রোহিঙ্গা আর ইয়াবা নিয়ে চরম বিপর্যয়ে মূখে পর্যটন রাজধানী - Coxsbazarkontho.com

বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৬শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বুধবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০৯-২৮ ১৩:২৪:২২

রোহিঙ্গা আর ইয়াবা নিয়ে চরম বিপর্যয়ে মূখে পর্যটন রাজধানী

জসিম সিদ্দিকী: মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গারা কক্সবাজারে ঠাঁই নেয়ার পর এখানকার আর্থসামাজিক বিপর্যয়ের পাশাপাশি মহাসম্ভাবনার পর্যটন খাতেও দেখা দিয়েছে মহাধসের শঙ্কা। রোহিঙ্গা ও তাদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত মরণ নেশা ইয়াবা বিস্তারের কারণে পর্যটন রাজধানী কক্সবাজারে পর্যটকরা প্রতিনিয়তই পড়ছে বিব্রতকর অবস্থায়। ওইসব অপকর্মের কারণে পর্যটকরাও নিশ্চিন্তে অবাধ চলাফেরা করতে পারছে না। বিভিন্ন পর্যায়ে লোকের সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে। টেকনাফ-উখিয়ায় রোহিঙ্গারা এসে ইতোমধ্যেই বহু পাহাড় ও সংরক্ষিত বন কেটে উজাড় করে বসতি গড়েছে। প্রতিনিয়তই এ ধারাবাহিকতা চলছে। তা ছাড়াও সমুদ্র সৈকত ও বিভিন্ন পাহাড় এলাকাও বিভিন্ন সংস্থা, প্রতিষ্ঠান ও প্রভাবশালীরা নানা কৌশলে দখলের প্রতিযোগিতায় নেমেছে। এসব যেন দেখারও কেউ নেই।
এমন সম্ভাবনার পর্যটন খাতকে অন্য কোনো স্বার্থেই পর্যটন করপোরেশন অনেকটা অবহেলার চোখে দেখছে বলে অভিযোগ করে এখানকার বিশিষ্টজনরা। তারা মনে করে, শুধু মেরিন ড্রাইভ ছাড়া এখানে তেমন কিছুই করা হয়নি। বিভিন্ন উন্নয়নের কথা বলা হলেও সেসব কাজের অগ্রগতি অনেক মন্থর। অথচ, শুধু কক্সবাজারের এ পর্যটন খাতকে গুরুত্ব দিয়ে অত্যাধুনিক ব্যবস্থা গড়ে তুললে পুরো দেশেরই অর্থনৈতিক চিত্র পাল্টে যেতে পারে।
জানা যায়, কক্সবাজারে পর্যটন করপোরেশনের হোটেল-মোটেলগুলোর অধিকাংশ কক্ষ দীর্ঘদিন ধরেই রোহিঙ্গা নিয়ে কাজ করা এনজিওকর্মীরা ভাড়া নিয়ে আছে। নামি দামি অন্য ফোরস্টার-ফাইভস্টার হোটেলগুলোও দেশি-বিদেশি এনজিওকর্মীদের দখলে। মধ্যম বা নিম্নমানের হোটেলগুলো সাধারণ পর্যটকরা ব্যবহার করছেন বেশি। রোহিঙ্গাদের নিয়ে বিপুল সংখ্যাক এনজিওকর্মীদের পদচারণার কারণে এখানে খাবার, যানবাহন থেকে শুরু করে সব ক্ষেত্রে মূল্য বা খরচের মাত্রা বেড়েছে অস্বাভাবিক হারে। যার ফল ভোগ করতে হচ্ছে সাধারণ পর্যটকদের।
আমরা কক্সবাজারবাসী’র সমন্বয়ক করিম উল্লাহ কলিম বলেন, কক্সবাজারে বর্তমানে তিনটি সমস্যা প্রকট আকার ধারণ করেছে। এগুলো হচ্ছে রোহিঙ্গা, ইয়াবা এবং দখল। তিনি বলেন, প্রভাব খাটিয়ে সমুদ্র তীরবর্তী এলাকা এবং বনাঞ্চল দখল করা হচ্ছে। প্রশাসন যেখানে বাধা দেয়ার কথা সেখানে প্রশাসনের ব্যানারেও দখল চলছে। পর্যটনের এসব এলাকায় স্থাপনা নির্মাণ থেকে শুরু করে নানা বিষয়ে উচ্চ আদালতে নির্দেশনা থাকলেও কেউ তা মানছে না। পর্যটন করেপারেশন থেকে শুরু করে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনও সেদিকে তেমন গুরুত্ব দিচ্ছে না বলেও অভিযোগ করে কলিম উল্লাহ।
কক্সবাজার শহর ঘুরে দেখা যায়, শহর জুড়েই খানাখন্দ, ডোবা আর ভাঙা সড়ক। অপরিকল্পিত পয়নিষ্কাশন ব্যবস্থা। শহরের অভ্যন্তরে শোভাবর্ধন বা আকর্ষণ করার মতো তেমন কিছুই নেই। শহর ঘেঁষে সমুদ্র পাড়ের লাবণী পয়েন্ট, সুগন্ধা ও কলাতলী বিচে পর্যটকদের বসা বা বিশ্রামের জন্য ভাড়া ভিত্তিক কিছু শ্লিপিং চেয়ার ছাড়া আর কিছুই নেই। রাতে সাগর পাড়ের সুগন্ধা ও লাবণী পয়েন্টে কিছুটা আলোর ব্যবস্থা থাকলেও অন্যত্রে সেটিও নেই। রয়েছে দীর্ঘ বালিময় তীর। এমন বালি পেরিয়ে সমুদ্রের পানি স্পর্শ করতে হয় পর্যটকদের।
কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন বলেন, পর্যটকদের নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা দেখার জন্য কক্সবাজারে ট্যুরিস্ট পুলিশ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। পাশাপাশি জেলা পুলিশও সার্বিক আইনশৃঙ্খলা দেখভাল করছে। তবে রোহিঙ্গাদের কারণে কক্সবাজারের পরিবেশ অনেকটা বিনষ্ট হয়েছে। যার প্রভাব পর্যটন খাতেও পড়েছে। আমরা রোহিঙ্গাদের নিয়ন্ত্রণ ও শৃঙ্খলার মধ্যে রাখার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
December 2019
M T W T F S S
« Nov    
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
Skip to toolbar