রোহিঙ্গারা স্থায়ীভাবে থেকে গেলে তার পরিণাম কী হবে-মার্কিন সাংবাদিকের বিশ্লেষণ - Coxsbazarkontho.com | Newspaper

বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯ ১লা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বুধবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০৯-১১ ২১:২৪:৪৪

রোহিঙ্গারা স্থায়ীভাবে থেকে গেলে তার পরিণাম কী হবে-মার্কিন সাংবাদিকের বিশ্লেষণ

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে নির্মম সহিংসতার জেরে কয়েক লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশ পালিয়ে আসে। এই রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে স্থায়ীভাবে থেকে গেলে তার পরিণাম কী হতে পারে-সে বিষয়ে একটি বিশ্লেষণমূলক নিবন্ধ লিখেছেন মার্কিন সাংবাদিক জসুয়া কার্লানজিটক। তিনি দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক সাংবাদিকতা ও লেখালেখিতে খ্যাতি অর্জন করেছেন। নিবন্ধটি নীচে তুলে ধরা হলো।

চলতি মাসের শুরুতে ওই রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন শুরু করার নতুন পরিকল্পনা গ্রহণ করে মিয়ানমার সরকার। রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে এটি ছিল নেপিদোর দ্বিতীয়বারের মতো প্রচেষ্টা। গত  নভেম্বরে প্রথম প্রচেষ্টা চালানো হয়েছিল। এবার মিয়ানমার সরকার প্রায় তিন হাজার রোহিঙ্গাকে ফিরিয়ে নিতে পদক্ষেপ নিয়েছিল।

রোহিঙ্গারা যে মিয়ানমারে ফিরে যেতে চাইবেন না সে বিষয়ে অবাক হওয়ার কিছু নেই। রাখাইন রাজ্যে ভয়াবহ সহিংসতার মুখে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে তারা। ইতোমধ্যে তারা বাংলাদেশ দু’বছর অতিবাহিত করেছে।

মিয়ানমারের বেশিরভাগ রোহিঙ্গা বাস করেন রাখাইন রাজ্যে। রাজ্যটিতে এখনও সহিংসতা এবং অস্থিরতা বিরাজ করছে।

সাম্প্রতিক মাসগুলিতে রাখাইন রাজ্যে সহিংসতা আবারও বেড়েছে। কারণ সেখানে রাখাইন আরাকান আর্মির সাথে সেনাবাহিনী লড়াই চলছে। রাখাইনে সেনাবাহিনী তার অভিযান অব্যাহত রেখেছে। জাতিসংঘের মানবাধিকার দপ্তর তাতমাডোকে এই লড়াইয়ে বেসামরিক নাগরিকদের বিরুদ্ধে আক্রমণ চালানোর জন্য অভিযুক্ত করেছে।

এদিকে, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল -এর একটি প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে যে, মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী রাখাইন রাজ্যে রাখাইন নৃগোষ্ঠী এবং রোহিঙ্গা উভয়ের বিরুদ্ধে নতুন করে নৃশংসতা চালাচ্ছে। সেখানে বিচার বর্হিভূত মৃত্যুদণ্ডও কার্যকর করা হচ্ছে।

এদিকে, মিয়ানমার সরকার দেশটিতে রোহিঙ্গারা নিরাপদে ফিরে আসতে পারে বলে জানিয়েছে। এমন কথা বললেও রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবর্তনের জন্য নিরাপদ ও বিশ্বাসযোগ্য পরিবেশ তৈরি করতে পারেনি মিয়ানমার সরকার।

রাখাইন রাজ্যে চলমান সহিংসতা নিরাপদে প্রত্যাবর্তনের সম্ভাবনা নির্দেশ করে না। মিয়ানমার সরকারের সিনিয়র নেতারা  মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের এখনও অবৈধ বলে উল্লেখ করেন।

রোহিঙ্গাদের পরিস্থিতি ঘনিষ্ঠভাবে পর্যবেক্ষণ করা মানবাধিকার ও তদন্তকারী সংস্থাগুলো চলতি সপ্তাহে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। তারা জানতে পেরেছেন, মিয়ানমারে বসবাসরত রোহিঙ্গাদের এখনও ‘ন্যাশনাল ভেরিফিকেশন কার্ড’ গ্রহণ করতে বাধ্য করছে  কর্তৃপক্ষ। এই কার্ডের মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের মূলত বিদেশী হিসেবে চিহ্নিত করা হচ্ছে।

এদিকে, প্রত্যাবাসনের জন্য তালিকাভুক্ত রোহিঙ্গাদের সাথে পরামর্শ করতে বা মিয়ানমারে তাদের ফেরাতে মিয়ানমার ও বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের প্রস্তুত থাকতে দেখা যায়নি।

জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন জানতে পেরেছে যে, মিয়ানমার সরকার উত্তর রাখাইন রাজ্যের যে অংশে রোহিঙ্গারা বাস করত তা অনেকটাই সীমাবদ্ধ করেছে।

অন্যদিকে, মিয়ানমারের  কিছু সংস্থা রোহিঙ্গাদের দখলে থাকা জমিগুলিতে ‘ট্র্যাক্ট’ তৈরি করছে। আগস্টের গোড়ার দিকে জাতিসংঘের একটি প্রতিবেদনে দেখা গেছে, তাতমাডা’র ‘ক্রনি সংস্থাগুলি’ রাখাইন রাজ্যে পুননির্মান প্রকল্পগুলিকে তহবিল দিচ্ছে। যা মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের অবস্থানগত প্রমাণ মুছে দেওয়ার জন্য তৈরি করা হয়েছে।

১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা অনির্দিষ্টকালের জন্য বাংলাদেশে থেকে যাওয়ার চেষ্টা করতে পারে। এমন একটি অবস্থা ক্রমশ স্পষ্ট হয়ে উঠছে।

তবে, বার্টিল লিন্টনার উল্লেখ করেছেন, বাংলাদেশ সরকার কোনোভাবেই রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে রাখতে চায় না। ইতিমধ্যে, মিয়ানমার-বাংলাদেশ সীমান্তের শিবিরটি বিশ্বের বৃহত্তম শরণার্থী শিবিরে  রূপ নিয়েছে। সেখানে রোহিঙ্গাদের উপচে পড়া ভিড়। ওই স্থানটি রোগ ছড়িয়ে পড়া এবং মানব পাচারের জন্য অত্যন্ত ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। লিন্টনার বলছেন, ওই শরণার্থীদের প্রতি ক্রমেই ক্ষোভ বাড়ছে বাংলাদেশী নাগরিকদের। বাংলাদেশীরা আশঙ্কা করছেন যে রোহিঙ্গারা স্থানীয়দের কর্মসংস্থান কমিয়ে দেবে। শিবিরের বিশাল আকার পরিবেশ ক্ষতিগ্রস্থ করছে। তাদের আশঙ্কা, এই বিশাল সংখ্যক রোহিঙ্গা এখন বেপরোয়া হয়ে উঠতে পারে। তারা বাংলাদেশে চরমপন্থী গোষ্ঠী দ্বারা উগ্রপন্থীকরণের টার্গেটে পরিণত হতে পারে। রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফিরে গেলে তাদের অস্বস্তিকর পরিস্থিতিতে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এ কারণে রোহিঙ্গাদের দীর্ঘ সময়ের জন্য বাংলাদেশে থেকে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে, রোহিঙ্গারা বাংলাদেশেই থাকবে। বাংলাদেশ সরকারের এ বিষয়ে প্রস্তুত থাকা প্রয়োজন বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

সূত্র : ফরেন অ্যাফেয়ার্স ম্যাগাজিন

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
অক্টোবর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১