদর উপজেলার ৯৮৮ জন, রামু উপজেলার ১৮৫ জন, উখিয়া উপজেলার ২৬০ জন, টেকনাফ উপজেলার ১৯৫ জন, চকরিয়া উপজেলার ৩০৭ জন, পেকুয়া উপজেলার ৯২ জন, মহেশখালী উপজেলার ৮৯ জন ও কুতুবদিয়া উপজেলার ৩৫ জন বাসিন্দা রয়েছে।
জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের দেয়া তথ্যে জানা গেছে, সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত জেলায় আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ী ফিরেছে ৭৩০ জন। মৃত্যু হয়েছে ৩৫ জনের। এদের মধ্যে ৫ জন রোহিঙ্গা রয়েছে।
কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডাক্তার অনুপম বড়ুয়া জানান, গত ১ এপ্রিল থেকে কমেকের ল্যাবে করোনা আক্রান্তদের নমুনা পরীক্ষা শুরু হয়েছে। এ নিয়ে গত ৭৭ দিনে কমেক ল্যাবে সন্দেহভাজন মোট ১৫ হাজার ৯৫২ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

আরো সংবাদ