লন্ডভন্ড সদর খাদ্য গুদাম সিন্ডিকেট - Coxsbazarkontho.com | Newspaper

মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯ ২৭শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মঙ্গলবার

প্রকাশ :  ২০১৯-১১-০৩ ১১:০১:৩০

লন্ডভন্ড সদর খাদ্য গুদাম সিন্ডিকেট

এম. বেদারুল আলম : অবশেষে সদর খাদ্য গুদামের সিন্ডিকেট ওলট পালট হয়ে গেল। প্রধানমন্ত্রীর দূর্নীতি বিরোধী চলমান অভিযানের ঢেউ লেগেছে কক্সবাজার সদর খাদ্য গুদামে। ঘাঁপটি মেরে ১০ বছর যাবৎ সিন্ডিকেট করে দুর্নীতির রামরাজত্বকারি কামরুলকে শাস্তিমূলক বদলী করা হয়েছে চাঁদপুরে, অপর সিন্ডিকেট সদস্য রাজিয়াকে নিজ কর্মস্থল মহেশখালী খাদ্য গুদামে ফিরে যেতে বলা হয়েছে। গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সালাহ উদ্দিনকে দ্রুত সময়ের মধ্যে বদলীর জন্য চট্টগ্রাম বিভাগীয় খাদ্য কর্মকর্তার বরাবরে চিঠি প্রেরন করা হয়েছে। আজ রবিবারই কামরুল এবং রাজিয়াকে বদলীকৃত জায়গায় যোগদানের জন্য সদর খাদ্য গুদাম থেকে অবমুক্তিপত্র দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ( ভারপ্রাপ্ত) দেবদাস চাকমা। তবে তাদের বদলী ঠেকাতে বিপুল টাকা নিয়ে মাঠে নেমেছে শক্তিশালী চালক্রয় সিন্ডিকেট । সম্প্রতি সদর খাদ্য গুদামে রোহিঙ্গাদের জন্য গুদামজাত করা চালের বস্তায় ৫০ কেজির স্থলে ৩০ কেজি পাওয়ার পর গোয়েন্দা সংস্থা , র‌্যাব, সদর উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা অভিযান চালিয়ে অভিযোগের সত্যতা পায় এবং সদর খাদ্য কর্মকর্তা সালাউদ্দিন, গুদামের দারোয়ানকে আটক করে এবং গুদামটি সিলগালা করে দেয় যেটি বর্তমানে সিলগালা রয়েছে। এ ঘটনায় চট্টগ্রাম বিভাগীয় খাদ্য কর্মকর্তা মাহবুবুল আলম সরেজমিনে সদর খাদ্য গুদামে এসে অনিয়মের সত্যতা পাওয়ার পর কামরুলকে চাঁদপুরের সিএসবিতে বদলীর আদেশ দেন এবং রাজিয়াকে পূর্বের কর্মস্থল মহেশখালী খাদ্য গুদামে ফিরে যাওয়ার নির্দেশ দেন।

Advertisements

এদিকে বিষয়টি জানার জন্য সদর খাদ্য কর্মকর্তা সালাহ উদ্দিন, বদলীর আদেশ পাওয়া কামরুলের সাথে যোগাযোগের জন্য মুঠোফোনে একাধিকবার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু কেউ মোবাইল রিসিভ না করায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। অভিযানের পর কামরুল পলাতক থাকায় মোবাইল সংযোগ বিচ্ছিন্ন পাওয়া যাচ্ছে। নিতান্তই পরিচিতজন ছাড়া কারো মোবাইল ধরেন না বলে কামরুলের ঘনিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।
অপরদিকে সদর খাদ্য গুদামের অনিয়ম নিয়ে গঠিত অপর একটি কমিটি মাঠে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। গঠিত তদন্ত কমিটিতে মহেশখালী খাদ্য কর্মকর্তা, উখিয়া খাদ্য কর্মকর্তা এবং অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট (এডিএম) মোঃ শাহজাহান আলী রয়েছেন। উক্ত কমিটি নিবিড়ভাবে তদন্তকাজ চালিয়ে যাচ্ছেন বলে তিনি নিশ্চিত করেছেন তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ শাহজাহান আলী।
তদন্তের অগ্রগতি এবং বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে তদন্ত টিমের প্রধান এডিএম মোঃ শাহজাহান আলী কক্সবাজারকে জানান, প্রাথমিকভাবে তদন্তে কিছু আর্থিক অনিয়মের সত্যতা পাওয়া গেছে। এছাড়া চালের মান, আর্দ্রতা, গুনগতমান বজায় আছে কিনা তা যাছাই করার জন্য খাদ্য বিভাগের পক্ষ থেকে একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠনের প্রস্তাব করা হয়েছে। তদন্তের সার্থে সবকিছু এখন বলা যাচ্ছেনা বলে জানান। তিনি চুড়ান্ত করে সবকিছু জানাবেন বলেও নিশ্চিত করেন। সদর খাদ্য গুদামের অনিয়ম দীর্ঘদিনের ফলে তদন্ত ইতোপূর্বে ও অনেক হয়েছে। সুতরাং সবকিছু ভালভাবে দেখে প্রতিবেদন দেওয়া হবে বলে জানা গেছে।
এদিকে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক (ভারপ্রাপ্ত) দেবদাস চাকমা জানান,  শীগ্রই আবারো ধান ক্রয় শুরু হবে। যেহেতু গতবারে ধান ক্রয়ে নানা অনিয়ম দূর্নীতি হয়েছে এবং তা তদন্তে প্রমান ও পেয়েছিল। সুতরাং  এবার ধান ক্রয় স্বচ্ছ করতে হলে দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের ছাটাই জরুরি। আমি অনিয়মে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে উপরমহলকে লিখিত জানিয়েছি। আশা করি সদর খাদ্য গুদাম শুদ্ধি অভিযানে কলংকমুক্ত হবে।
Advertisements

উল্লেখ্য সদর খাদ্য গুদামের বছরব্যাপি নানা অনিয়ম চলে আসার পর ৬ বার তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কিন্তু তদন্তের প্রতিবেদন বার বার আটকে যায় অজ্ঞাত কারনে। ফলে অনিয়ম হওয়ার পরও কোন শান্তি না হওয়ায় দিন দিন বেড়ে চলে সদর খাদ্য গুদামের দূর্নীতি ও নানা কেলেংকারি। কক্সবাজারে খাদ্য গুদামের অভ্যন্তরেই খাদক, ধান ক্রমে লাগামহীন দূর্নীতি, ভেজা চাল গুদামজাত করেই লাখপতি ২ কর্মকর্তা, খাদ্য গুদামের চালের বস্তায় কারচুপি এবং সর্বশেষ খাদ্যগুদামের কালসাপ কামরুল-রাজিয়া অধরা, সদর খাদ্য কর্মকর্তাসহ আটক-২ শিরোনামে বেশ কয়েকটি তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর প্রশাসনে টনক নড়ে। গোয়েন্দা সংস্থা, র‌্যাব, সদর উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা  যৌথ অভিযান চালায় এবং ২জনকে আটকও করা হয়। তবে এবার তদন্ত কমিটিতে এডিএম শাহাজান আলীর মত অভিজ্ঞ কর্মকর্তা দায়িত্ব পাওয়ার কারনে দূর্নীতিবাজদের বড় ধরনের শাস্তি  হবে বলে মনে করেন সচেতন মহল।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
নভেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০