রোহিঙ্গা ভোটার: ক্যাম্পেই ছড়িয়ে ছিটিয়ে দালাল চক্র - Coxsbazarkontho.com | Newspaper

বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯ ১লা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বুধবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০৯-২২ ১২:০০:৪৯

রোহিঙ্গা ভোটার: ক্যাম্পেই ছড়িয়ে ছিটিয়ে দালাল চক্র

নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের ভোটার করার কাজের সঙ্গে জড়িত চক্রের সদস্যরা ক্যাম্পেই ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছেন। এই চক্র প্রাথমিকভাবে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে লেনদেনের বিষয়টি মীমাংসা করে থাকে। পরে ধাপে ধাপে কয়েকটি হাতবদল হয়ে রোহিঙ্গাদের ভোটার করার প্রক্রিয়া চূড়ান্ত করে দালাল চক্র। রোহিঙ্গা ভোটারের বিষয়ে নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠিত বিশেষ তদন্ত কমিটি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, চট্টগ্রাম জেলায় সব মিলিয়ে কমিশনের ২০টি মডেম রয়েছে, যেগুলো ব্যবহার করে ভোটারদের তথ্য সার্ভারে ইনপুট দেন মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তারা। সেখান থেকেই একটি মডেম ব্যবহার করেছে দালাল চক্র। এই চক্রের কাছে বিভিন্ন থানা নির্বাচন কর্মকর্তাদের ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ডও ছিল, সেটি ব্যবহার করত তারা। তবে মূলত দালাল চক্র কয়েকটি স্তরে ভাগ হয়ে রোহিঙ্গাদের ভোটার বানানোর কাজ করে।

প্রথম ধাপে ক্যাম্পে থাকা দালাল চক্রের সদস্যরা রোহিঙ্গাদের সঙ্গে এনআইডি কার্ডের বিনিময়ে অর্থের লেনদেনের বিষয়টি ফয়সালা করে। পরে কৌশলে তাদের নিয়ে যাওয়া হয় কক্সবাজার সদরে। সেখান থেকে আরেক দালাল রোহিঙ্গাদের নিয়ে যায় চট্টগ্রামে। সেখান থেকে নিয়ে যাওয়া হতো ল্যাপটপ ব্যহারকারীর কাছে। প্রথমে তাদের নাম ও তথ্য দিয়ে ইনপুট দেওয়া হতো ল্যাপটপে ইনস্টল হয়ে থাকা ইসির সফটও্যয়ারে। পরে এনআইডির প্রক্রিয়া অনুসরণ করেই ল্যাপটপে এ তথ্যগুলো স্ক্যান করে রাখা হয়। রোহিঙ্গা ভুয়া ভোটার করতে দুইজন থানা নির্বাচন অফিসার সম্পৃক্ত আছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এদিকে ভোটার করার জন্য রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে বিভিন্ন পরিমাণের অর্থ লেনদেনের তথ্য পাওয়া গেছে। সর্বনিম্ন ১৮ হাজার থেকে শুরু করে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত নেওয়া হয়েছে রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে। আর ভোটার করার জন্য ব্যবহার করা হয়েছে ইসির লাইসেন্সকৃত ল্যাপটপ, মডেম, পেনড্রাইভ, সিগনেচার প্যাড। ২০০৭ সালের ইসির ল্যাপটপগুলোর মধ্যেই কয়েকটি ল্যাপটপ চুরি হয়। আর ২০১৭ সালে অকশনে (নিলাম) প্রায় ৮শ’ ল্যাপটপ বিক্রি করে ইসি। এরমধ্যে ২৫০টি ছিল ইসির লাইসেন্স করা। তবে সেসব ল্যাপটপে বিভিন্ন সমস্যা ছিল। কিন্তু প্রতারক চক্র সেখান থেকে কিছু ল্যাপটপ সংগ্রহ করে তা ঠিক করে এই কাজে ব্যবহার করেছে বলে ধারণা করছে তদন্ত কমিটি। এ ঘটনায় ইতোমধ্যে ৯ জনকে আটক করেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। তবে এ ঘটনায় মোট ২০ জনের সম্পৃক্ততা পেয়েছে তদন্ত দল। এরমধ্যে ইসি থেকে চাকুরিচ্যুত টেকনিক্যাল এক্সপার্ট সত্য ও সাগর নামে দুজন যুক্ত ছিল বলে জানা গেছে। তারা এখন পলাতক রয়েছেন। কমিশন সূত্রে জানা গেছে, মূলত একটি স্ক্যানার মেশিন থেকেই এসব রোহিঙ্গা ভোটারের তথ্য স্ক্যান করা হয়েছে। কারণ প্রতিটি স্ক্যান করা ফর্মের উপরের অংশ তিনটিতে ছোট দাগ পাওয়া গেছে। সবগুলো ফর্মেই এ দাগ রয়েছে। তাই ধারণা করা হচ্ছে একটি মেশিন থেকেই এগুলো স্ক্যান করা। আর প্রতারক চক্র ঘন ঘন তাদের অফিস পরিবর্তন করত বলেও জানা গেছে।

তদন্ত সূত্র জানায়, লাকি বেগম নামে রোহিঙ্গা ভোটার শনাক্ত হওয়ার পর ইসি গঠিত বিশেষ তদন্ত দল প্রথমে কক্সবাজার সদরে অভিযান চালায়। সেখানকার কেউ যেন সতর্ক হতে না পারে সেজন্য সেই টিম কক্সবাজার যাওয়ার আগে কোন অফিসিয়াল চিঠি দেওয়া হয়নি। সেখানে গিয়েই সবার মোবাইল ফোন নিয়ে নেওয়া হয়। এরপর ল্যাপটপ, ডেস্কটপ ও ফর্ম-২ তল্লাশি করা হয়। তবে সেখানে কোন ব্যক্তিকে শনাক্ত করা যায়নি। পরে সেখানকার থানা নির্বাচন কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় কক্সবাজারে কয়েকটি রোহিঙ্গার বাড়ি শনাক্ত করা হয়, যারা অবৈধভাবে ভোটার হয়েছে। তাদের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে নতুন রোহিঙ্গা ভোটারের প্রলোভন দেখিয়ে কক্সবাজার আনা হয় দালাল আব্দুল্লাহকে। তাকে আটক করার পর তার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এইচ ব্লক থেকে আটক করা হয় তার বড় ভাই ওবায়দুল্লাহকে। শুরুতে তিনি স্বীকার না করলেও পরে দালাল চক্রের আরো দুজন সদস্য নূরুল আবছার ও শামসুল মাস্টারের সম্পৃক্ত থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তবে তাদের এখনও আটক করা যায়নি। পরে অবৈধভাবে ভোটার হওয়াসহ ৬০০ জনকে আসামি করে মামলা করেন কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসার শিমুল শর্মা।

এরপর তদন্ত কমিটি চট্টগ্রামে এসে চট্টগ্রাম থানা নির্বাচন অফিসে কাজ শুরু করে। সেখানে তেমন তথ্য না পেয়ে ডাবলমুরিং নির্বাচন অফিসে গিয়ে সবাইকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। এরপর সবার মোবাইল চেক করা শুরু হলে দেখা যায় সবার মোবাইল সম্পূর্ণ ফরমেট দেওয়া। তবে এরমধ্যে সেখানকার অফিস সহকারী জয়নালের মোবাইলে কিছু মেসেজ পাওয়া যায়। একই সঙ্গে মোবাইল থেকে কিছু আইডি কার্ডের পিডিএফ কপি ও এক্সপোর্ট ডাটা পাওয়া যায় গুগল ড্রাইভে। পরে জিজ্ঞাসাবাদে একটি ল্যাপটপ থাকার কথা স্বীকার করেন জয়নাল। পরে তার এক বান্ধবীকে দিয়ে ল্যাপটপটি আনা হলে তাকেও আটক করা হয়। এরপর আটক করা হয় জয়নালের ভাই বিজয়কে। সর্বশেষ দুদিন আগে ‘আউট সোর্সিংয়ের’ মাধ্যমে নিয়োগ পেয়ে ভোটার তালিকা হালনাগাদের কাজে যুক্ত হওয়া মোস্তফা ফারুককে (৩৬) আটক করা হয়। তার কাছ থেকেও ইসির চুরি হওয়া একটি ল্যাপটপ উদ্ধার করা হয়েছে।

এ বিষয়ে ইসির জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম  বলেন, রোহিঙ্গা ভোটারের বিষয়ে তদন্ত কমিটি ও বিশেষ তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। লাকি বেগমের ঘটনার পর আমরা দেখলাম কোন চক্র একই জায়গা থেকে রোহিঙ্গা ভুয়া ভোটারের তথ্য স্ক্যানিং করছে, আপলোড করছে। শুরুর দিকে যেসব রোহিঙ্গা ভোটারের তথ্য পেলাম, সেখানে অনুসন্ধান করে দেখা গেল স্ক্যান করলে যে দাগ থাকে সেখানে তিনটি দাগ পাওয়া গেছে। যতগুলো রোহিঙ্গা ভোটারের তথ্য দেওয়া হয়েছে সবগুলোর উপরেই একই জায়গায় তিনটি দাগ পাওয়া গেছে। পরে দেখা গেলো সেসব ফরমের প্রথম পেজ আছে, দ্বিতীয় পেজ নেই। সেই পেজে মূলত শনাক্তকারী, রেজিস্ট্রেশন অফিসারসহ আমাদের সবার স্বাক্ষরসহ এনআইডি নম্বর থাকে। সেজন্য তারা শুধু প্রথম পেজটি স্ক্যান করেছে। এভাবেই তাদের বিষয়টি ধরা পড়ে। আমাদের গঠিত কমিটির একটি আইটি টিম ল্যাপটপের বিষয়ে কাজ করেছে, আরেক দিকে দালালদের বিষয়ে আরেকটি টিম কাজ করেছে। তারা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তা নিয়ে কাজ করছে।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
অক্টোবর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১