অবশেষে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর শুরু - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১ ২রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-১২-০৩ ১৯:৩০:৩৯

অবশেষে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর শুরু

২য় ধাপে ভাসানচরে যাচ্ছে আরও ৭শ’ রোহিঙ্গা

প্রথম পর্যায়ে প্রায় ৬ হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থীকে নেয়া হচ্ছে পুরো প্রক্রিয়া শেষ হতে এক সপ্তাহ লাগবে

ইবরাহীম মাহমুদ আকাশ ও জসিম উদ্দিন সিদ্দিকী, সংবাদ :|ঢাকা , শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০। বুধবার (২ ডিসেম্বর) রাত ১০টা। কক্সবাজারের উখিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ মাঠে একে একে জড়ো হয় ২১টি বাস। বৃহস্পতিবার (৩ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে ৬টা। কলেজ মাঠে জড়ো করা হয় রোহিঙ্গাদের একটি দল। এরপর সকাল সাড়ে ১১টায় প্রথমে ১০টি বাস রোহিঙ্গাদের নিয়ে ভাসানচরের উদ্দেশে রওনা দেয়। দুপুর পৌনে ১টার দিকে আরও ১১টি বাস ভাসানচরের উদ্দেশে কক্সবাজার ছেড়ে যায়। প্রতিবাসে ৪০ জন রোহিঙ্গা উঠানো হয়। তাদের মালপত্র বহন করা হয় ১০টি কাভার্ডভ্যানে। রোহিঙ্গাদের বহনকারী এসব বাস ও ভ্যানের সামনে-পেছনে কড়া নিরাপত্তায় ছিল র‌্যাব, পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। বাসে করে রোহিঙ্গাদের চট্টগ্রামের পতেঙ্গায় নেয়া হয়। সেখান থেকে তাদের ১৪টি জাহাজে ভাসানচরে নিয়ে যাওয়া হয়। বৃহস্পতিবার রাতের মধ্যে তাদের ভাসানচরে স্থানাস্তর করার কথা রয়েছে।

 

বৃহস্পতিবার কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফের ৩৪টি ক্যাম্প থেকে আগ্রহী রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। প্রথম পর্যায় বৃহস্পতিবার ৬শ’ পরিবারের ২ হাজার ৫০০ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে নেয়া হয়। আজ আরও সাড়ে ৩ হাজার রোহিঙ্গাকে ভাসানচর নেয়া হবে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে এ কার্যক্রম সম্পন্ন করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

এ বিষয়ে কক্সবাজারের টেকনাফের শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশন কার্যালয়ের ক্যাম্প ইনচার্জ মোহা. খালিদ হোসেন সংবাদকে বলেন, রোহিঙ্গাদের যারা ভাসানচরে যেতে আগ্রহী তাদেরই বৃহস্পতিবার ভাসানচরে নেয়া হয়েছে। টেকনাফের শালবন ২৬ নম্বর ক্যাম্প থেকে ১৩ জন রোহিঙ্গা ভাসানচরে গেছেন। এদের বুধবার (২ ডিসেম্বর) রাতেরই উখিয়ায় নেয়া হয়। সেখান থেকে বাসে করে তাদের ভাসানচরে নেয়া হয় বলে জানান তিনি।

 

ইচ্ছুক রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে নেয়া হয়েছে

ভাসানচরে যেতে ইচ্ছুক রোহিঙ্গাদের প্রথমে স্ব-স্ব ক্যাম্প থেকে ব্যাপক নিরাপত্তার মধ্যে দিয়ে বুধবার রাতে ও বৃহস্পতিবার সকালে উখিয়া কলেজ মাঠে নিয়ে আসা হয়। সেখানে তাঁবু ও বুথ তৈরি করে তাদের খাবার পরিবেশন করা হয়। পরে তাদের তালিকা করে বাসে তোলা হয়। আগামী এক সপ্তাহ রোহিঙ্গাদের বহনের জন্য শতাধিক বাস এবং ৪০টি মালবাহী কাভার্ড ভ্যান এবং ট্রাক প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, পালংখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে ১৩ পরিবারের ৫৬ জন, বালুখালী পানবাজার ক্যাম্প থেকে ২৩ পরিবারের ১১০ জন, শামলাপুর ক্যাম্পের ৫ পরিবারের ২৭ জন, কুতুপালং ক্যাম্প থেকে ৯ পরিবারের ৪৫ জন, নয়াপাড়া ২ পরিবারের ১০ জনকে স্থানান্তরের পরিকল্পনা রয়েছে। এ পর্যন্ত ৫২ পরিবারের ২৪৮ জনসহ প্রায় ১ হাজার রোহিঙ্গাকে ভাসানচর নেয়ার প্রক্রিয়া চলছে। এদের মধ্যে ২৩নং ক্যাম্পের মাঝি আবুল হাশেম বলেন, ভাসানচরে যাওয়ার জন্য কোন ধরনের জোর দেয়া হচ্ছে না। যারা স্বেচ্ছায় যেতে ইচ্ছুক তাদের নেয়া হচ্ছে ভাসানচরে।

মিজানুর রহমান নামে এক রোহিঙ্গা যুবক জানিয়েছেন, গতরাতে রোহিঙ্গাদের ক্যাম্প থেকে উখিয়া কলেজ ক্যাম্পাসে নিয়ে আসা হয়। সেখানে তাদের নাস্তা ও খাবার পরিবেশন শেষে বাসে তোলা হয়। তার ধারণা প্রতিটি বাসে ৩০ থেকে ৪০ জনের মতো রোহিঙ্গা রয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত কত রোহিঙ্গা পরিবার ভাসানচর যাচ্ছে তার কোন সঠিক তথ্য পরিসংখ্যান পাওয়া যায়নি।

উখিয়া কুতুপালং লম্বাশিয়া রোহিঙ্গা শিবিরের নেতা আবদুর রহিম জানান, স্বেচ্ছায় লোকজন ভাসানচরে যাচ্ছে। এতে ব্যাপক উৎসাহ দেখা গেছে। ক্যাম্পের সার্বিক পরিস্থিতি একেবারে স্বাভাবিক রয়েছে।

 

ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের জন্য ১২০টি গুচ্ছগ্রাম

কক্সবাজারের শরণার্থী শিবির ও তার বাইরে অবস্থান নিয়ে থাকা প্রায় ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে নিয়ে নানা সামাজিক সমস্যা সৃষ্টির প্রেক্ষাপটে দুই বছর আগে তাদের একটি অংশকে হাতিয়ার কাছে মেঘনা মোহনার দ্বীপ ভাসানচরে স্থানান্তরের পরিকল্পনা নিয়েছিল সরকার। তবে সাগরের ভেতরে জনমানবহীন ওই চরে আশ্রয় নিতে রোহিঙ্গাদের অনাগ্রহের কারণে এতদিন তাদের সেখানে স্থানান্তর সম্ভব হয়নি। সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে প্রায় ৩ হাজার ১০০ কোটি টাকা ব্যয়ে মোটামুটি ১৩ হাজার একর আয়তনের ওই চরে ১২০টি গুচ্ছগ্রামের অবকাঠামো তৈরি করে এক লাখের বেশি মানুষের বসবাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

সেখানে রোহিঙ্গাদের জন্য আধুনিক বাসস্থান ছাড়াও বেসামরিক প্রশাসনের ও আবাসিক ভবন, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হিসেবে ব্যবহারের জন্য প্রয়োজনীয় ভবন, হাসপাতাল, ক্লিনিক ও খেলার মাঠ গড়ে তোলা হয়েছে। অর্থনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালনার জন্য সেখানে মহিষ, ভেড়া, হাঁস, কবুতর পালন করা হচ্ছে। আবাদ করা হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের শাক-সবজি। পরীক্ষামূলকভাবে ধান চাষও করা হচ্ছে। প্রকল্পটিতে যেন এক লাখ এক হাজার ৩৬০ জন শরণার্থী বসবাস করতে পারেন সে লক্ষ্যে গুচ্ছগ্রাম নির্মাণ করা হয়েছে। ১২০টি গুচ্ছগ্রামে ঘরের সংখ্যা এক হাজার ৪৪০টি। রোহিঙ্গাদের স্বাস্থ্যসেবায় দুটি ২০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল এবং চারটি কমিউনিটি ক্লিনিক তৈরির কাজ শেষ পর্যায়ে।

মালয়েশিয়া যেতে ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসা তিন শতাধিক রোহিঙ্গাকে সমুদ্র থেকে উদ্ধার করে ইতোমধ্যে ভাসানচরে নিয়ে রাখা হয়েছে। শরণার্থীদের তুলনামূলক ভালোভাবে থাকার জন্য যে সুযোগ সুবিধাগুলো ভাসানচরে রাখা হয়েছে, সেগুলো কক্সবাজারের ক্যাম্পে নেই। সরকারের শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কার্যালয়ের হিসাব অনুযায়ী, কক্সবাজারের ওই ক্যাম্পগুলোতে মোটামুটি সাড়ে ছয় হাজার একর জমিতে এখন আট লাখ ৬০ হাজারের মতো রোহিঙ্গার বসবাস। প্রতি বর্গকিলোমিটারে কোন কোন অংশে ৩০-৪০ হাজার মানুষকেও থাকতে হচ্ছে সেখানে। এই ঘনবসতির মধ্যে তাদের যেমন মানবেতন জীবনযাপন করতে হচ্ছে, তেমনি স্থানীয়ভাবে নানা সামাজিক সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে রোহিঙ্গাদের নিয়ে।

এর আগে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তর কার্যক্রম ঘিরে বঙ্গোপসাগরের তীরে ভাসানচর ঘুরে আসেন ২২টি এনজিও’র প্রতিনিধিরা। প্রতিনিধি দলের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রায় তিন হাজার ১০০ কোটি টাকা ব্যয়ে ভূমি থেকে চার ফুট উঁচু করে নির্মাণ করা হয়েছে শেল্টার হোম। রোহিঙ্গাদের জন্য তৈরি এই অস্থায়ী আবাসস্থল এখন শহরে পরিণত হয়েছে। সমাজ কল্যাণ উন্নয়ন সংস্থা’র চেয়ারপারসন জেসমিন প্রেমা জানান, শুধুমাত্র আগ্রহী রোহিঙ্গাদের ভাসানচর নেয়ার কাজ করছে সরকার এবং ২২টি উন্নয়ন সংস্থা। তাদের স্থানান্তরের জন্য অর্গানাইজড হয়ে কাজ করছে সরকার। এসব রোহিঙ্গাদের জাহাজে উঠার আগে বিভিন্ন ডাটা এন্ট্রি সাপেক্ষে বরাদ্দকৃত আশ্রয়নের টোকেন ও চাবি হস্তান্তর করা হবে বলে তিনি জানান। তিনি আরও জানান, দ্বীপটি বাসস্থানের উপযোগী করা, অবকাঠামো উন্নয়ন, বনায়ন এবং নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে দায়িত্বে রয়েছেন বাংলাদেশ নৌবাহিনী।

 

রাখাইন রাজ্যে সেনা অভিযানে গণহত্যার শিকার রোহিঙ্গারা

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট মায়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনা অভিযান শুরু হলে সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়টির ওপর চালানো হয় নিষ্ঠুর নির্যাতন। নির্বিচারে হত্যা, বাড়িঘরে আগুন ও নারীদের ধর্ষণ করে জাতিগত নিধনযজ্ঞ চালানো হয়। বর্বরোচিত নির্যাতনের ফলে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে রোহিঙ্গরা। ওই সময় সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেন। এর আগে থেকেই ৪-৫ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রিত ছিল। ফলে বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের সংখ্যা ১০-১১ লাখ। রোহিঙ্গা সংকট তিন বছর পেরিয়ে চতুর্থ বছরে পদার্পণ করলেও প্রত্যাবাসনে কোন অগ্রগতি নেই। করোনা মহামারীর কারণে প্রত্যাবাসনের প্রস্তুতিমূলক কার্যক্রম সব বন্ধ করে দিয়েছে মায়ানমার। তবে বাংলাদেশ হাল ছাড়ছে না। করোনা মহামারীর মধ্যেই ছয় লাখ রোহিঙ্গার তালিকা মায়ানমারের কাছে হস্তান্তর করেছে বাংলাদেশ। যদিও এ তালিকা থেকে মায়ানমারের যাচাই খুবই ধীরগতির। মায়ানমার দুই পর্যায়ে মাত্র ৩০ হাজার রোহিঙ্গাকে যাচাই করে প্রত্যাবাসনের জন্য চূড়ান্ত করা হয়েছিল। তার মধ্যে প্রথম পর্যায়ের মাত্র আট হাজারের তালিকা বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করেছে। দ্বিতীয় পর্যায়ের ২২ হাজারের তালিকা এখনও দেয়নি। মহামারীর পাশাপাশি আগামী নভেম্বরে মায়ানমারে জাতীয় নির্বাচনের কারণেও প্রত্যাবাসনে দেশটি ধীরগতি দেখাতে পারে। বাংলাদেশ ও মায়ানমারের মধ্যে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের বৈঠক ফেব্রুয়ারি মাসে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে তা স্থগিত হয়।

এদিকে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানাস্তর কার্যক্রম বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এবং অ্যামেনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। অন্যদিকে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তরের বিষয়ে অবগত থাকলেও তাদের শনাক্তকরণ প্রক্রিয়া সঙ্গে সংস্থাটিকে যুক্ত করা হয়নি বলে বিবৃতি দিয়েছে জাতিসংঘ। ২ ডিসেম্বর জাতিসংঘ আবাসিক সমন্বয়কারীর কার্যালয় থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে বলা হয়, আগামী দিনে কক্সবাজার থেকে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ভাসানচরে সরিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা সম্পর্কে জাতিসংঘ অবগত আছে। কিন্তু শরণার্থীদের স্থানান্তর প্রস্তুতি কিংবা রোহিঙ্গাদের শনাক্তকরণ প্রক্রিয়ার সঙ্গে সংস্থাটিকে যুক্ত করা হয়নি। তাই ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তরের ব্যাপারে জাতিসংঘ তার আগেকার অবস্থানেই রয়েছে। রোহিঙ্গা শরণার্থীরা যেন জেনে-বুঝে এবং মুক্তভাবে সিদ্ধান্ত নিতে পারে তা নিশ্চিত করতে হবে। সেজন্য জায়গাটি সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট তথ্যের ওপর ভিত্তি করে যেন তারা সিদ্ধান্ত নিতে পারে।

এদিকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.একে আবদুল মোমেন ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তর বিষয়ে বলেন, ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের জোর করে নেয়া হচ্ছে না। যারা সরকারের আহ্বানে সাড়া দিয়েছেন, তাদেরই কেবল স্থানান্তর করা হচ্ছে।

ভাসানচরে রোহিঙ্গা স্থানান্তরের বিরোধিতা না করে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো মায়ানমারের রাখাইনে বসবাস উপযোগী পরিবেশ গড়ে তুলতে জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ভাসানচরে স্থানান্তর নিয়ে আপত্তি অযৌক্তিক। অনেকে মনে করে ভাসানচরে গেলে রোহিঙ্গাদের সুযোগ-সুবিধা কমে যাবে। আসলে ভাসানচরে আরও অনেক বেশি সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা করা হয়েছে তাদের জন্য।

 

আরো সংবাদ