রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকান্ড দুর্ঘটনা না পরিকল্পিত! - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১১ এপ্রিল ২০২১ ২৮শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৩-২৪ ০৬:৫০:২৫

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকান্ড দুর্ঘটনা না পরিকল্পিত!

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকান্ড দুর্ঘটনা না পরিকল্পিত!

বিশেষ প্রতিবেদক :  কক্সবাজারের উখিয়া বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকান্ড দুর্ঘটনা নাকি নাশকতা এ নিয়ে একাধিক সংস্থা থেকে চলছে তদন্ত। স্থানীয়দের দাবি, বাজার নিয়ন্ত্রণ, আধিপত্য বিস্তার ও ষড়যন্ত্র করে পরিকল্পিতভাবে আগুন লাগিয়েছে রোহিঙ্গারা।

তবে তদন্ত কমিটির মাধ্যমে আগুনের প্রকৃত কারণ বেরিয়ে আসবে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোহসীন। আগামী ৩ দিনের মধ্যে গঠিত তদন্ত কমিটি অগ্নিকা-ের প্রকৃত কারণ অনুসন্ধান করে তদন্ত প্রতিবেদন সরকারের কাছে জমা দিবেন।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানাগেছে, উখিয়ার বালুখালীতে রোহিঙ্গাদের বসতঘর, দোকানপাট ও বিভিন্ন সংস্থার একাধিক অফিস পুড়ে বিরাণভূমিতে পরিণত হয়েছে। চারপাশে কেবল আগুনে পোড়া ধ্বংসস্তূপ। তবে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকা-ের ঘটনার কারণ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে নানা কল্পনা-জল্পনা।

স্থানীয়রা জানান, ক্যাম্প ঘিরে রয়েছে বাজার নিয়ন্ত্রণ, মাদক কারবার, অস্ত্র কারবার ও আধিপত্যের লড়াই। অগ্নিকান্ডে ঘরবাড়ি হারানোদের দাবি, এটি দুর্ঘটনা নয়, পরিকল্পিত ঘটনা।

এ ঘটনা নিয়ে উখিয়ার পালংখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরী জানান, এই অগ্নিকা-টি পরিকল্পিত বলে মনে হচ্ছে। এতে রোহিঙ্গাদের পাশাপাশি স্থানীয় ৩০০ মত ঘরবাড়ি পুড়ে গেছে। কিভাবে এই অগ্নিকা-ের সূত্রপাত হয়েছে তা সঠিকভাবে খতিয়ে দেখার জন্য প্রশাসন ও সরকারের কাছে তিনি আবেদন জানান।

স্থানীয় ক্ষতিগ্রস্ত সৈয়দ করিমের ছেলে মবিনুল ইসলাম বলেন, কাঁটাতারের বেড়া দিয়ে শরণার্থী শিবির ঘেরা দেয়ার পর তাদের ঘরবাড়ি কাঁটা তারের ভিতর পড়ে যায়। হঠাৎ এ অগ্নিকা-ের ফলে তাদের সার্টিফিকেট, মূল্যবান কাগজপত্র, স্বর্ণালঙ্কার, আসবাবপত্রসহ বাড়ির সবকিছুই পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

এদিকে মঙ্গলবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. অনোয়ার হোসেন জানিয়েছেন এটি নাশকতা কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।
সোমবার (২২ মার্চ) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে, উখিয়ার বালুখালী ৮ নম্বর ক্যাম্পে হঠাৎ আগুন লাগে। মুহূর্তেই তা চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে নিহত হয় ১৫ জন। এ ঘটনার পর পুলিশ ৮ রোহিঙ্গাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে।

আরো সংবাদ