লোকাল নেতা পাতি নেতাদের কারণে গ্যাং রেপ বেড়েছে - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০ ১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

প্রকাশ :  ২০২০-১০-০৭ ০৫:০৫:৪৫

লোকাল নেতা পাতি নেতাদের কারণে গ্যাং রেপ বেড়েছে

লোকাল নেতা পাতি নেতাদের কারণে গ্যাং রেপ বেড়েছে

নিউজ ডেস্ক :  ধর্ষণ নিয়ে দেশে এমন প্রতিবাদ এর আগে কখনো হয়নি। মানুষের এই প্রতিবাদই দেশকে ধর্ষণমুক্ত করবে। কবি নির্মলেন্দু গুণ ফেসবুকে এমনই স্ট্যাটাস দিয়েছেন। বাস্তবে নোয়াখালীর ঘটনায় ফুঁসে উঠেছে দেশ। দাবি উঠেছে অপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তির। ঘটনার পৈশাচিকতা নাড়া দিয়েছে সবাইকে। কেন ঘটছে এ রকম ঘটনা? আর সন্ত্রাসীদের এত শক্তিও আসছে কোথা থেকে? কোন শক্তির বলে তারা দেশের মুখকে কালো করছে।

দেশের মুখকে কালো করার এ ধরনের ঘটনা কেন ঘটছে, সন্ত্রাসীদেরও বা শক্তির উৎস কোথায়- এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি এ এইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক সারাক্ষণকে বলেন, ‘এটা সারাদেশের জন্য একটি কলঙ্কজনক ঘটনা। এ ধরনের ঘটনা প্রায়ই পত্রিকা খুললে আমরা দেখতে পাই। তবে এই ঘটনাটি অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক; কারণ, ঘটনাটি আগে প্রশাসনের কাছে বা পুলিশের কাছে আসেনি। কিভাবে এমনটি হলো তা বিস্ময়ের ব্যাপার। এ ঘটনার মূল যে হোতা তাকে সম্ভবত স্থানীয় আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য প্রমোট করেছে। তাকেও জবাবদিহির আওতায় আনতে হবে। জড়িত সবাইকে দৃষ্টান্তমূলক সাজা দিতে হবে যাতে এ ধরনের ঘৃণ্য অপকর্ম ঘটাতে আর কেউ সাহস না পায়। আর নির্যাতিতাকে যথাসম্ভব প্রটেকশন দিতে হবে। ’

ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের ধরতে পুলিশ ও র‌্যাবের অভিযানকে সাধুবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘তারা যে পদক্ষেপ নিয়েছে তা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। এ ধরনের অপরাধ অবশ্যই কমিয়ে আনতে হবে। নারীরা এখানে কেউ নিরাপদ নয় বলে এখন মনে হচ্ছে। নারীদের নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। অপরাধীদের সাজা দিতে হবে, বিচার যাতে বিলম্বিত না হয় সে ব্যবস্থা নিতে হবে।’ এ ঘটনায় নির্বাহী বিভাগের ব্যর্থতা দেখছেন এই বিচারপতি। তিনি বলেন,‘ তারা এতোদিন কেন এটা জানলো না। এটা অবশ্যই তাদের ব্যর্থতা।’

পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক শহিদুল হক সারাক্ষণকে বলেন, নোয়াখালীর ঘটনাটি একটা মর্মান্তিক, পৈশাচিক কাজ। এই কাজটি যারা করেছে তাদের কোন বিবেক নেই। এই অপরাধীরা অমানুষ। এদের সবোর্চ্চ সাজা হওয়া উচিত।’ শহিদুল হক বলেন, ‘গ্রামের সাধারণ মানুষ কোর্ট-কাচারি কিংবা পুলিশের কাছে যেতে চায় না। এটা বাস্তবতা। নির্যাতিতা মহিলা তো স্থানীয় মেম্বারের কাছে গেছে। মেম্বার কোন ব্যবস্থা নেয়নি। মেম্বারের উচিত ছিল থানার দ্বারস্থ হওয়া। সেটা হয়নি। মেম্বার দায়িত্ব পালন করেননি। তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া উচিত বলে আমি মনে করি। ’

পুলিশকে জনগণের বন্ধু উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘মানুষকে সাহস করে থানায় যেতে হবে। পুলিশের সঙ্গে মানুষের দূরত্ব কমানোর জন্য আমি কমিউনিটি পুলিশিং এর ব্যবস্থা করেছিলাম। পুলিশের সঙ্গে মানুষের যদি সেতুবন্ধন হয় তাহলে দূরত্ব থাকবে না।’ এ বিষয়ে নির্বাহী বিভাগের অবহেলা আছে কিনা প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘বিষয়টি নির্বাহী বিভাগের নলেজে আসেনি। নির্বাহী বিভাগে বিষয়টি এলে তারা যদি কোন ব্যবস্থা না নিতো তাহলে তাদের ব্যর্থতার বিষয়টি আসতো। ‘

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. মাহবুবুর রহমান সারক্ষণকে বলেন, ‘ রাষ্ট্রে পাওয়ার প্র্যাকটিসের একটা কালচার গড়ে উঠেছে। অনেকটা এরোগেন্স অব পাওয়ার দেখানোর চেষ্টা চলছে। লোকালি যারা পাওয়ার গ্রুপ তারা এই এরোগেন্স অব পাওয়ারটা বিভিন্নভাবে দেখায়। ভায়োলেন্সের মাধ্যমে দেখায়, গ্যাংরেপের মাধ্যমে শো করে। আমাদের পুরো কালচারটা ঠিক না করলে এটা বন্ধ হবে না। ’

তিনি আরো বলেন, ‘শুধুমাত্র আইন কানুন দিয়ে শাস্তি দিয়ে পুরো বিষয়টা সমাধান করা যাবে না। লোকাল লেভেলে যারা এগুলো করছে তারা তো এরোগেন্স অব পাওয়ার শো করছে। তারা আসলে নিজেদের আইনের ঊর্ধ্বে ভাবছে।’ ভিকটিমরা আইনের দ্বারস্থ হতে ভয় পাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলছেন, ‘শাস্তি হচ্ছে না অপরাধীদের, সবাই নিজেদের দায়িত্ব এড়িয়ে চলছে। খুব বেশি যেগুলো ভাইরাল হচ্ছে সেগুলোর হয়তো বা শাস্তি হচ্ছে।’

দেশে ধষর্ণের তুলনায় সংঘবদ্ধ ধর্ষণ বাড়ছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘আমাদের এখানে গ্যাং রেপের কালচারটা বাড়ছে। রেপ আর গ্যাং রেপের মধ্যে বড় পার্থক্য হলো পুরো বিষয়টাই রাজনৈতিক। রাজনৈতিক ক্ষমতা না থাকলে এটা হওয়ার কথা না। পলিটিক্যাল পাওয়ার বলতে যে শুধুমাত্র পার্টি পলিটিক্সের পাওয়ার হতে হবে বিষয়টা এমন না। স্থানীয় পর্যায়ে এটা একটা পাওয়ার প্র্যাকটিসের চেষ্টা। এই যে লোকাল পলিটিক্যাল পাওয়ারের মিসইউজ হচ্ছে সেটা খুবই উদ্বেগজনক। এক ধরনের ইমপিউনিটি বা দায়মুক্তির ব্যাপার আছে আমাদের এখানে।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই অধ্যাপক মনে করেন, ‘এই অপরাধীরা দিনের পর দিন কাজগুলো করে যায়। তাদের বিচার হয় না। সাধারণ মানুষও তাদের আইনের চেয়ে বেশি শক্তিশালী ভাবে। এ কারণে তাদের আইনের ওপর আর আস্থা থাকে না তখন। এটা একটা বড় কারণ। আমরা হয়তো বড় একটা দুইটা ঘটনা দেখতে পাই। তবে এ রকম ঘটনা আরো অনেক ঘটছে সেগুলো নিয়ে খুব বেশি উচ্চবাচ্য হয় না।’

তিনি বলেন, ‘এক মাস আগে যদি ভিকটিম পুলিশকে জানাতো সে কতটুকু জাস্টিস পেতো সেটা নিয়ে সন্দেহ করার যথেষ্ট কারণ আছে। এগুলো কোন বিচ্ছিন্ন ঘটনা না। এরোগেন্স অব পাওয়ার প্র্যাকটিসটা সবখানেই আছে। এই পাওয়ার শো করলে নেতা হওয়া যায়, বড় কিছু হওয়া যায়- এমন ভাবনা থেকেই বারবার একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটছে। সেক্ষেত্রে লোকাল লেভেলের পাতি মাস্তানরাও ক্ষমতা দেখানোর জন্য এই কাজগুলো করে।’

এখন কোন ঘটনা ভাইরাল না হলে প্রশাসনের টনক নড়ে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘ভাইরাল না হলে প্রশাসন এটা জানতে পারতো কিনা তা বলা মুশকিল। যেহেতু এটা একটা ঘরের ভেতরের ঘটনা। বাস্তবতা হচ্ছে ঘটনার পর নির্যাতিতা আসলে এলাকা ছাড়তে বাধ্য হয়েছে। লোকাল রিয়েলিটি না বুঝে কিছু বলা কঠিন।’ সূত্র-সারাক্ষণ

আরো সংবাদ